ঢাকা, শুক্রবার 15 September 2017, ৩১ ভাদ্র ১৪২8, ২৩ জিলহজ্ব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

জাপানের কাছে ৩ গোলে হেরেও খুশী রাব্বানির দল

স্পোর্টস রিপোর্টার : এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬ নারী ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপে গ্রুপের দ্বিতীয় ম্যাচেও হারলো বাংলাদেশ দল। সাবেক চ্যাম্পিয়ন জাপানের কাছে ৩-০ গোলে হেরেছে কোচ গোলাম রাব্বানী ছোটনের শিষ্যরা। প্রথম ম্যাচে অস্ট্রেলিয়াকে ৫-০ গোলে হারিয়ে আসা জাপান দলের বিপক্ষে কঠিন লড়াই করেছে কৃষ্ণারা। এশিয়ার ফুটবলের অন্যতম পরাশক্তি জাপানের মেয়েরা শক্তি-সামর্থে অনেক এগিয়ে থাকলেও বাংলাদেশ দলকে হারাতে তাদের ঘাম ঝরাতে হয়েছে। গ্রুপের প্রথম ম্যাচে উত্তর কোরিয়ার কাছে ৯-০ গোলে হেরে অনেকটাই মানসিকভাবে ভেঙ্গে পড়েছিলো ছোটনের শিষ্যরা। জাপানের বিপক্ষে ফলাফলটা কেমন হয়,বাংলাদেশ কয়টা গোল হজম করে সে শঙ্কায় ছিলেন অনেকে। তবে বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৬ নারী দল কঠিন লড়াই করে জাপানকে ৩ গোলে আটকে রাখতে পেরেছে এটাই আপাতত সাফল্য। হারলেও ম্যাচ শেষে বাংলাদেশ শিবিরে ছিলো আনন্দ। কারন পরাজয়ের ব্যবধানটা কমে এসেছে। তাছাড়া দ্বিতীয়ার্ধে জাপান কোন গোল করতে পারেনি। লড়াই হয়েছে সমানে সমান। গতকাল বৃহস্পতিবার থাইল্যান্ডের চুনবুরিতে অনুষ্ঠিত ম্যাচের প্রথমার্ধেই গোল তিনটি হয়েছে। ম্যাচের শুরু থেকেই আক্রমণাত্মক কৌশলে খেললেও গোল পেতে খুব বেশী সময় লাগেনি জাপানের। ১৪ মিনিটে বাংলাদেশের জালে প্রথম বল পাঠায় জাপান। ব্যবধান দ্বিগুন করেছে ৩২ মিনিটে। প্রথমার্ধের ৫ বাকী থাকতে আরো একটি গোল করে ৩-০ ব্যবধান নিয়ে বিরতিতে যায় বর্তমান রানার্সআপ জাপান।
দ্বিতীয়ার্ধের পুরো সময় গোলের জন্য মরিয়া হয়ে খেললেও ব্যবধান বাড়াতে পারেনি। শেষ পর্যন্ত ৩-০ ব্যবধানের জয় নিয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছে জাপানকে। আগামী ১৭ সেপ্টেম্বর গ্রুপের শেষ ম্যাচে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে খেলবে বাংলাদেশ। কৃষ্ণা-সানজিদাদের এ দিনের পারফরমেন্সে দারুন খুশী বাংলাদেশ শিবির।  দলের কোচ ছোটন ম্যাচ শেষে বললেন, ‘প্রথম ম্যাচে আমাদের মেয়েরা খুব নার্ভাস ছিল।
এ ম্যাচে সেই নার্ভাস কাটিয়ে আত্মবিশ্বাস নিয়েই খেলেছে। আমরা জাপানের বিপক্ষে খুবই সুন্দর ফুটবল খেলেছি। কিছু সাধারণ ভুলের জন্য ৩ গোল হজম করেছি। বাংলাদেশ ও জাপানের ফুটবলের অনেক পার্থক্য। তবে আমরা ধীরে ধীরে উন্নতি করছি।’অপরদিকে জাপান অনূর্ধ্ব-১৬ নারী ফুটবল দলের কোচ নাওকি কুসুনোসে ম্যাচের পর মাত্র ৩ গোলের হারের জন্য সুযোগ নষ্টের কথা বলেছেন,‘আমরা অনেক সুযোগ পেয়েছি। আমার আরো বড় ব্যবধানে জয়ের আশা করেছিলাম। তবে ম্যাচটা সহজ ছিল না। জিততে পেরেই আমি খুশি। বাংলাদেশের রক্ষণভাগ ছিল অনেক ভালো। আমরা আক্রমণের পর আক্রমণ করেছি আর বাংলাদেশে তা কেবল রুখেছে। তাদের গোলরক্ষক মাহমুদা পোস্টের নিচে দুর্দান্ত পারফরম্যান্স দেখিয়েছেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ