ঢাকা, বৃহস্পতিবার 07 September 2017, ২৩ ভাদ্র ১৪২8, ১৫ জিলহজ্ব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

নড়িয়ার ওয়াপদা ঘাটে লঞ্চে ওঠার সময় নদীতে পড়ে যাত্রী নিখোঁজ!

 

শরীয়তপুর সংবাদদাতা : শরীয়তপুরের নড়িয়ায় ওয়াপদা লঞ্চ ঘাটে মিরাজ লঞ্চে ওঠার সময় এক যাত্রী পা পিচলে নদীতে পড়ে নিখোঁজ হয়েছে। বুধবার সকালে শরীয়তপুরের নড়িয়ার ওয়াপদা লঞ্চ ঘাট থেকে মিরাজ নামের লঞ্চে ওঠার সময় এ দুর্ঘটনা ঘটে। 

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী নিখোঁজ ব্যক্তির ছেলে অয়ন ও স্থানীয় সুত্রে জানা গেছে, আজ সকালে নড়িয়া থানার ভূমখাড়ার ইউনিয়নের দক্ষিন চাকধ এলাকার মোঃ আসলাম ছৈয়াল (৪৩) ও তার ছেলে অয়ন ঢাকায় যাওয়ার জন্য ওয়াপদা লঞ্চ ঘাটে গিয়ে ছেলে অয়ন লঞ্চে উঠে যায়। এ সময় আসলাম ছৈয়াল গাড়ীর ভারা মিটিয়ে লঞ্চে ওঠার আগেই লঞ্চটি ছেড়ে দেয়। আসলাম তারাহুরেড়া করে লঞ্চে ওঠার সময় পা পিচলে নদীতে পড়ে নিখোজ হয়। অভিযোগ রয়েছে লঞ্চের স্টাফ ও ঘাট কর্তৃপক্ষের কেউ তাকে উদ্ধারের চেষ্টা করেনি। এ সংবাদ লেখা পর্যন্ত তাকে খুজে পাওয়া যায়নি। আসলাম ছৈয়াল ঢাকায় একটি বেসরকারী ফার্মে চাকরি করে।

প্রত্যক্ষদর্শী নিখোঁজ ব্যক্তির ছেলে অয়ন বলেন আমি এবং আমার বাবা ঢাকায় যাচ্ছিলাম। ওয়াপদা লঞ্চ ঘাট দিয়ে মিরাজ লঞ্চে ওঠার সময় পা পিচলিয়ে আমার বাবা পদ্মা নদীতে পড়ে যায়। তখন আমি চিৎকার দিয়ে কান্না-কাটি করি। আমার বাবাকে বাচনোর জন্য বললেও লঞ্চের স্টাফ ও ঘাট কর্তৃপক্ষের কেউ বাবাকে উঠানোর কোন ব্যবস্থা নেয়নি। তারা উল্টো আমাকে বলে তোকে সামনের সাধুর বাজার ঘাটে নামিয়ে দিয়ে যাচ্ছি। তার পরও তারা লঞ্চ থামায়নি। তিনি 

কেদারপুর ইউপি’র সাবেক চেয়ারম্যান ইমাম হোসেন দেওয়ান বলেন, লোকটি পানিতে পড়ে গিয়ে বাচার জন্য দুহাত তুলে বাচাও বাচও বলে চিৎকার করে করতেছিল। কিন্তু দুঃখের বিষয় হলো লোকটিকে বাঁচানোর জন্য কেউ এগিয়ে আসেনি। লঞ্চ স্টাফ চেষ্টা করলে লোকটিকে বয়া ফেলে বা বয়া নিয়ে ঝাপিয়ে পড়ে তাকে বাঁচাতে পারতো। পড়ে আমরা ও স্থানীয় লোকজন কলাগাছ ও শুকনা বাঁশ দিয়ে তাকে উঠানো চেষ্টা করি। কিন্তু ততক্ষনে লোকটি পানিতে তলিয়ে যায়। লঞ্চ ও ঘাট কর্তৃপক্ষের অবহেলায় কারনে একটি লোক নদীতে পড়ে নিখোজ হয়ে গেল। আমরা এর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি ও বিচার চাই। এব্যাপারে ঘাট ইজারাদার মোঃ মোতাহার হোসেন শিকারী বলেন, লোকটি লঞ্চ থেকে যখন নদীতে পড়ে গেছে আমি তখন বাড়ীতে ছিলাম। 

নড়িয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ আসলাম উদ্দিন বলেন, ওয়াপদা লঞ্চ ঘাটে আসলাম ছৈয়াল নামের এক যাত্রী লঞ্চে ওঠার সময় পা পিচলিয়ে নদীতে পড়ে যায়। লোকটি এখনও নিখোঁজ রয়েছে। আমরা উদ্ধারের চেস্টা করছি। ঐ পরিবারের পক্ষ থেকে কোন অভিযোগ দিলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ