ঢাকা, শনিবার 16 September 2017, ০১ আশ্বিন ১৪২8, ২৪ জিলহজ্ব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

আরাকানে অবিলম্বে শান্তিরক্ষী বাহিনী মোতায়েন করুন

বাস্তুহারা ক্ষুধার্ত ও আতংকিত লক্ষ লক্ষ রোহিঙ্গা নারী পুরুষ ও শিশুকে অনিশ্চিত অন্ধকারের দিকে যাত্রা করতে বাধ্য করা হচ্ছে। শত শত বছরের বাসস্থান থেকে তাদেরকে উচ্ছেদ করে জন্মভূমি ত্যাগ করতে মিয়ানমার সেনাবাহিনী নির্বিচারে হত্যা, গ্রামগুলোতে অগ্নিসংযোগ ও নারীদের শ্লীলতাহানি করে রাখাইন প্রদেশে এক নারকীয় পরিস্থিতির সৃষ্টি করেছে। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে জাতিগত ও রাজনৈতিক মতপার্থক্যের কারণে সৃষ্ট দাঙ্গা বা গণহত্যা বন্ধ করতে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী বাহিনী প্রেরণ করেছে এবং করছে।

অথচ মিয়ানমার সরকার কর্তৃক রাখাইন প্রদেশে জাতি নির্মূলের লক্ষ্যে পরিচালিত নারকীয় গণহত্যা বন্ধে জাতিসংঘ থেকে এখনো কোন কার্যকরী পদক্ষেপ গহণ করা হয়নি। অসহায় রোহিঙ্গা মুসলিমদের রক্ষা ও নিরাপত্তা দেয়ার জন্য অবিলম্বে জাতিসংঘকে আরাকানে শান্তিরক্ষী বাহিনী মোতায়েন করার জন্য মুসলিম লীগ আহ্বান জানিয়েছে। অনুষ্ঠিতব্য জাতিসংঘের সভায় বাংলাদেশ সরকারকে এ বিষয়ে জোরালো ভূমিকা গ্রহণ করার জন্য জোর দাবি জানানো হয়েছে।

গতকাল শুক্রবার বাংলাদেশ মুসলিম লীগের সাবেক সভাপতি এডভোকেট নুরুল হক মজুমদারের দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলে মুসলিম লীগ নেতৃবৃন্দ উপরোক্ত দাবি করেন। দলের প্রেসিডিয়ামের সিনিয়র সদস্য আতিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য রাখেন দলীয় মহাসচিব কাজী আবুল খায়ের, এডভোকেট হাবিবুর রহমান, ইঞ্জিনিয়ার ওসমান গনী, খোন্দকার জিল্লুর রহমান, এস.এইচ খান আসাদ, কাজী এ.এ কাফী, ফারুক আহমেদ, আবু বক্কর সিদ্দীক, সাইফুল ইসলাম, আবদুল আলিম প্রমুখ। জনাব নুরুল হক মজুমদারের স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে নেতৃবৃন্দ বলেন, একজন সজ্জন নির্লোভ রাজনীতিবিদ হিসাবে তাকে দেশের মানুষ আজীবন স¥রন রাখবে। আমৃত্যু মুসলিম জাতিসত্তার চেতনা লালন করে তিনি বর্তমান যুগের রাজনীতিবিদদের জন্য এক অনুকরণীয় আদর্শ রেখে গেছেন। সভা শেষে মরহুমের রুহের মাগফেরাত কামনা করে দোয়া করা হয়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ