ঢাকা, বৃহস্পতিবার 14 September 2017, ৩০ ভাদ্র ১৪২8, ২২ জিলহজ্ব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূকে গলাটিপে হত্যার অভিযোগ স্বামী-শাশুড়ি আটক

গাজীপুর সংবাদদাতা : গাজীপুর সিটি করপোরেশনের বাঘিয়া এলাকায় স্বামী ও শ^াশুড়ির বিরুদ্ধে ৩মাসের অন্তঃসত্ত্বা এক গৃহবধূকে শ^াসরোধ করে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে ।  এ ঘটনায় পুলিশ নিহতের স্বামী মো. রতন মিয়া ও শ^াশুড়ি রোকেয়া বেগমকে আটক করেছে। নিহত নিগার সুলতানা (২১) বাঘিয়া এলাকার রতন মিয়ার স্ত্রী ও পাশর্^বর্তী জয়েরটেক এলাকায় সিরাজ মিয়ার মেয়ে ।  খবর পেয়ে পুলিশ শনিবার লাশ উদ্ধার করে গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, গত ৩ বছর আগে গাজীপুর সিটি করপোরেশনের ১১ নং ওয়ার্ডের জয়েরটেক এলাকায় সিরাজ মিয়ার মেয়ে নিগার সুলতানার বাঘিয়া এলাকার সাইদুর মিয়ার ছেলে মো. রতন মিয়ার সঙ্গে পারিবারিক ভাবে বিয়ে হয়। বিয়ের কিছু দিন পর থেকে তাদের স্বামী স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া বিবাদ শুরু হয়। এরই মধ্যে গত শুক্রবার রাতে নিগার সুলতানাকে তার শ^শুর বাড়ির লোকজন গুরুতর অবস্থায় কোনাবাড়ী এলাকায় একটি ক্লিনিকে নিয়ে যায়। এসময় চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। নিহতের পিতা সিরাজ মিয়া জানান, রতন প্রায় সময়ই নিগারকে মারধোর করতো ও যৌতুকের টাকার জন্য চাপ প্রয়োগ করত। মেয়ের শান্তির কথা ভেবে কিছু দিন আগে রতনকে ৩০ হাজার টাকাও দেয়া হয়।  তিনি আরও বলেন, শুক্রবার রাতে রতন ও তার মা রোকেয়া বেগমসহ রতনের বাড়ির লোকজন মিলে আমার মেয়ে নিগার সুলতানাকে গলাটিপে হত্যা করে। আমার মেয়ে নিগার সুলতানা ৩মাসের অন্তঃসত্ত্বা ছিলো।    

গাজীপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর ও টঙ্গী সার্কেল) মো. সাখাওয়াত হোসেন জানান, এ ঘটনায় নিহতের স্বামী মো. রতন মিয়া ও তার শ^াশুড়িকে পুলিশ আটক করেছে। নিহতের লাশ উদ্ধার করে গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের ঘটনার প্রকৃত কারণ জানা যাবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ