ঢাকা, মঙ্গলবার 12 September 2017, ২৮ ভাদ্র ১৪২8, ২০ জিলহজ্ব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

রাখাইনে অবিলম্বে গণহত্যা  বন্ধের আহ্বান বাংলাদেশের

 

স্টাফ রিপোর্টার : মিয়ানমারের রাখাইনে অবিলম্বে রোহিঙ্গা গণহত্যা বন্ধের আহ্বান জানিয়েছে বাংলাদেশ। গতকাল সোমবার আঞ্চলিক জোট আসিয়ান ও এশিয়ার অন্যান্য দেশের রাষ্ট্রদূতদের রোহিঙ্গা সংকট বিষয়ে এক ডিপ্লোম্যাটিক ব্রিফিংয়ে এ আহ্বান জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী এএইচ মাহমুদ আলী। বিকালে রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় সাম্প্রতিক পরিস্থিতি নিয়ে রাষ্ট্রদূতদের ঘণ্টাব্যাপী ব্রিফ করেন তিনি। আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের পরিস্থিতি দেখতে আগামীকাল বুধবার কক্সবাজার যাবেন ঢাকায় কর্মরত বিদেশি কূটনীতিকরা। 

ব্রিফিংয়ের পর পররাষ্ট্র সচিব এম শহীদুল হক সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানান। সচিব বলেন, ‘ব্রিফিংয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, “রাখাইনে সহিংসতা বন্ধ করে স্বাভাবিক পরিস্থিতি ফিরিয়ে আনা সবচেয়ে জরুরি।”’ তিনি আরও বলেন,  ‘কফি আনান কমিশনের রিপোর্টের দ্রুত পূর্ণাঙ্গ ও শর্তহীন বাস্তবায়ন চেয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।’ সচিব বলেন,  ‘কফি আনান কমিশনের প্রতিবেদনে রোহিঙ্গাদের ভেরিফিকেশন করে নাগরিকত্ব দেওয়ার সুপারিশ করা হয়েছে। আমরাও এটি চাই।’ ব্রিফিংয়ে উপস্থিত রাষ্ট্রদূতরা এ সংকটে বাংলাদেশের পাশে থাকার প্রতিশ্রতি দিয়েছেন বলে জানান তিনি।

বিপুলসংখ্যক রোহিঙ্গার চাপ সামলাতে বাংলাদেশের কি দরকার তা রাষ্ট্রদূতদের জানানো হয়েছে কিনা জানতে চাইলে পররাষ্ট্র সচিব বলেন, এত খুঁটিনাটি বিষয়ে আমরা এখনও আলোচনা করিনি। রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনে বুধবার বিদেশি রাষ্ট্রদূতদের নিয়ে আমরা কক্সবাজার যাচ্ছি। সেখানে এ নিয়ে আলোচনা হতে পারে।

চলমান রোহিঙ্গা সংকটে ভারত ও চীনের অবস্থান জানতে চাইলে সচিব বলেন, ভারত ও চীন আমাদের ভ্রাতৃপ্রতীম রাষ্ট্র। এ কঠিন সময়ে বাংলাদেশের সঙ্গে একাত্মতা ঘোষণা করে তারা আমাদের পাশে থাকার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। দেশ দুটি বলেছে, এ কঠিন সময়ে তারা আমাদের পাশে থাকবে, আগেও যেমন ছিল।

 রোহিঙ্গাদের জন্য রাখাইনে একটি নিরাপদ অঞ্চল গঠনের প্রস্তাব বিষয়ে জানতে চাইলে পররাষ্ট্র সচিব বলেন, বাংলাদেশ এ বিষয়ে একটি প্রস্তাব দিয়েছে। আন্তর্জাতিক পর্যায়ে এখন এ নিয়ে আলোচনা চলছে। এ প্রস্তাবে মিয়ানমারের কোনও রেসপন্স আছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, মিয়ানমার এ বিষয়ে কোনও রেসপন্স করেনি।

পররাষ্ট্রমন্ত্রীর এই ব্রিফিংয়ে আসিয়ান সদস্য মিয়ানমারের কোনও প্রতিনিধি ছিলেন না। এ প্রসঙ্গে পররাষ্ট্র সচিব বলেন, ব্রিফিংয়ে মিয়ানমারকে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি।

ব্রিফিংয়ে আফগানিস্তান, ব্রুনেই, চীন, ইন্দোনেশিয়া, জাপান, মালয়েশিয়া, ভিয়েতনাম, ফিলিপাইন, থাইল্যান্ড, সিঙ্গাপুর, দক্ষিণ কোরিয়া, ভারত, ভুটান, নেপাল, শ্রীলংকা, পাকিস্তান ও মালদ্বীপের রাষ্ট্রদূতরা উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে রোববার যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, কানাডা, অস্ট্রেলিয়া, তুরস্ক, ইউরোপিয়ান ইউনিয়নভুক্ত বিভিন্ন দেশ ও মধ্যপ্রাচ্যসহ বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূতদের এই সঙ্কট সম্পর্কে ধারণা দেওয়া হয়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ