ঢাকা, বুধবার 06 September 2017, ২২ ভাদ্র ১৪২8, ১৪ জিলহজ্ব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

যোগাযোগ মন্ত্রীর সংস্কার নির্দেশ মানছেন না চৌগাছা-ঝিকরগাছা সড়কটির বেহালদশা

এম এ রহিম চৌগাছা (যশোর) : যশোরের চৌগাছা-ঝিকরগাছা সড়কটির বেহালদশায় চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। মাননীয় যোগাযোগ মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের যশোরে একটি মিটিংয়ে বিভিন্ন টিভি মিডিয়াতে ২৪ ঘন্টার মধ্যে যশোর জেলাসহ দেশের সকল সড়ক সংস্কার কাজ সম্পর্ণ করতে সংশ্লিষ্টদের কঠোর নির্দেশ দিলেও তার কোন প্রভাব এ সড়কটিতে পড়ছেনা। ফলে দক্ষিন বঙ্গের অন্যতম শস্য ভান্ডার খ্যাত জনপদ এ সড়কটি দেখলে মনে হয় যেন সড়কদুটির মহামারি হয়েছে। সড়কের মাঝে মাঝে মিনি পুকুর সৃষ্টি হয়েছে। অল্প বৃষ্টিতেই কোমর পানি বেধে যায় গর্তগুলিতে।

 উপজেলার এ সড়কটি চলাচলের অনুপযোগী হওয়ায় ভোগান্তির শিকার হচ্ছে স্কুল, কলেজ, মাদরাসার কোমলমতি শতশত শিক্ষার্থী রোগী, গর্ভবতীমা, শিশু ও জনসাধারণ। আওয়ামীলীগ সরকারের বিগত প্রায় ৬ বছরে সড়কদুটির কোন প্রকার সংস্কার কাজ না হওয়ায় সড়কদুটির পিচ-পাথর ও ইটের খোয়া উঠে গিয়ে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। 

চৌগাছা-ঝিকরগাছা সড়কটি মাত্র ১৯ কি. মি. যে সড়ক ব্যবহার করে প্রতিদিন রাজধানী ঢাকাসহ দেশের গুরুত্বপূর্ণ সব ছোট বড় শহরে যোগাযোগ রক্ষার জন্য প্রায় ২/৩শ’ ছোট-বড় যানবাহন চলাচল করে থাকে। পিচ-পাথর ও ইটের খোয়া উঠে গিয়ে সড়কদুটি জুড়েই বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। সড়কের বুকে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হওয়ায় চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। ইতিমধ্যে ভারী যানবাহন চলাচল বন্ধের উপক্রম দেখা দিয়েছে।

বিশেষ করে চৌগাছা থেকে চাদপুর মোড়, পিতাম্বরপুর থেকে জাহাঙ্গীরপুর মোড় পর্যন্ত সড়কটি একেবারেই নষ্ট হয়ে গেছে। এ সড়কটি চৌগাছা-ঝিকরগাছা এদুটি উপজেলার হাজার-হাজার মানুষের চলাচলের একমাত্র সড়ক তাই যানবাহনের চাপ খুব বেশি। ভারিযান বাহন বেশি চলার কারণে ছোট গর্তগুলো বড় হয়ে গেছে। যে কারণে সকল যানবাহন যান্ত্রিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। অপরদিকে হরহামেশাই ঘটছে দুর্ঘটনা। বাড়ছে মৃত্যু আর পঙ্গুত্বের সংখ্যা। সড়কটি চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়ায় ব্যবসায়ীরা গরু-ছাগল, কাঁচামালসহ অন্যান্য পণ্য ক্রয়-বিক্রয় করতে আসতে অনীহা প্রকাশ করছেন। ফলে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে এলাকার কৃষক, ব্যবসায়ী ও পেশাজীবী মানুষ। এমন বেহাল দশা যে, যানবাহনে উঠলে জীবন নিয়ে যাত্রীরা থাকে রিতিমত শঙ্কিত। এ ছাড়া এলাকার কোন মুমূর্ষু রোগী, গর্ভবতী মা, শিশুকে জরুরিভাবে চৌগাছা-যশোর বা দেশের অন্য কোথাও উন্নত চিকিৎসার জন্য নেয়া দারুণ ভাবে ভোগান্তির শিকার হতে হচ্ছে। ফলে অকালে জীবন দিতে হয় প্রসূতি মা-শিশু ও সাধারণ রোগীদের। ফলে অনেকে অকালে মা, বাবা, সন্তানসহ আপন স্বজনকে হারাচ্ছেন। এ সড়কের দুধারে অবস্থিত স্থাপনার মধ্যে কুঠিপাড়া কমিউনিটি ক্লিনিক, কুঠিপাড়া মডেল সরকারি প্রাথমি বিদ্যালয়, চাঁদপুর সরকারি প্রাথমি বিদ্যালয়, হাজী মর্তজ আলী মাধ্যমিক বিদ্যালয়, এসএম হাবিবুর রহমান পৌর কলেজ গরীবপুর সরকারি প্রাথমি বিদ্যালয়, গরীবপুর আদর্শ মাধ্যমিক বিদ্যালয়, জাহাঙ্গীরপুর সরকারি প্রাথমি বিদ্যালয়, মুক্তারপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়, পাশাপোল মডেল কলেজ, পাশাপোল কমিউনিটি ক্লিনিক, খলশি মাধ্যমিক বিদ্যালয় উল্লেখযোগ্য। এছাড়াও সড়কদুটির দুধারে গড়ে উঠেছে ছোট-বড় বেশ কয়টি বাজার, মিল-চাতাল, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও চিকিৎসা কেন্দ্র। সড়কদুটির ব্যাপারে আলমসাধূ চালক আব্দুল হাকিম জানান রাস্তায় আসলে মনে হয় আর বুঝি বাড়ীতে ফিরা হবে না। গর্তে পড়ে চেইন ছিড়া, রিন ভাঙ্গা, স্পক নষ্টসহ নানা সমস্যা ঘটে। রাস্তায় গাড়ী নষ্ট হয়ে পড়ে থাকে অনেকের। পিকাপ-ড্রাইভার আমিনুর রহমান জানান সড়কদুটির বেহালদশা হওয়ায় লোড গাড়ী নিয়ে যাওয়া অত্যান্ত ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে দাড়ায়। হরহামেশাই গর্তে পড়ে গাড়ীর বিভিন্ন যন্ত্রাংশ নষ্ট হচ্ছে। মা শিশু ও মুমূর্ষু রোগীর কথা চিন্তা করে এলাকাবাসী সড়কদুটি পুনঃসংস্কারের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের আশুস্থক্ষেপ কামনা করেছেন। এ ব্যাপারে চৌগাছা বাস-মিনিবাস সমিতির সাধারণ সম্পাদক হাফিজুর রহমান জানান আমরা এসড়কটির বেহালদশার জন্য চৌগাছা-ঝিকরগাছা রুটে কোন বাস দিতে রিতিমত হিমশিম খাচ্ছি। উপজেলা ইঞ্জিনিয়ান আব্দুল হামিদ জানান সড়কটি এলজিডির আরআই এমটি প্রকল্পেরে আওয়তায় সড়কটি অতিদ্রুত সংস্কার কাজ শুরু হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ