ঢাকা, বুধবার 06 September 2017, ২২ ভাদ্র ১৪২8, ১৪ জিলহজ্ব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

ঢাবি ভিসি নিয়োগে আইনের ব্যত্যয় হয়নি -শিক্ষামন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) প্রো-ভিসি অধ্যাপক মো. আখতারুজ্জামানকে সাময়িকভাবে ভিসির দায়িত্ব দেয়ার ক্ষেত্রে আইনরে কোনো ব্যত্যয় হয়নি বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ।
ভিসি নিয়োগের একদিন পর গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, রাষ্ট্রপতির ক্ষমতাবলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসিকে সাময়িকভাবে নিয়োগ দেয়া হয়েছে। রাষ্ট্রপতি এই ক্ষমতা রাখেন। তাতে আইনের কোনো ব্যত্যয় হয়নি। তবে এ নিয়ে কিছু বিতর্ক হতে পারে।
গত সোমবার বিকেলে রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে ঢাবি ভিসি নিয়োগ-সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়। প্রজ্ঞাপনে সই করেন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাখা-১) উপসচিব হাবিবুর রহমান। এতে বলা হয়, ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত উপাচার্য অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিকের মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক ও প্রশাসনিক কাজ সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার স্বার্থে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আদেশ ১৯৭৩-এর ১১(২) ধারা অনুযায়ী মহামান্য রাষ্ট্রপতি ও চ্যান্সেলর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান, ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগকে নিম্নে বর্ণিত শর্তে সম্পূর্ণ সাময়িকভাবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের দায়িত্ব প্রদান করেছেন।’
শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ভিসির সাময়িক নিয়োগ ঠিক আছে। সেটা আইন অনুযায়ী হয়েছে। প্যানেলের বাইরে রাষ্ট্রপতি চাইলে সাময়িকভাবে কাউকে নিয়োগ দিতে পারেন। যারা বলছেন, এতে আইনের ব্যত্যয় হয়েছে, তারা ঠিক বলছেন না। অপর প্রশ্নের জবাবে নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেন, এটা নিয়ে বিতর্ক থাকতেই পারে। তবে রাষ্ট্রপতি এ ক্ষমতা রাখেন।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিককে ২০০৯ সালের ১৫ জানুয়ারি প্রথম দফায় ভিসি হিসেবে নিয়োগ দেন বিশ্ববিদ্যালয়ের তৎকালীন চ্যাঞ্চেলর ও রাষ্ট্রপতি ড. ইয়াজউদ্দিন আহম্মেদ। ওই মেয়াদ শেষে ২০১৩ সালের ২৫ আগস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের চ্যাঞ্চেলর ও রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ দ্বিতীয় মেয়াদে আরেফিন সিদ্দিককে চার বছরের জন্য ভিসি হিসেবে নিয়োগ দেন। ওই নিয়োগ অনুযায়ী তার দায়িত্ব শেষ হয় গত ২৪ আগস্ট।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ