ঢাকা, শুক্রবার 08 September 2017, ২৪ ভাদ্র ১৪২8, ১৬ জিলহজ্ব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

খুলনায় মা-মেয়েকে পিটিয়ে স্কুল ছাত্র পরশকে অপহরণ

খুলনা অফিস : খুলনা মহানগরীর দৌলতপুর থানাধীন মহেশ^রপাশায় পূর্ব শত্রুতায় মা-মেয়েকে মারপিট করে তৃতীয় শ্রেণির ছাত্র মাহমুদুল হাসান পরশ (৯) কে অপহরণের অভিযোগ পায়া গেছে। এ ব্যাপারে সাতজনকে আসামী করে থানায় মামলা মামলা দায়ের করা হয়েছে। অপহরণের এক সপ্তাহেও উদ্ধার হয়নি অপহৃত পরশ। অপরদিকে মামলার আসামীরা স্থানীয় একজন প্রভাবশালী নেতার ছত্রছায়ার প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়ালেও পুলিশ তাদেরকে গ্রেফতার করছে না অভিযোগ উঠেছে।
মামলার অভিযোগে জানা গেছে, নগরীর দৌলতপুর থানাধীন মহেশ^রপাশা বণিকপাড়া আমিরাবাদ লেন এলাকার রোজিনা বেগম রাজিয়ার মেয়ে হালিমা আক্তার ঝুমা (২০) কে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে গত ১ সেপ্টেম্বর দুপুরে প্রকাশ্যে বাড়ির সামনে মারধর করে। খবর পেয়ে ঝুমার মা রোজিনা এবং ছোট ভাই ফুলবাড়ীগেট কনফিডেন্স ইংলিশ স্কুলের তৃতীয় শ্রেণির ছাত্র মাহমুদুল হাসান পরশ এগিয়ে আসে।  এদিকে হামলায় রাজিয়া জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। এ সময় রোজিনার মেয়ে হালিমা আক্তার (২০) কে হত্যার হুমকি দিয়ে রোজিনার শিশু সন্তান পরশকে অপহরণ করে নিয়ে যায়। এ ব্যাপারে রোজিনা বাদি হয়ে দৌলতপুর থানায় পার্শ্ববর্তী সামছু মাতুব্বরের ছেলে শাহ আলম, রানার মাঠের ইউনুস কবিরাজের ছেলে মনির, বণিকপাড়ার মহারাজের স্ত্রী জাহানারা বেগম, শাহ আলমের স্ত্রী রুনা, আলামিন সুমনের স্ত্রী আয়শা, ইউনুছ কবিরাজের স্ত্রী ফতে বেগম, সামছু মাতুুব্বরের স্ত্রী জয়নবকে আসামী করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের (সংশোধিত ০৩) এর ৭/১০/৩০ ধারায় মামলা দায়ের করা হয়েছে (মামলা নং-৩ তাং ৫/৯/১৭)।
মামলার বাদি রোজিনা বেগম জানান, গত ১৬ জুন আমার অনুপস্থিতিতে আমার বাড়িতে চুরি হয়। ওই ঘটনায় আমার মেয়ে থানায় একটি চুরি মামলা করলে আসামীরা তার উপর ক্ষিপ্ত হয়ে হামলা চালায়। তাকে উদ্ধার করেতে গেলে আমাকে লাঞ্ছিত করে স্থানীয় মানুষের সামনে আমার শিশু সন্তান পরশকে অপহরণ করে নিয়ে যায়। এ ব্যাপারে থানায় অভিযোগ দাখিল করা হলেও স্থানীয় একজন প্রভাবশালী নেতার ছত্রছায়ায় আসামীরা প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে। কিছু ব্যক্তির সহযোগিতায় আসামীদের এক সন্তানকে আত্মগোপনে রেখে হয়রাণীসহ শায়েস্তা করার কৌশল অবলম্বন করছে।
এ ব্যাপারে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই আরাফাত বলেন, শিশু পরশকে উদ্ধারে প্রযুক্তি ব্যবহার করে ঘটনার গভীরে পৌঁছে দ্রুততম সময়ে উদ্ধারের চেষ্টা চলছে। আসামীদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। তিনি আরো বলেন, কারো দ্বারা প্রভাবিত না হয়ে তদন্ত সাপেক্ষে যা যা করণীয় তাই করা হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ