ঢাকা, মঙ্গলবার 05 September 2017, ২১ ভাদ্র ১৪২8, ১৩ জিলহজ্ব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

হোমিওপ্যাথি : প্রশ্ন আছে অনেক

-অধ্যাপক ডা. আহমদ ফারুক
প্র. হাড় ভাঙ্গায় হোমিওপ্যাথিতে কোন জরুরি ওষুধ আছে কি?
-সাইদুর রহমান, চট্টগ্রাম
উ. প্রথমে আর্নিকা মন্টেনা-৩০ শক্তি প্রয়োগ করে পরবর্তীতে সিম্পাইটাম-২০০ শক্তি নিয়মিত প্রয়োগে ভাল ফল পাওয়া যায়। মনে রাখবেন, জরুরি ক্ষেত্রে রোগীকে হাসপাতালে নেয়াই ভাল।
প্র. কত শক্তি দিয়ে চিকিৎসা শুরু করা যায়?
-ডা. মাহমুদ, ঢাকা
উ. নতুন পদ্ধতির ওষুধ এলএম/২, দিয়ে চিকিৎসা শুরু করতে হবে। শততমিক (বাজারে প্রাপ্ত জাম্পিং শক্তি) ৬ অথবা ৩০ শক্তি দিয়ে চিকিৎসা শুরু করা যায়।
প্র. বাচ্চাদের টনসিল প্রদাহের প্রাথমিক ওষুধ কি?
-মোস্তফা, ঢাকা
উ. প্রাথমিকভাবে বেলেডোনা-৩০ শক্তি প্রয়োগ করুন ৭ দিন পর্যন্ত। প্রয়োজনে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।
প্র. শীতে শিশুদের শ্বাসকষ্ট। জরুরি ওষুধ চাই।
-কাওসার, যশোর
উ. ন্যাট্রোম সালফ-৬, ঘন ঘন (প্রয়োজনে এক ঘণ্টা পর পর) প্রয়োগ করা যায়। কিন্তু শিশুকে অতিসত্বর চিকিৎসকের কাছে নেয়াই ভাল।
প্রশ্ন : আপনার লেখা ‘ওষুধ প্রয়োগ বিজ্ঞান’ বইটিতে বর্ণিত নিয়মাবলি অধিকাংশ চিকিৎসক অনুসরণ করে না কেন?
-ডা: শহিদুল হক, বরিশাল।
উ. অজ্ঞতাই মূল কারণ। বইটি সম্পূর্ণ ‘অর্গানন অব মেডিসিন’ অনুসরণে লেখা। ভাল ডাক্তারদের জন্যই বইটি লেখা।
প্রশ্ন : ক্যান্সার আক্রান্ত রোগীদের জন্য হোমিওপ্যাথি চিকিৎসা কতটুকু নিরাপদ?
-মহিউদ্দিন, চট্টগ্রাম।
উত্তর : প্রাথমিক পর্যায়ে হোমিওপ্যাথি চিকিৎসা গ্রহণে রোগীর ভালো হওয়ার সম্ভাবনা ভালো। পরবর্তী পর্যায়ে রোগীকে ভালো রাখার চেষ্টা করা হয়। তুলনামূলকভাবে হোমিপ্যাথি ওষুধ নিরাপদ এবং ভালো। তবে এ ব্যাপারে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকই শুধু চিকিৎসা দিতে পারেন।
প্রশ্ন : আপনি একবার জানিয়েছেন যে, আমেরিকার বিটি কোম্পানির ওষুধ বাংলাদেশে আসে না। অথচ বাজারে ‘বিটি অরিজিনাল’ লেবেলে ওষুধ পাওয়া যায় কিভাবে?
-ফারহান মিয়া, কুষ্টিয়া।
উত্তর : আমি সঠিক তথ্যটিই জানিয়েছি। বাজারে লেবেল আপনারাই পরীক্ষা করে দেখুন।
প্রশ্ন : অনেক মায়ের শিশুকে বুকের দুধ খাওয়ানোর সময় স্তনে ব্যথা হয়। সমাধান চাই।
-তাজরিন নাহার, ঢাকা।
উত্তর : আর্নিকা-৩০ শক্তি, একবার করে তিন দিন সেবন করুন। দুধের বোঁটায় কোনো ফাঁটা আছে কিনা পরীক্ষা করুন। প্রয়োজনে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।
প্র. গর্ভাবস্থায় মাথা ব্যথা। প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাপনা জানতে চাই।
-ডা. মেহেরুন্নেছা, ঢাকা।
উ: গর্ভাবস্থায় মাথা ব্যথা একটি গুরুতর সমস্যা। এজন্য সবার আগে জানতে হবে যে, মাথায় যন্ত্রণা কেন হবে? বেশ কিছু হরমোনাল পরিবর্তনের কারণেও গর্ভাবস্থায় মাথার যন্ত্রণা হয়। শারীরিক বা মানসিক চাপও মাথা যন্ত্রণার কারণ হতে পারে। তাই এ সময় সব ধরনের মানসিক উত্তেজনা ও চাপ এড়িয়ে চলতে হবে। গর্ভাবস্থায় বিশ্রামের অভাবেও মাথায় যন্ত্রণা হতে পারে। তাই প্রয়োজনীয় বিশ্রাম নিশ্চিত করতে হবে। উচ্চ রক্তচাপ অথবা নিম্ন রক্তচাপ, উভয়ের ব্যাপারে সতর্ক থাকতে হবে। গর্ভাবস্থায় মাথা ব্যথার জন্য বেশ কিছু ঔষধ রয়েছে। যেমন-সিমিসিফিউগা, বেলেডোনা, ব্রায়োনিয়া, কেমোমিলা, জেলসেমিয়াম, ইগনেশিয়া, গ্লোনইন, নাক্সভম, পালস, সিপিয়া, স্পাইজেলিয়া, ইত্যাদি। রোগীর বিস্তারিত চিত্র বিবেচনা করে ঔষধ নির্বাচন করতে হবে এবং কি কারণে মাথা ব্যথা হচ্ছে তা জেনে নিয়ে প্রয়োজনীয় পরামর্শ দিতে হবে। গুরুতর অবস্থা বিবেচনা করে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের কাছে রোগীকে পাঠাতে হবে।
প্র: ঔষধের প্রতিক্রিয়ার উপসর্গ সম্পর্কে জানতে চাই।
-ডা. আমিনুর রহমান, ঢাকা।
উ: ঔষধের প্রতিক্রিয়া বলতে যদি হোমিওপ্যাথি ঔষধের কথা বুঝিয়ে থাকেন, তাহলে জেনে রাখুন, ভুল নির্বাচিত ঔষধে নতুন রোগ লক্ষণ সৃষ্টি করবে। অর্থাৎ ঔষধ প্রয়োগের পর যদি রোগীর মধ্যে নতুন কষ্টদায়ক লক্ষণ দেখা দেয়, যা তার পূর্বরোগের সাথে সম্পৃক্ত নয়, তাহলে বুঝতে হবে ঔষধটি সঠিকভাবে নির্বাচিত হয়নি। (অর্গা, ৬ষ্ঠ, ২৪৯)। এ অবস্থায় চিকিৎসক ঔষধ বন্ধ রেখে অপেক্ষা করবেন। আর যদি বৃদ্ধিটা গুরুতর হয় তাহলে ক্রিয়ানাশক প্রয়োগ করে বৃদ্ধি থামাতে হবে। অবস্থার পরিবর্তন হলে নতুন নির্বাচিত ঔষধ প্রয়োগ করুন।
এখানে আরেকটি জিনিস মনে রাখা দরকার, তা হল অ্যালোপ্যাথিক ঔষধের প্রতিক্রিয়ার লক্ষণগুলো। সাধারণভাবে সারা গায়ে চুলকানি হওয়া, সারা গায়ে দ্রুত ফোস্কা হওয়া, শ্বাসকষ্ট হওয়া এবং হাত পা ঠান্ডা হয়ে যাবার উপক্রম হওয়া। এসব ক্ষেত্রে হোমিওপ্যাথিক ঔষধ রাসটক্স প্রয়োগ করুন।
প্র: নতুন পদ্ধতির ঔষধ ক্রনিক রোগে প্রতিদিন প্রয়োগ করা যায় কি?
-ডা. এস. আলম চৌধুরী, চট্টগ্রাম।
উ: ক্রনিক রোগে নতুন পদ্ধতির ঔষধ প্রতিদিন বা একদিন পর পর সেবন করা যায়। প্রয়োজনে দিনে কয়েকবার সেবন করা যায় (অর্গা, ৬ষ্ঠ, ২৪৮, ২৮২)।
প্র: আপনি ডিএইচএমএস চিকিৎসকদের ক্যান্সার রোগীর চিকিৎসা করতে নিষেধ করেন কেন?
-ডা: শিকদার মাহবুব, ঢাকা।
উ: ডিএইচএমএস চিকিৎসকদের প্রতি আমার শ্রদ্ধার কোন ঘাটতি নেই। কিন্তু চিকিৎসা বিজ্ঞান শিক্ষায় ধারাবাহিক উচ্চতর প্রশিক্ষণ গ্রহণ ছাড়া বিশেষায়িত রোগের চিকিৎসা না দেয়াই ভাল। একজন ডিপ্লোমা চিকিৎসক যথাযথ প্রশিক্ষণের মাধ্যমে ক্যান্সার চিকিৎসা করতে কোন বাধা নেই। কিন্তু পেশাগত মান ও মর্যাদা রক্ষায় যার যার যোগ্যতা সম্পর্কে সচেতন থাকা ভাল। আমরা ক্যান্সার চিকিৎসার নামে বাণিজ্য করার বিরোধী। চিকিৎসার মত মহান পেশায় সততার সাথে চিকিৎসা পরিচালনা সবার নৈতিক দায়িত্ব।
প্র: আমি একজন রোগী। সম্প্রতি একজন হোমিওপ্যাথি ডাক্তার আমার ‘‘সিরাম ক্রিয়েটিনিন’’ কমানোর জন্য “হেলিবোরাস’’ নামক একটি ঔষধের মাদার টিংচার দিয়েছেন। এটি খেয়ে আমার ক্রিয়েটিনিন আরো বেড়ে গেছে। এখন আমি কি করব?
-এস. এ. বাদল, ঢাকা।
উ. প্রথমত আপনি ঔষধটি বন্ধ করে দিন। আপনার পাশে কোন বিএইচএমএস ডাক্তার থাকলে তার সাথে পরামর্শ করুন। এসব ক্ষেত্রে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ গ্রহণ বাঞ্ছনীয়।
প্র: আমার বাড়ি সিরাজগঞ্জ। আমার এলাকার বেশ কয়েকজন ক্যান্সার রোগী আপনার চিকিৎসায় ভাল আছে। আমি টাকার অভাবে আপনার কাছে আসতে পারছি না। আপনি আমাকে কিভাবে সাহায্য করবেন?
-মিরাস মিয়া, সিরাজগঞ্জ।
উ: আপনি আপনার এলাকার চেয়ারম্যান-এর কাছ থেকে একটি প্রত্যয়নপত্র নিয়ে আমাদের চিকিৎসা কেন্দ্রে আসুন। আমরা আপনাকে বিনামূল্যে চিকিৎসা সুবিধা প্রদান করব।
প্র: আপনি ক্যান্সার রোগীদের এক সময় দুধ খেতে নিষেধ করতেন। ইদানীং আবার দুধ খেতে বলছেন। কেন? -ডা: মোহাম্মদ উল্লাহ ঢাকা।
উ: চিকিৎসা বিজ্ঞানের দৃষ্টিতে ক্যান্সার রোগীদের দুধ খাওয়াকে নিরুৎসাহিত করা সংক্রান্ত অনেক ব্যাখ্যা রয়েছে। তাই আমি ক্যান্সার রোগীদের দুধ খেতে নিষেধ করতাম। কিন্তু যখন কুরআনে দুধ পানের উপকারিতার কথা জানতে পারলাম তখন থেকে ক্যান্সার রোগীদের দুধ পানে উৎসাহিত করি (দেখুন-সূরা নাহল-৬৬ আয়াত, আল মু’মিনুন-২৯ আয়াত)।
প্র: বারে বারে গর্ভপাত। হোমিওপ্যাথি চিকিৎসা আছে কি?
-ডা: আমেনা খাতুন, ঢাকা।
উ: যখন তিন বা ততোধিক পর পর গর্ভ নষ্ট হয়, তখন তাকে বারে বারে গর্ভপাত বা রিকারেন্ট অ্যাবরশন বলা হয়। এর জন্য বিভিন্ন কারণ দায়ী। যেমন-প্রথম তিন মাসে যে গর্ভপাত হয়, তা ভ্রƒণের ত্রুটিপূর্ণ গঠনের জন্য, কিংবা হরমোনের অভাবে অথবা অন্য কোন অজানা কারণে হতে পারে। এছাড়া গর্ভাবস্থার চার মাস থেকে সাত মাসের মধ্যে যে সব গর্ভপাত ঘটে তার কারণগুলোর মধ্যে রয়েছে,
(ক) সারভাইকাল ইনকমপিটেন্স (২০ শতাংশ),
(খ) জরায়ুর জন্মগত গঠনগত ত্রুটি, (গ) জরায়ুর টিউমার, (ঘ) অতিরিক্ত ডায়াবেটিস, (ঙ) দীর্ঘস্থায়ী কিডনীর প্রদাহ ও উচ্চ রক্তচাপ, (চ) সিফিলিস, টক্সোপ্লাজম ইত্যাদি সংক্রমণ।
তাই যথাযথ কারণ নির্ণয় করে চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে হবে। এসব ক্ষেত্রে অনেক ভাল ভাল হোমিওপ্যাথিক ঔষধ রয়েছে, যা যথাযথভাবে প্রয়োগ করতে পারলে অধিকাংশ ক্ষেত্রে উপকার পাওয়া যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তবে মনে রাখতে হবে, জন্মগত ত্রুটির ক্ষেত্রে চিকিৎসা অনিশ্চিত।
প্র. সাইনুসাইটিসের প্রতিকার এবং কার্যকর হোমিওপ্যাথি ঔষধ জানতে চাই।
-ডা. শাহাদাৎ মন্ডল, কুমিল্লা।
উ. সাইনাসের ইনফেকশনের কারণে সাইনুসাইটিস হয়। লক্ষণে থাকবে মাথা ব্যথা, মৃদু থেকে তীব্র, সাধারণভাবে নাকের দু’পাশে, চোখের ভ্রুর উপরে এবং চোখের ভিতরে। এ অবস্থায় জ্বর জ্বর ভাব, নাক দিয়ে হালকা বা ঘন পুঁজের মত পড়া এবং মাথা নাড়লে বা ঝাঁকালে মাথা ব্যথা হতে পারে। সাইনুসাইটিস ভাল হয়ে গেলে আর মাথা ব্যথা থাকে না। সাইনুসাইটিসের জন্য ভাল হোমিওপ্যাথি ঔষধ রয়েছে। যেমন-আর্সেনিক অ্যাল্ব, ব্রায়োনিয়া, কেলক্যারিয়া কার্ব, কেলক্যারিয়া সালফ, ডালকামারা, হিপার সালফ, কেলিবাই, কেলি আয়োড, মার্কসল, নাক্সভম, থুজা ইত্যাদি।
প্র. সব সময় হাঁচি থাকে। ভাল কয়েকটি ঔষধ চাই।
-ডা. চন্দন কুমার, চট্টগ্রাম।
উ. হাঁচির সাথে অ্যালার্জির সম্পর্ক আছে। আমার ব্যবহৃত কয়েকটি ঔষধ হচ্ছে, কেলিকার্ব, ন্যাট্রাম সালফ এবং রাস টক্স।
প্র. রোগীর MT টেস্ট পজিটিভ। যক্ষ্মা বলে নিশ্চিত করেছেন চিকিৎসকরা। হোমিওপ্যাথিতে এর কোন চিকিৎসা আছে কি?
-ডা. আলতাফ ঢালী, ঢাকা।
উ. যক্ষ্মা রোগ নির্ণয়ে MT পরীক্ষা করা হয়। MT (মানটো টেস্ট, Mantoux Test) আসলে টি.বি জীবাণুর প্রোটিনের বিরুদ্ধে অ্যালার্জি টেস্ট। মেরে ফেলা টি.বি. জীবাণুর অত্যন্ত অল্প ডোজ বিশোধিত প্রোটিন চামড়ার নিচে ঢুকিয়ে ৭২ ঘণ্টা অপেক্ষা করতে হয়। রোগীর টি.বি., অ্যালার্জি না থাকলে কোন শক্ত চাকা হবে না। কিন্তু ৭২ ঘন্টার মধ্যে ৯ থেকে ১০ মি.মি.-এর উপরে বড় কোনো গোল শক্ত চাকা হলে বলা যায় এই রোগীর টি.বি. প্রোটিনে অ্যালার্জি আছে। তবে এ পরীক্ষার দ্বারা রোগীর শরীরের ভিতর যক্ষ্মা রোগের উপস্থিতির একটি পরোক্ষ প্রমাণ। কোন নিশ্চিত প্রমাণ নয়। তাই এম.টি. পজিটিভ হলে টি.বি. রোগের চিকিৎসা করা ঠিক নয়। আরও প্রয়োজনীয় পরীক্ষা-নিরীক্ষার দ্বারা নিশ্চিত হয়ে টি.বি. রোগের চিকিৎসা করতে হবে। হোমিওপ্যাথিতেও এ রোগের ভাল চিকিৎসা সম্ভব।
প্র. আমি একজন ব্রংকাইটিসের রোগী। এ রোগ কি কারণে হয়? হোমিওপ্যাথিতে এর চিকিৎসা হয় কি?
-আবদুস সবুর, বরিশাল।
উ. ব্রংকাইটিসের প্রধান কারণ ধূমপান। তাছাড়া স্যাঁতস্যাঁতে জায়গায়, শীতকালে এবং শীতল আবহাওয়ায় ব্রংকাইটিস হয়। অত্যধিক ভিড়, ক্লান্তি এবং শীতের কাঁপুনিও ব্রংকাইটিসের কারণ। এ রোগের প্রাথমিক লক্ষণ হলো মাথার ঠান্ডা, অনবরত নাক ঝরা, কাঁপুনি, জ্বর, মাংসপেশীতে বেদনা এবং পিঠের ব্যথা। এরপরই আরম্ভ হয় অনবরত কাশি, প্রথমে শুকনো, তারপর শ্লেষ্মাযুক্ত। ধোঁয়ায় বাড়ে, রাতেও বাড়ে। চিকিৎসার প্রাথমিক শর্ত, আপনাকে ধূমপান ছেড়ে দিতে হবে। তারপর একজন উচ্চশিক্ষিত হোমিওপ্যাথি চিকিৎসকের ব্যবস্থাপনায় চিকিৎসা নিলে আপনি ভাল ফল পাবেন। মনে রাখবেন, হোমিওপ্যাথি ঔষধ ব্রংকাইটিসের জন্য বেশ ভাল কাজ করে।
প্র. ফুসফুসের প্লুরিসি (Pleurisy)। আপনার ব্যবহৃত কয়েকটি ঔষধের নাম দিন।
-ডা. অনুপম বড়ুয়া, ঢাকা।
উ. অ্যাকোনাইট, ব্রায়োনিয়া, কেলি কার্ব, সেনেগা এবং সালফার ভাল ঔষধ।
প্র: আমি সদ্য ডিএইচএমএস পাস করেছি। আমার এক রোগীর দু’হাতের তালুতে লালচে ভাব। বেশকিছু ঔষধ প্রয়োগ করার পরেও কোন ফল পাচ্ছি না। পরামর্শ চাই।
-ডা: আবদুল ওয়াদুদ, ঢাকা
উ: রোগীর বিস্তারিত ইতিহাস প্রয়োজন। তবে পুরনো লিভার রোগে দু’হাতের তালু টুকটুকে লাল হতে পারে (চধবসধৎ ঋষঁংয)। তাই লিভার সম্পর্কে কিছু জরুরি রক্ত পরীক্ষা প্রয়োজন। যেমন- বিলিরুবিন, SGPT, SGOT, PT, Alkaline Phosphatase ইত্যাদি। এছাড়া আলট্রাসনোগ্রাম, A, B, C, E, ভাইরাস পরীক্ষা, আলফা ফিটোপ্রোটিন ইত্যাদি থেকে প্রয়োজনীয় পরীক্ষা দ্বারা লিভার রোগ সম্পর্কে নিশ্চিত হতে হবে। রোগীর ইতিহাস এবং ল্যাব পরীক্ষার ফলাফল পর্যালোচনা করে চিকিৎসা দিলে রোগী উপকার পাবে।
প্র: গর্ভাবস্থায় রোগীর লিভারে সমস্যা দেখা দিলে কোন ঔষধ প্রয়োগ করা যাবে কি?
-ডা : মোহসেনা খানম, বরিশাল
উ: হ্যাঁ, গর্ভাবস্থায় লিভারে সমস্যা দেখা দিলে হোমিওপ্যাথি ঔষধ প্রয়োগ করা যাবে। সাধারণ লিভারে সমস্যায় ‘চেলেডোনিয়াম’ নিরাপদ ঔষধ।
প্র: ন্যাশনাল হোমিওপ্যাথিক ক্যান্সার কংগ্রেস-এর জন্য বিভিন্ন জেলা থেকে কিভাবে রেজিস্ট্রেশন করা যাবে?
-ডা : আমজাদ হোসেন, যশোর।
উ: ন্যাশনাল হোমিওপ্যাথিক ক্যান্সার কংগ্রেস-২০১৯, তে অংশগ্রহণ করতে ইচ্ছুক বিভিন্ন জেলার চিকিৎসকরা মোবাইল নম্বর : ০১৭১২৮১৭১৪৪ তে নাম ঠিকানা পাঠিয়ে রেজিস্ট্রেশন ফরম সংগ্রহ করতে পারেন।
প্র: আপনি টিউমার বোর্ড-এর মাধ্যমে ক্যান্সার রোগীর চিকিৎসার কথা বলেন, এ ব্যাপারে বিস্তারিত জানতে চাই।
-ডা : মোবারক হোসেন, খুলনা।
উ: ক্যান্সার রোগীর জন্য চিকিৎসা প্রোটোকল হচ্ছে, টিউমার বোর্ড-এর মাধ্যমে চিকিৎসা দেয়া। বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথিক ক্যান্সার সোসাইটি টিউমার বোর্ড-এর মাধ্যমে ক্যান্সার রোগীদের চিকিৎসা দিয়ে থাকে। আমাদের বোর্ড সদস্যদের মধ্যে রয়েছেন সিনিয়র বিএইচএমএস চিকিৎসক ডা. সফিউদ্দিন সেলিম এবং ডা. এম এম আরিফ খান। বোর্ড সমন্বয়কারীর দায়িত্ব পালন করছি আমি নিজে। এছাড়া আন্তর্জাতিক হোমিওপ্যাথি ক্যান্সার বোর্ডের সাথেও আমাদের সম্পর্ক রয়েছে।
প্র: ব্রেস্ট ক্যান্সার চিকিৎসায় হোমিওপ্যাথির সফলতা জানতে চাই।
-ডা: আমিনা হক, ঢাকা
উ: ব্রেস্ট ক্যান্সার প্রাথমিক পর্যায় ধরা পড়লে এবং হোমিওপ্যাথি চিকিৎসার আওতায় থাকলে শতভাগ আরোগ্যের সম্ভাবনা রয়েছে। এজন্য এ বিষয়ে প্রশিক্ষিত বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের তত্ত্বাবধানে চিকিৎসা গ্রহণ বাঞ্ছনীয়।
প্র: আমি আপনার ক্যান্সার সোসাইটির একজন রোগী। পাকস্থলীর ক্যান্সার থেকে আমি ভাল আছি। আমি আপনাদের কাছে একটি হোমিওপ্যাথিক ক্যান্সার হাসপাতাল প্রতিষ্ঠার প্রস্তাব করছি। এ ব্যাপারে আপনার মতামত জানতে চাই।
-এস হোসেন, গাজীপুর।
উ: আপনার প্রস্তাবের জন্য ধন্যবাদ। আপনাদের মত উপকৃত রোগীরা সোসাইটির পাশে থাকলে আমরা একটি আধুনিক ক্যান্সার হাসপাতাল প্রতিষ্ঠা করতে পারব, ইনশাল্লাহ। এজন্য সোসাইটি একটি হাসপাতাল প্রকল্প চালু করেছেন। এবং এর উন্নয়ন পরিকল্পনা নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে। আপনাদের সবাইর আন্তরিক সহযোগিতা কামনা করছি।
প্র: আমি খাবার খেলেই পেটে ব্যথা হয়। পরামর্শ চাই।
-জহিরুল, গাজিপুর।
উ: সম্ভবত আপনার গ্যাসট্রিক আলসার হয়েছে। আপনি চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। প্রাথমিকভাবে ‘নাক্স ভম-৩০ শক্তি” ব্যবহার করুন।
প্র: আগামী বছর বিশ্ব ক্যান্সার দিবসে আপনাদের কর্মসূচি জানতে চাই।
-ডা. আরাফাত, ঢাকা।
উ: প্রতি বছরই বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথিক ক্যান্সার সোসাইটি বিশ্ব ক্যান্সার দিবস পালন করে। আগামী বছরও ক্যান্সার সারভাইভরদের (বেঁচে থাকা) নিয়ে একটি অনুষ্ঠান কর্মসূচি রয়েছে। প্রয়োজনীয় তথ্যের জন্য সংযুক্ত থাকুন- ফেসবুকে (Facebook.com/Bangladesh Homeopathic cancr society)
প্র: চর্বি হজম হয় না। ওষুধ চাই। -শাহীন, কুমিল্লা।
উ: প্রাথমিকভাবে ‘পালসেটিলা-৩০ শক্তি’ সেবন করুন।
উত্তরদাতা নির্বাহী পরিচালক, ইন্সটিটিউট অব হোমিওপ্যাথিক মেডিসিন এন্ড রিসার্চ, ঢাকা।
প্রশ্ন পাঠাতে : ০১৭৪৭১২৯৫৪৭, অথবা Facebook.com/drgmfarouq

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ