ঢাকা, বুধবার 13 September 2017, ২৯ ভাদ্র ১৪২8, ২১ জিলহজ্ব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

সিঙ্গাপুরের প্রথম নারী প্রেসিডেন্ট হচ্ছেন মুসলিম নারী হালিমাহ

১২ সেপ্টেম্বর, স্ট্রেইটস টাইমস : ইলেকশন ডিপার্টমেন্টের বাইরে সাংবাদিকদের সাথে কথা বলছেন হালিমাহ ইয়াকুব  প্রথমবারের মতো নারী প্রেসিডেন্ট পাচ্ছে সিঙ্গাপুর। তিনি পার্লামেন্টের সাবেক স্পিকার হালিমা ইয়াকুব। তিনি শুধু প্রথম নারী প্রেসিডেন্ট নন গত ৪৭ বছরের বেশি সময় পর তিনিই মালয় সম্প্রদায় থেকেও প্রথমবারের মতো দেশের শীর্ষ পদে অধিষ্ঠিত হতে যাচ্ছেন।

ইলেকশন ডিপার্টমেন্ট (ইএলডি) সোমবার জানিয়েছে, রাষ্ট্রপতি পদে যেসব প্রার্থী অংশ নিয়েছিলেন তাদের মধ্যে সাবেক সংসদ সদস্য হালিমাহ ইয়াকুবই একমাত্র মনোনীত হয়েছেন। ২৩ সেপ্টেম্বর প্রেসিডেন্ট নির্বাচন হওয়ার কথা। তবে নির্বাচনে আর কোনো যোগ্য প্রার্থী নেই বলে হালিমা ইয়াকুবের (৬২) প্রেসিডেন্ট হওয়াটা এখন শুধু সময়ের ব্যাপার। নির্বাচনী প্রতিযোগিতায় একমাত্র হালিমাকেই যোগ্য বলে মনে করেছে প্রেসিডেন্সিয়াল ইলেকশনস কমিটি। তিনি তিন বছরের বেশি সময় দেশটির পার্লামেন্টের স্পিকার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

একনজরে হালিমাহ : ১৯৫৪ সালের ২৩ আগস্ট কুইন স্ট্রিটে হালিমাহর জন্ম। তিনি পরিবারের পাঁচ সন্তানের সবচেয়ে ছোট। ১৯৬২ সালে যখন তার বাবা মারা যান তখন তার বয়স আট বছর। তখন তাদের আর্থিক অবস্থা ভালো ছিলো না। তার মা হকার লাইসেন্স নিয়ে রাস্তার পাশে একটি খাবারের স্টল দিয়েছিলেন। সেখানে হালিমাহ তার মাকে স্টলটি পরিষ্কার, বাসনপত্র ধৌতকরণ, টেবিল পরিষ্কার, কাস্টমারদের খাবার পরিবেশন প্রভৃতি কাজে সাহায্য করতেন।

১৯৬০’র শেষের দিকে তিনি সিঙ্গাপুর চাইনিজ গার্লস স্কুলে ভর্তি হন। অল্প যে ক’জন মালয় ছাত্র সেখানে পড়ালেখা করতো তিনি ছিলেন তাদের একজন। ১৯৭০ সালে তিনি তানজং ক্যানটং গার্লস স্কুলে এবং পরে সিঙ্গাপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আইন বিষয়ে গ্রাজুয়েশন ডিগ্রি অর্জন করেন। ১৯৭৮ সালে তিনি ন্যাশনাল ট্রেডস ইউনিয়ন কংগ্রেসে (এনটিইউসি) একজন আইন কর্মকর্তা হিসেবে যোগদান করেন। তিনি সেখানে ৩০ বছরের বেশি সময় অতিক্রম করেন এবং শেষে ডেপুটি সেক্রেটারি জেনারেল হন। ১৯৮০ সালে তিনি তার বিশ্ববিদ্যালয়ের বন্ধু ও ব্যবসায়ী মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আলহাবসিকে বিয়ে করেন। তাদের সংসারে পাঁচ ছেলেমেয়ে রয়েছে, যাদের বর্তমানে বয়স ২৬ থেকে ৩৫ বছরের মধ্যে। ২০০১ সালে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী গোহ চোক টংয়ের অনুরোধে রাজনীতিতে প্রবেশ করেন এবং তখন থেকে ৪টি সাধারণ নির্বাচনে তিনি জয়লাভ করেন।

২০০১১ সালে তিনি সামাজিক উন্নয়ন, যুব ও খেলাধুলা মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী নিযুক্ত হন। ২০১৩ সালে তিনি দেশটির সংসদে প্রথম নারী স্পিকার নিযুক্ত হন। ২০১৫ সালের ১১ সেপ্টেম্বর সাধারণ নির্বাচনের দিন তিনি তার মাকে হারান। হালিমাহ যেহেতু তার মাকে খুব ভালোবাসতেন, তাই তিনি এ ঘটনাকে তার জীবনের সবচেয়ে দুঃখজনক মুহূর্ত বলে উল্লেখ করেন।

আর ২০১৭ সালের ১১ সেপ্টেম্বর তিনি সিঙ্গাপুরের প্রথম নারী প্রেসিডেন্ট হিসেবে মোটামুটি নিশ্চিত হয়েছেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ