ঢাকা, রোববার 18 November 2018, ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

কুকুর, বিড়ালের জন্য আকুপাংচার

সংগ্রাম অনলাইন : শরীরে সুচ ফুটিয়ে চিকিৎসা করার প্রাচীন চীনা চিকিৎসা পদ্ধতি আকুপাংচার কুকুর আর বেড়ালের ক্ষেত্রেও ব্যবহার করা হয়৷

ইন্টারন্যাশনাল ভ্যাটেরিনারি আকুপাংচার সোসাইটির ওয়েবসাইট বলছে, চীনে হাজার হাজার বছর ধরে পশুদের চিকিৎসায় আকুপাংচাররের ব্যবহার হয়ে আসছে৷

চিকিৎসা পদ্ধতি

আকুপাংচার পদ্ধতির চিকিৎসায় শরীরের নির্দিষ্ট কয়েকটি অংশে লম্বা সুচ প্রবেশ করানো হয়৷ এই পদ্ধতির প্রয়োগকারীরা বলছেন, এর ফলে রক্ত প্রবাহে উদ্দীপনা সৃষ্টি হয়ে ব্যথা ও অস্বস্তি কম বা দূর হয়৷

আকুপাংচারে বিশ্বাস

চীনের সাংহাইয়ে একটি ক্লিনিকে বেড়ালকে আকুপাংচার দেবার জন্য নিয়ে গিয়েছিলেন ওয়াং শিজুয়ান৷ তিনি জানান, ‘‘আকুপাংচারের জন্য বিখ্যাত চীন৷ তাই বেড়ালের সমস্যা শুরু হওয়ার পরই আমি তাকে এখানে নিয়ে আসি৷ চারবার থেরাপির পর বিড়াল এখন হাঁটতে পারছে, লাফাতে পারছে, এমনকি অন্য বেড়ালের সঙ্গে মারামারিও করতে পারছে৷’’

চার বছরে ২,০০০

সাংহাইয়ের টিসিএম নিউরোলজি অ্যান্ড আকুপাংচার অ্যানিমেল হেল্থ সেন্টারের বিশেষজ্ঞ জিন রিশান বলছেন, চার বছর আগে এই ক্লিনিক প্রতিষ্ঠার পর থেকে এখন পর্যন্ত দুই হাজারের বেশি কুকুর ও বিড়ালকে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে৷

খরচ

৪৫ মিনিটের একটি সেশনের জন্য দিতে হয় ৩৯ ডলার বা তিন হাজার দু’শ’ টাকা৷

সফলতা

জিন রিশান জানান, তাদের কাছে চিকিৎসার জন্য নিয়ে আসা কুকুর ও বিড়ালের মধ্যে ৮০ শতাংশেরও বেশি কোনো-না-কোনো উপকার পেয়েছে৷

লক্ষ্য

তবে রিশান আরো জানান, তাদের লক্ষ্য হচ্ছে, পঙ্গু ও একা চলতে না পারা কুকুরকে দাঁড়াতে সমর্থ করা৷ সূত্র: ডয়েচে ভেলে। 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ