ঢাকা, সোমবার 18 September 2017, ০৩ আশ্বিন ১৪২8, ২৬ জিলহজ্ব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

ভিক্ষুকের সহায় সম্পত্তি জবরদখলের অভিযোগ

গৌরনদী (বরিশাল) সংবাদদাতা: বরিশালের গৌরনদী উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চল খাঞ্জাপুর ইউনিয়নের কুনিয়াকান্দি গ্রামের অসহায় হতদরিদ্র বৃদ্ধ ভিক্ষুক আব্দুল হক মাতুব্বরের ক্রয়কৃত ও পৈত্রিক সূত্রে প্রাপ্ত সহায় সম্পত্তি জবরদখল করে রেখেছে তার চাচাতো বোন ও বোনের ছেলেরা। নিরুপায় ওই বৃদ্ধ ভিক্ষুক তার সহায় সম্পত্তির জবরদখল মুক্ত করায় সহযোগীতা পেতে নিজের বিধবা মেয়েকে সাথে নিয়ে এলাকার জনপ্রতিনিধিসহ প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের দ্বারে দ্বারে ঘুরছে।
গৌরনদী প্রেসক্লাবে এসে কান্নায় ভেঙ্গে পড়ে হতদরিদ্র বৃদ্ধ ভিক্ষুক আব্দুল হক মাতুব্বর অভিযোগ করে বলেন, আমার হতদরিদ্র বাবা মৃত নোয়াব আলী মাতুব্বরের আমি একমাত্র ছেলে। আমার বাপ চাচারা ছিল তিন ভাই। উপজেলার এসএ রেকর্ডীয় জেএল ৫নং কুনিয়াকান্দি মৌজায় আমার দাদা মৃত মফিজ উদ্দিন মাতুব্বরের রেখে যাওয়া সম্পত্তি থেকে আমি মোট ৩৭ শতাংশ সম্পত্তি পাবো। এ ছাড়া ওই মৌজায় আমার নিজের ক্রয়কৃত ১৮ শতক সম্পত্তি রয়েছে। সব মিলে আমি মোট ৫৫ শতক সম্পত্তির মালিক। ওই সম্পত্তির মাত্র ৩২শতক আমি ভোগ দখলে আছি। বাকি ২৩ শতক সম্পত্তি আমাকে ভোগ করতে দিচ্ছেনা। সম্পত্তি লোভী চাচাতো বোন কুলসুম বিবি ও তার দুই ছেলে রেজাউল চৌকিদার ও মোজাম্মেল ওরফে মুজাম চৌকিদার ওই সম্পত্তি জবর দখল করে রেখেছে। ওরা সেটেলমেন্ট জরিপের সময়েও কারসাজির মাধ্যমে আমাকে সম্পত্তির রেকর্ড থেকে বঞ্চিত করেছে। এ ঘটনায় আমি স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান নুর আলম সেরনিয়াবাত এর কাছে বিচার দিয়েছি। কিন্তু স্থানীয় কতিপয় প্রভাবশালী ব্যক্তি ওদের পক্ষ নিয়ে চেয়ারম্যানকে ভুল বুঝিয়ে ম্যানেজ করে ফেলেছে। ফলে চেয়ারম্যান ওদের পক্ষ নিয়ে বিচারের নামে সাদা ষ্টাম্পে আমার টিপসহি নিয়ে আমাকে আমার পৈত্রিক সম্পত্তি থেকে বঞ্চিত করেছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ