ঢাকা, সোমবার 18 September 2017, ০৩ আশ্বিন ১৪২8, ২৬ জিলহজ্ব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

রাজশাহীর কেশরহাট বাজারে কারেন্ট জালের ব্যবসা রমরমা

মোহনপুর (রাজশাহী) : কেশরহাটে অবৈধ কারেন্ট জাল বিক্রি হচ্ছে প্রকাশ্যে -সংগ্রাম

মোহনপুর (রাজশাহী) সংবাদদাতা : রাজশাহীর মোহনপুর উপজেলায় অবৈধ কারেন্ট জালের চলছে রমরমা ব্যবসা। সরকারি বিধি উপেক্ষা করে অসাধু ব্যবসায়ীরা চোরাপথে কেশরহাট বাজারে কারেন্ট জালের অবাধ বাণিজ্য গড়ে তুলেছে। অসাধু ব্যবসায়ীদের গুদামে প্রায় কোটি টাকার কারেন্ট জাল মজুদ আছে বলে চোরাকারবারী সূত্রে জানা গেছে।

মোহনপুরের প্রতিটি খাল-বিলে শুরু হয়েছে পোনা মাছ নিধনের মহোৎসব। বিশেষ করে বিলকুমারি নদীতে এখন শত শত জেলেকে কারেন্ট জালের সাহায্যে মাছ আহরণ করতে দেখা যায়। কারেন্ট জাল ব্যবসায়ীরা মৎস্য বিভাগের কতিপয় অসৎ কর্মকর্তা-কর্মচারীকে ম্যানেজ করে মাছ শিকার করছে বলে অভিযোগ রয়েছে। জানা যায়, সপ্তাহে শনিবার ও বুধবার হাটবার ছাড়াও কেশরহাট বাজারে প্রতিনিয়ত পাওয়া যায় অবৈধ কারেন্ট জাল। কেশরহাট থেকে অবৈধ কারেন্ট জাল আশে-পাশের উপজেলাসহ কয়েকটি জেলায় পাইকারি বিক্রয় করা হয়। গত শনিবার সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, দীর্ঘ লাইন ধরে অবৈধ কারেন্ট জালের হাট বসেছে। ক্রেতা-বিক্রেতারা প্রকাশ্যে কারেন্ট জাল বিক্রয় করছে। স্থানীয়রা জানান, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের অবহেলার কারণে দেদারছে ক্রয়-বিক্রয় হচ্ছে অবৈধ কারেন্ট জাল। এই জাল ব্যবহার শুধু নদী খালে-বিলে সীমাবদ্ধ নয়, বিল-ঝিলেও ব্যবহার হচ্ছে। এমনকি পুঁটিমাছ, কৈ মাছ পর্যন্ত এই জালের ফাঁদে আটকা পড়ে। এসব প্রজাতির মাছ মোহনপুরে এখন খুব কম পাওয়া যায়। প্রকাশ্যে উপজেলার বিভিন্ন স্থানের মাছের আড়তে ছোট ছোট মাছ বিক্রি হচ্ছে। অথচ মোহনপুরে মৎস্য অফিস থাকা স্বত্ত্বেও তারা রহস্যজনক কারণে নীরব থাকছে। আর উপজেলার কেশরহাট বাজারে অবাধে কারেন্ট জাল বিক্রি করছে স্থানীয় ব্যবসায়ীরা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ব্যবসায়ীরা জানান, কারেন্ট জাল বিক্রির জন্য প্রতিমাসে মৎস্য অফিসে মাসোহারা দিয়ে এ ব্যবসা টিকিয়ে রেখেছেন। এ প্রসঙ্গে মোহনপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) শুক্লা সরকার জানান, এমনটা হয়ে থাকলে তা খুবই দুঃখজনক। দ্রুত ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে অবৈধ কারেন্ট জাল ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

মাদক স¤্রাট ময়েজ গ্রেপ্তার : রাজশাহীর মোহনপুর উপজেলার তাহেরপুর পাকুড়িয়া গ্রামের চিহ্নিত মাদক স¤্রাট ময়েজ উদ্দিনকে (৫৫) গ্রেপ্তার করেছে থানা পুলিশ। শনিবার দুপুরে আইনি প্রক্রিয়া শেষে তাকে রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানো হয়েছে। ময়েজ উপজেলার জাহানাবাদ ইউনিয়ন পরিষদ এলাকার তাহেরপুর পাকুড়িয়া গ্রামের রহিম বক্সের ছেলে। 

মোহনপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এসএম মাসুদ পারভেজ জানান, চিহ্নিত মাদক স¤্রাট ময়েজ উদ্দিন দীর্ঘদিন ধরে এলাকায় গাঁজা, হেরোইন, ইয়াবাসহ বিভিন্ন প্রকার মাদকের ব্যবসা করে আসছিল। তার বিরুদ্ধে জেলা আদালতে ও থানায় মাদকদ্রব্য আইনে একাধিক মামলা রয়েছে। ওসি জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শুক্রবার রাতে থানার এসআই গিয়াস উদ্দিন সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে অভিযান চালিয়ে হেরোইনসহ তাকে গ্রেপ্তার করে থানা হেফাজতে নেয়। 

তিনি আরো জানান, আটক ময়েজের বিরুদ্ধে মোহনপুর থানায় মাদকদ্রব্য আইনে মামলা হয়েছে। শনিবার রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারে আটক ময়েজকে পাঠানো হয়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ