ঢাকা, সোমবার 18 September 2017, ০৩ আশ্বিন ১৪২8, ২৬ জিলহজ্ব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

হেফাজতের মিয়ানমার দূতাবাস ঘেরাও কর্মসূচি আজ 

 

মিয়ানমারের বর্বর সামরিক বাহিনী ও সন্ত্রাসী মগ দস্যুরা একযোগে নিরীহ রোহিঙ্গা মুসলমানদের উপর যে নির্মম নির্যাতন ও বিভৎস হত্যাযজ্ঞ চালাচ্ছে তা ইতিহাস খ্যাত বর্বর হিটলারকেও হার মানিয়েছে। রোহিঙ্গা মুসলমানদেরকে জাতিগতভাবে নির্মূল করার লক্ষ্যে বৌদ্ধ সন্ত্রাসীরা পোড়া মাটির নীতি অবলম্বন করেছে। অসহায় নারীদেরকে নির্বিচারে গনধর্ষণ ও ধর্ষণ পরবর্তী হত্যাসহ আবাল-বৃদ্ধা-বনিতার উপর  পৈচাশিক হামলার শিকার অসহায় মজলুম মুসলমানদের আহাজারীতে রাখাইনের আকাশ-বাতাস ভারী হয়ে উঠেছে। জীবন ও ইজ্জত-সম্ভ্রম রক্ষার্থে লক্ষ লক্ষ রোহিঙ্গা মুসলমান বাংলাদেশসহ বিভিন্ন দেশে আশ্রয় নিতে বাধ্য হচ্ছে। গোটা বিশ্ব মানবতার বিবেক জাগ্রত হয়ে এর প্রতিবাদে ফুঁসে উঠলেও মিয়ানমার সরকারের টনক নড়ছে না। এহেন অবস্থায় আর কাল বিলম্ব না করে জাতিসংঘসহ মুসলিম বিশ্বের আন্তর্জাতিক শক্তিগুলোকে মিয়ানমার সরকারের বিরুদ্ধে কঠোর হস্তক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে।  

গতকাল রোববার ঘেরাও কর্মসূচী সফল করার লক্ষ্যে ঢাকার বিভিন্ন স্পটে পথসভার বক্তব্যে হেফাজতে ইসলাম ঢাকা মহানগরের সভাপতি আল্লামা নূর হোছাইন কাসেমী এ কথাগুলো বলেন। 

মজলুম রোহিঙ্গা মুসলমানদের উপর নৃ:শংস হত্যা ও বর্বর নির্যাতনের প্রতিবাদে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ কর্তৃক পূর্ব ঘোষিত আজ সোমবার মিয়ানমার দূতাবাস ঘেরাও কর্মসূচী সফলের লক্ষ্যে হেফাজতে ইসলাম ঢাকা মহানগর ব্যাপক উদ্যোগ গ্রহণ করে। সে লক্ষ্যে ঢাকার বিভিন্ন স্পটে ব্যাপক গণসংযোগ ও লিফলেট বিতরণ কর্মসূচী পালন করা হয়। এতে আপামর জনসাধারণের মাঝে ব্যাপক সাড়া পড়েছে। ব্যাপক সাড়া জাগানো এই গনসংযোগ কর্মসূচী পালনকালে নেতৃবৃন্দ বলেন, আরাকানের রোহিঙ্গা মুসলমানদের উপর বর্বর হামলা বন্ধ না হওয়া পর্যন্ত এবং তাদের নাগরিক ও মানবিক অধিকার প্রতিষ্ঠা না হওয়া পর্যন্ত আল্লামা আহমদ শফীর নেতৃত্বে দেশের আপামর তৌহিদী জনতা তাদের কর্মসূচী অব্যাহত রাখবে। নেতৃবৃন্দ দেশের সর্বস্তরের তৌহিদী জনতাকে উক্ত দূতাবাস ঘেরাও কর্মসূচীতে স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশগ্রহণের উদাত্ত আহ্বান জানান।  

কর্মসূচীতে উপস্থিত ছিলেন, মাওলানা জুনাইদ আল হাবীব, মাওলানা জহিরুল হক ভূইয়া, মাওলানা মাহফুজুল হক, মাওলানা আব্দুর রব ইউসুফী, মাওলানা মুজিবুর রহমান পেশওয়ারী, মাওলানা হাবীবুল্লাহ মিয়াজী, হাকিম আব্দুল করীম, মাওলানা ফজলুল করীম কাসেমী, মাওলানা জাফরুল্লাহ খান, মাওলানা মুজিবুর রহমান হামিদী, মুফতী আব্দুল মালেক, মুফতী মুনীর হোছাইন কাসেমী, মাওলানা আহমদ আলী কাসেমী, শেখ গোলাম আসগর, মাওলানা এবিএম শরিফুল্লাহ, মাওলানা জয়নুল আবেদীন, মাওলানা আজীজুর রহমান হেলাল ও মুফতী নাসীর উদ্দীন খান প্রমূখ।   

উল্লেখ্য, ঘেরাও কর্মসূচী পালন শেষে ঢাকা মহানগর হেফাজত নেতৃবৃন্দ জাতিসংঘ এবং ওআইসি বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করবে। প্রেসবিজ্ঞপ্তি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ