ঢাকা, বৃহস্পতিবার 14 September 2017, ৩০ ভাদ্র ১৪২8, ২২ জিলহজ্ব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

মূর্ছা গেলে কী করবেন

মূর্ছা যাওয়ার ঘটনা হরহামেশাই ঘটে। এই মূর্ছা যাওয়ার কারণও অনেক। সাধারণভাবে কারণ অনুযায়ীই চিকিৎসা করা উচিত। তার পরও তাৎক্ষণিকভাবে কী করা উচিত তা জানা থাকলে সমস্যা থেকে অনেকটাই রেহাই পাওয়া যায়।

কী মনে রাখবেন: মূর্ছা যাওয়া রোগীর পরনের পোশাক ঢিলা করে দিতে হবে। হাত-পা দাপাদাপি করলে ওই অবস্থা রাখতে হবে, দাপাদাপি থেমে গেলে রোগীর মাথাটা ঠিকমতো সোজা করে দিতে হবে। যদি রোগীর কোনো ইনজুরি না হয় এবং নড়াচড়া করলে কোনো অসুবিধা না হয়, তাহলে তাকে সুন্দর করে শুইয়ে দিতে হবে।

কী করবেন : রোগীকে চিৎ করে সোজা অবস্থায় শুইয়ে দিন। তার শ্বাসনালি যাতে উন্মুক্ত থাকে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। শ্বাসনালি উন্মুক্ত রাখতে রোগীর মাথাটা পেছন দিকে সুন্দর করে স্থাপন করতে হবে। যেকোনো টাইট পোশাক ঢিলা করে দিন। যদি খিঁচুনি শুরু হয় তাহলে রোগীর চার পাশের শক্ত জিনিসগুলো সরিয়ে ফেলুন।

খিঁচুনি থেমে যাওয়ার পরও রোগী অজ্ঞান থাকলে তার মাথাটা পেছন দিকে কাত করে রাখুন। মুখের মধ্যে বমি থাকলে তা রুমাল দিয়ে পরিষ্কার করে দিন। কোনো ইনজুরি হয়েছে কিনা তা পরীক্ষা করে দেখুন।

যদি জ্বরে মূর্ছা যায় 

সাধারণত ছোট শিশু বেশি জ্বরে মূর্ছা যায় এবং সেইসাথে তাদের খিঁচুনিও হতে পারে। সে ক্ষেত্রে যা করণীয়-

রোগীর পাশে অবস্থান করুন। মাথাটা পেছন দিকে কাত করে দিন, তাকে আরামদায়ক অবস্থানে শোয়ান।

বগলের নিচে থার্মোমিটার রেখে তাপমাত্রা পরীক্ষা করুন। আপনার লক্ষ্য হবে জ্বর কেবল এক ডিগ্রি কিংবা দুই ডিগ্র কমানো। অতঃপর রোগীকে চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যাবেন।

ডায়াবেটিস রোগীর ক্ষেত্রে : ডায়াবেটিস রোগী হলে যদি রোগীর হাইপোগ্লাইসেমিয়া থাকে তবে তাকে তৎক্ষণাৎ চিনি অথবা গ্লুকোজ শরবত খাইয়ে দিন। গ্লুকোমিটার হাতের কাছে থাকলে রক্তের গ্লুকোজের মাত্রা দেখুন।

বিশেষ সতর্কতা: মূর্ছা যাওয়া রোগীকে মুখে কিছু খাওয়াবেন না। রোগীর দাঁতে দাঁত লেগে গেলে অথবা জিহ্বায় যাতে কামড় বসাতে না পারে সেজন্য সতর্ক দৃষ্টি রাখতে হবে।  এক্ষেত্রে তার দাঁতের পাটির ফাঁকে চামচ বা এ জাতীয় শক্ত কিছু দেয়ার যাবে না; বরং নরম প্যাড দেবেন, তবে খেয়াল রাখতে হবে প্যাড যেন পিছলে পেছনে না যায় এবং গলায় আটকে না যায়। রোগীর প্রাথমিক পরিচর্চা নেয়ার সময় হাসপাতালের সাথে যোগাযোগ করুন অথবা অ্যাম্বুলেন্স সার্ভিসের সাহায্য নিন। সাবধান, ঘুমানোর আগে এগুলো খাবেন না! ব্যস্ত সময়, ব্যস্ত মানুষজন। সকালে অফিস আবার রাতে বাড়ি ফেরা। সবকিছুর মাঝে ঠিক মতো ঘুম হচ্ছে না। তাই ক্লান্তি দূর করতে অনেকে চা, কফি পান করে থাকেন। কিন্তু, জানেন কি, দীর্ঘদিন ধরে যে খাবারের মধ্যমেই আপনি ঘুম তাড়ান, সেই খাবার আপনার ঘুমের বারোটা বাজিয়ে দিচ্ছে?

১) অফিসে বসে কাজ করছেন, হঠাৎ দেখলেন খুম পাচ্ছে। চটপট কড়া করে চা কিম্বা কফির অর্ডার দিয়ে দিচ্ছেন। কিম্বা, বাড়িতে বসেও ঘুম তাড়ানোর জন্য চা, কফির বিকল্প কি-ই বা হতে পারে। কিন্তু, ওই চা, কফিই সর্বনাশ করে দিচ্ছে আপনার ঘুমের। তাই ঘুমের আগে এই পাণীয়গুলো পান করবেন না। ২) ঘুমাতে যাওয়ার আগে চকলেট খাবেন না। চকলেট যদি পছন্দও করেন, ঘুমনোর আগে একেবারে ছোবেন না। ৩) কোনো ধরণের সফ্ট ড্রিংক ঘুমনোর আগে পান করবেন না। ৪) ঘুমোতে যাওয়ার আগে জাঙ্ক ফুডও খাবেন না। পিজ্জা, বার্গার, চিকেন ইন্টারনেট যতই ভালো লাগুক না কেন, ওসবের দিক থেকে একেবারে চোখ বন্ধ করে থাকুন। ৫) মিষ্টি বা পেস্ট্রি জাতীয় খাবার ঘুমানোর আগে একেবারেই খাবেন না। বেশি মিষ্টি জাতীয় খাবার ঘুমের ব্যাঘাত ঘটায়।

-ডা. নাফিসা আবেদীন

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ