ঢাকা, বৃহস্পতিবার 07 September 2017, ২৩ ভাদ্র ১৪২8, ১৫ জিলহজ্ব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

ঢাবি ভিসির দায়িত্ব নিলেন  অধ্যাপক আখতারুজ্জামান

স্টাফ রিপোর্টার : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি হিসেবে দায়িত্বভার গ্রহণ করেছেন অধ্যাপক মো. আখতারুজ্জামান। গতকাল বুধবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসির কার্যালয়ে যোগদান পত্রে স্বাক্ষর করে এ দায়িত্বভার গ্রহণ করেন তিনি। এ দিকে ১১ প্রভোস্ট ও প্রক্টোরিয়াল টিম পদত্যাগপত্র দেয়া নিয়ে ধু¤্রজাল তৈরি হয়েছে। 

ভিসি হিসেবে দায়িত্ব নেওয়ার আগে সকাল ৯টার দিকে প্রো-ভিসি (প্রশাসন) কক্ষে বসেন গত বছর থেকে এই পদে দায়িত্ব পালন করে আসা ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের এই শিক্ষক। পরে সোয়া ৯টার দিকে ভিসি কার্যালয়ে গিয়ে ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার মো. এনামউজ্জামানের কাছ থেকে যোগদানপত্র নিয়ে তাতে স্বাক্ষর করেন অধ্যাপক আখতারুজ্জামান।

দায়িত্ব নেওয়ার পর সকাল ১০টার দিকে ভিসি কার্যালয়ের পাশে পুরাতন সিনেট ভবনে (সম্মেলন কক্ষ) উপস্থিত বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের সঙ্গে দেখা করেন তিনি। সেখানে সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আহ্বান জানিয়ে নতুন ভিসি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের রীতি অনুযায়ী, বিদায়ী ও নতুন নিয়োগ পাওয়া ভিসির উপস্থিতিতে দায়িত্ব হস্তান্তর হয়ে থাকে। বিদায়ী ভিসির সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছিল। কিন্তু সময় সমন্বয় হয়নি। তা ছাড়া নিয়োগের প্রজ্ঞাপনে অবিলম্বে আদেশ কার্যকর করতে বলা হয়েছে। তাই দ্রুত যোগদান করাই মহামান্য আচার্যের আদেশের প্রতি শ্রদ্ধা।

ভোট ছাড়াই ভিসি প্যানেল চূড়ান্ত করা নিয়ে সমালোচনা এবং কয়েকজন রেজিস্টার্ড গ্র্যাজুয়েটের করা মামলায় ওই প্যানেলের কার্যক্রম স্থগিত হয়ে যাওয়ার এক মাসের মাথায় গত সোমবার অধ্যাপক মো. আখতারুজ্জামানকে সাময়িকভাবে ভিসির দায়িত্ব দেন বিশ্ববিদ্যালয়ের চ্যাঞ্চেলর রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।

গত সোমবার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক আদেশে বলা হয়, ভিসি হিসেবে অধ্যাপক আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিকের মেয়াদ পূর্ণ হওয়ায় বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাকাডেমিক ও প্রশাসনিক কাজ সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার স্বার্থে বিশ্ববিদ্যালয়ের চ্যাঞ্চেলর রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ অধ্যাপক মো. আখতারুজ্জামানকে সাময়িকভাবে উপাচার্যের দায়িত্ব দিয়েছেন। এ নিয়ে সরকারের প্রজ্ঞাপন জারির সময় গ্রামের বাড়ি বরগুনার পাথরঘাটায় ছিলেন অধ্যাপক মো. আখতারুজ্জামান।

বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন সমস্যা সমাধানে পূর্ববর্তী ভিসিদের নেওয়া পদক্ষেপ সামনের দিকে এগিয়ে নেওয়ার কথা বলেন নতুন ভিসি। তিনি বলেন, আগে যারা কাজ করেছেন, এটি তারই একটা ধারাবাহিকতা। ক্রমান্বয়ে কীভাবে ভালোর দিকে যাওয়া যায়, সে প্রয়াস থাকবে। সব সময় লক্ষ্য থাকবে, খারাপ থেকে আরও খারাপে না গিয়ে যেন ভালো থেকে আরও ভালোর দিকে যেতে পারি।

শিক্ষার্থীদের দীর্ঘদিনের দাবি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদ ডাকসু নির্বাচন আয়োজনে দায়িত্ব পালনের সময় উদ্যোগ নেবেন কিনা- সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নে ভিসি বলেন, ডাকসুর বিষয়টি একক কোনো সিদ্ধান্তে হয় না। এটি ব্যাপক ও বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট অনেকগুলো অংশীজনের সিদ্ধান্তের বিষয়। তারপরও কোথাও না কোথাও থেকে তো এর উদ্যোগ নিতে হবে। আমরা হয়তো সবার সঙ্গে একটা সমন্বয়কের ভূমিকা রাখব।

১১ প্রভোস্ট, প্রক্টোরিয়াল টিমের পদত্যাগ! সাময়িকভাবে প্রো-ভিসি অধ্যাপক মো. আখতারুজ্জামানকে সরকার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসির দায়িত্ব দেয়ার প্রেক্ষিতে পদত্যাগপত্র দিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ১১টি আবাসিক হলের প্রাধ্যাক্ষ ও পুরো প্রক্টোরিয়াল টিম। এ ধরনের খবর বুধবার দিনভর শুনা গেছে। 

গত মঙ্গলবার পদত্যাগপত্র বিদায়ী ভিসি আআমস আরেফিন সিদ্দিকের কাছে প্রদান করলেও তিনি সেটা গ্রহণ করেনি।  আরেফিন সিদ্দিক গত মঙ্গলবার পর্যন্ত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি ছিলেন। গতকাল বুধবার থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন অধ্যাপক মো. আখতারুজ্জামান।      

অধ্যাপক মো. আখতারুজ্জামানের নিয়োগকে নিয়মবহির্ভূত ও বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বায়ত্তশাসন লঙ্ঘন উল্লেখ করে, ১১ জন প্রভোষ্ট ও প্রক্টরসহ পুরো প্রক্টোরিয়াল টিমের ১০ সদস্য পদত্যাগ করেন। একজন প্রভোষ্ট গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, মঙ্গলবার বিজয় একাত্তর হল, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল, সার্জেন্ট জহুরুল হক হল,এফ রহমান হল, বেগম রোকেয়া হল, শামসুন্নাহার হল, বেগম সুফিয়া কামাল হলসহ মোট ১১টি হলের প্রভোষ্ট ও প্রক্টরসহ প্রক্টরিয়াল টিমের ৯ সদস্য আরেফিন সিদ্দিকের কাছে পদত্যাগ পত্র প্রদান করেন। তবে পদত্যাগপত্র স্যার গ্রহণ করেছেন কী না সেটা স্যারই ভালো বলতে পারবেন। এ দিকে ঠিক কতজন পদত্যাগ করেছেন এ সংখ্যা নিয়েও বিভ্রান্তি রয়েছে। 

আরেফিন সিদ্দিক বলেন, সোমবার আমার কাছে পদত্যাগপত্র নিয়ে আসলেও আমি সেটা গ্রহণ করিনি। আমি তাদের বলেছি, এখন তারা পদত্যাগ করলে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনে অস্থিতিশীলতার সৃষ্টি হবে।

এ বিষয়ে নবনিযুক্ত ভিসি অধ্যাপক ড. আখতারুজ্জামান গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, আমি কোনো পদত্যাগপত্র পাইনি। এ বিষয়ে কিছু বলতে পারছি না।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ