ঢাকা, মঙ্গলবার 29 August 2017, ১৪ ভাদ্র ১৪২8, ০৬ জিলহজ্ব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

রোহিঙ্গা গণহত্যা বন্ধ না হলে মিয়ানমার দূতাবাস ঘেরাও করা হবে

চট্টগ্রাম অফিস: গতকাল সোমবার বাদ যহর চট্টগ্রাম প্রেসক্লাব চত্বরে আরকানে রোহিঙ্গা মুসলিমদের উপর বর্মী সামরিক বাহীনির ঘৃণ্যতম গণহত্যার প্রতিবাদে এবং রোহিঙ্গা মুসলিম গণহত্যা বন্ধ ও তাদের নাগরিকত্ব ফিরিয়ে দেওয়ার দাবিতে ইসলামী ছাত্র খেলাফত চট্টগ্রাম মহানগর শাখার এক প্রতিবাদী মানববন্ধন কর্মসূচী অনুষ্ঠিত হয়।
ইসলামী ছাত্র খেলাফত চট্টগ্রাম মহানগর সভাপতি ওসমান কাসেমীর সভাপতিত্বে ও নগর সেক্রেটারি নাজমুস সাকিবের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, আরকানের রোহিঙ্গা মুসলমানদের উপর সামরিক জান্তা-পুলিশ ও সন্ত্রাসী মগদস্যু কর্তৃক বর্বরোচিত নির্মম হত্যাকান্ডের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বক্তারা বলেন, হাজার হাজার বছর ধরে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী আরাকানের পবিত্র ভূমিতে বসবাস করে আসছে। কিন্তু রোহিঙ্গা মুসলমানদের এই পবিত্র ভূমিকে মুসলিম জনশূন্য করার লক্ষ্যে মিয়ানমারের সামরিক জান্তা-পুলিশ ও মগদস্যুরা ইতিহাসের ঘৃণ্যতম বর্বরোচিত মুসলিম গণহত্যা চালাচ্ছে। একটি স্বাধীন মুসলিম আরাকানকে দখল করে শতাব্দীকাল থেকে সেখানকার মুসলিমদের ওপর গণহত্যা, ধর্ষণ, লুণ্ঠন, নারী-শিশু ও বৃদ্ধদের নিপীড়ন, জ্বলন্ত আগুনে পুড়িয়ে মারছে। ঘরবাড়িতে অগ্নিসংযোগ করে মুসলমানদের নিজ জন্মভূমি ছাড়া করছে।
বক্তারা বলেন, রোহিঙ্গা মুসলমানদের উপর এত নির্মম নৃশংস নির্যাতন ও মানবতাবিরোধী অপরাধ হওয়ার পরেও আজ বিশ্ব বিবেক নীরবতা পালন করছে। জাতিসংঘ ওয়াইসি সহ বিশ্বের মানবতাবাদী সংগঠনগুলোর কোন কার্যকরী পদক্ষেপ নেই। কিন্তু বাংলাদেশ প্রতিবেশী মুসলিম প্রধান দেশ হিসাবে এদেশের সরকার ও জনগণ বসে থাকতে পারেনা।
তাছাড়া মিয়ানমার সরকার রোহিঙ্গাদের বাঙালি আখ্যায়িত করে বাংলাদেশের প্রতি চ্যালেঞ্জ ছুড়েছে। তার কড়া জবাব দেওয়া এদেশের সরকার ও জনগণের নৈতিক দায়িত্ব।
বক্তারা আরো বলেন, মুসলিম সমাজ কোন প্রকার জুলুম নির্যাতন সমর্থন করেনা। কোন ধরণের অন্যায় ও অমানবিক কর্মকান্ডকে উৎসাহিত করেনা। আমরা সবসময় আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল তাই এখনো এদেশে বৌদ্ধজনগোষ্টী নিরাপদে আছে। বারবার যদি আরকানে রোহিঙ্গা মুসলিমদের গণহত্যা চলে তাহলে এদেশের মুসলমান ঘরে বসে থাকবেনা। ঈমানী ও মানবিক চেতনায় রাজপথে নেমে আসবে। এবং রোহিঙ্গা মুসলিম গণহত্যার সমুচিত জবাব দিবে, ইনশাআল্লাহ। অবিলম্বে রোহিঙ্গা মুসলিম গণহত্যা বন্ধ করুন। যদি রোহিঙ্গা গণহত্যা বন্ধ না হয় তাহলে মিয়ানমার দূতাবাস ঘেরাও করে উচিত জবাব দেওয়া হবে।
বক্তারা বাংলাদেশ সরকারের প্রতি নির্যাতিত রোহিঙ্গা মুসলমানদের বাংলাদেশের নির্দিষ্ট স্থানে আশ্রয় দিতে এবং রোহিঙ্গা মুসলিম গণহত্যা বন্ধ, তাদের নাগরিক অধিকার ফিরিয়ে দিতে মিয়ানমার সরকারের উপর চাপ প্রয়োগ করার উদাত্ত আহবান জানান।
মানববন্ধন কর্মসূচীতে বক্তব্য রাখেন, ইসলামী ঐক্যজোটের কেন্দ্রীয় যুগ্ন-মহাসচিব ও মহানগর সভাপতি মাওলানা মঈনুদ্দীন রুহী, মহানগর সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা জয়নাল কুতুবী, মহানগর যুগ্ম-সেক্রেটারি মাওলানা আ ন ম আহমদ উল্লাহ, মাওলানা মুহাম্মদ ইউনুছ, মাওলানা জুনাঈদ জাওহার, ইয়াসির মুহাম্মদ আরিফ, রফিকুল ইসলাম বোয়ালী, মাহমুদুল করীম কাসেমী, ছাত্র খেলাফত সহ সভাপতি সাইফুল ইসলাম, আতিক মুহাম্মদ, মাওলানা আনিছুল মোস্তফা, মহানগর ছাত্র খেলাফতের সাংগঠনিক সম্পাদক অলি উল্লাহ নোমান, আব্দুল করিম লতিফী, ফোরকান উল্লাহ, এইচ এম সাইফুল, মোরশেদুল হক, কফিল উদ্দিন, আব্দুল মতিন, হাবিবুল্লাহ, মুহাম্মদ এমদাদ প্রমুখ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ