ঢাকা, শনিবার 16 September 2017, ০১ আশ্বিন ১৪২8, ২৪ জিলহজ্ব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

ঠাকুরগাঁওয়ে রাজনৈতিক মাঠ সরব হচ্ছে

ঠাকুরগাঁও সংবাদদাতা: দিন যত পেরিয়ে যাচ্ছে উত্তপ্ত হয়ে উঠছে ঠাকুরগাঁওয়ের রাজনৈতিক মাঠ। হাওয়া বইতে শুরু করেছে জাতীয় নির্বাচনের। বড় দু’দলের মধ্য থেকে ঠাকুরগাঁও-১ আসনে এখনো পর্যন্ত বিএনপি থেকে একক প্রার্থী হিসেবে বিএনপি’র মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও আ’লীগ থেকে হেভিওয়েট দুই প্রার্থীর নাম শোনা যাচ্ছে। 

একজন বর্তমান সংসদ সদস্য রমেশ চন্দ্র সেন অন্যজন জেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি ও বর্তমান সদর উপজেলা আ’লীগের সভাপতি এবং জেলা পুযা উদযাপন পরিষদের সভাপতি অরুনাংশু দত্ত টিটো। এছাড়াও আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে আরো বেশ কয়েকজনের নাম শোনা গেলেও প্রকৃতপক্ষে তারা মাঠ পর্যায়ে কাজ করছেন না।

উত্তরের জেলা ঠাকুরগাঁও জেলার বেশিরভাগ মানুষের পেশা কৃষি। দীর্ঘ দিনেও জেলার সাথে রাজধানীর সাথে যোগাযোগ ব্যবস্থার তেমন উন্নতি হয়নি। পিছিয়ে পরা মানুষ উন্নয়নের ছোঁয়া থেকেও অনেক পিছিয়ে। প্রায় ১৬ বছর ধরে এ জেলায় বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পা পরেনি ঠাকুরগাঁওয়ে। আর সে কারনেই তেমন কোন উন্নয়ন হয়নি বলে মনে করছেন শুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা। তবুও রাজনৈতিকভাবে বরাবরই এগিয়ে থাকতে চায় আ’লীগ। নিজস্ব দলীয় কোন্দল আ’লীগকে বরাবরই পরাজিত করে। এরই কারনে গত উপজেলা ও পৌর নির্বাচনে আ’লীগ তাদের নিশ্চিত সিটগুলো হােিয়ছেন। তবে এবার আ’লীগে ভিন্ন চিত্র দলীয় সমর্থনে সবাই এক কাতারে কাজ করছে বলে জানান জেলা আ’লীগের শীর্র্ষ নেতারা। আর কেন্দ্রের সীদ্ধান্ত অনুযায়ী যাকে মনোনয়ন দিবে তার পক্ষ হয়েই মাঠে কাজ করবে সবাই। ইতোমধ্যে দলের প্রতীক পেতে মাঠ পর্যায়ে কাজ করছেন হেভিওয়েট দুই প্রার্থী রমেশ চন্দ্র সেন ও অরুনাংশু দত্ত টিটো। এছাড়া জেলা আ’লীগের সাধারন সম্পাদকের নাম শোনা গেলেও তিনি এবার মনোনয়োন প্রত্যাশী নয় বলে পরিস্কার করেছেন।    

অপরদিকে বিএনপিতে একক প্রার্থী হিসেবে জনপ্রিয়তায় এগিয়ে রয়েছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। বিএনপির নেতা-কর্মীরা বর্তমানে একত্রিত হয়ে দল গুছানোর জন্য সদস্য সংগ্রহ অভিযানে ব্যস্ত সময় পার করছেন। এবার স্বচ্ছ নির্বাচন হলে ঠাকুরগাঁও-১ আসনে বিএনপি জয়লাভ করবে বলে মনে করছেন জেলা বিএনপি’র শীর্ষ নেতারা। জেলা বিএনপি’র শীর্ষ নেতারা জানান, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ঠাকুরগাঁও-১ আসনে একক প্রার্থী উনার জনপ্রিয়তা সকলের কাছে সমান। তাই উনার কোন বিকল্প নেই। আমরা শতভাগ আশাবাদি সুষ্ঠু নির্বাচন হলে ঠাকুরগাঁও-১ আসনে বিএনপি জয়লাভ করবে। তাই আমরা সকলের ঐক্যবদ্ধ হয়ে মাঠ পর্যায়ে কাজ করে যাচ্ছি। 

এ বিষয়ে জেলা বিএনপি’র সহ-সভাপতি মির্জা ফয়সাল আমিন জানান, আমাদের দলে কোন কোন্দল ছিল না এখনো নেই। আমরা সবাই এক জনের জন্য কাজ করছি। সুষ্ঠু নির্বাচন হলে ঠাকুরগাঁও-১ আসনে বিএনপি বিপুল ভোটে জয়লাভ করবে।

জেলা আলীগের বেশ কয়েকজন তৃণমূল নেতা-কর্মীদের সাথে কথা বলে জানা গেছে ঠাকুরগাঁও-১ আসনে নতুন মুখ দেখতে চান। তাই দলকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনার কাছে। 

আর আওয়ামী লীগের হিন্দু সম্প্রদায়ের ভোট ব্যাংককে সামনে রেখে ঠাকুরগাঁও আওয়ামী লীগের মনোনয়নের জন্য ও তৃণমূলে জনপ্রিয়তার দৌড়ে এগিয়ে আছেন নতুন সম্ভাব্য প্রার্থীদের মধ্যে সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অরুনাংশু দত্ত টিটো। গেল সদর উপজেলা নির্বাচনে তিনি প্রায় ১লাখ ১৯ হাজার ভোট পেয়েছিলেন। সাংগঠনিকভাবে তিনি মানুষের কাছে জনপ্রিয় একজন নেতা হিসেবে অনেক এগিয়ে। 

বিএনপি’র প্রার্থী মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর জানান, আমরা চাই সুষ্ঠু একটি নির্বাচন। আর সুষ্ঠু নির্বাচন হলে শুধু ঠাকুরগাঁওয়ে নয় আমাদের দল থেকেই সরকার গঠন হবে।  

আর ঠাকুরগাঁও-১ আসনের এমপি রমেশ চন্দ্র সেন জানান, আমি ঠাকুরগাঁওয়ের ব্যাপক উন্নয়ন কাজে ভুমিকা রেখেছি। আগামী জাতীয় নির্বাচনে লড়াইয়ে আ’লীগ থেকে আমার কোন বিকল্প নেই। আমি আশা করছি নৌকা প্রতীক  পেলে আবারো জয় লাভ করবো। 

আর সাবেক যুব নেতা ও বর্তমান আ’লীগ নেতা অরুনাংশু দত্ত টিটো জানান, তৃণমূলে আমার গ্রহণ যোগ্যতার প্রসার ঘটেছে। তরুনরা চায় আমি জাতীয় নির্বাচনে অংশ নেই।

 তবে কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তে আমাকে মনোনয়ন দিলে আমি শতভাগ আশাবাদী ঠাকুরগাঁও-১ আসন আ’লীগের। 

আমি সব সব সময় মানুষের পাশে ছিলাম এখনো মানুষের পাশে থেকে কাজ করে যাচ্ছি। আমি একজন মনোনয়োন প্রত্যাশী।   

এছাড়া জাতীয় পার্টি থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী জেলার সাধারণ সম্পাদক তরুন নেতা রেজাউর রাজি স্বপন চৌধুরীর নাম শোনা যাচ্ছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ