ঢাকা, সোমবার 18 September 2017, ০৩ আশ্বিন ১৪২8, ২৬ জিলহজ্ব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

রাজশাহীতে আলুর দাম কমছেই হিমাগারে ২৬ লাখ বস্তা আলু

রাজশাহী অফিস : রাজশাহীর বাজারে আলুর দাম কমতেই আছে। উৎপাদন খরচের চেয়ে প্রতিবস্তায় ৪০০ টাকা করে লোকসান গুণতে হচ্ছে চাষিদের। এখানকার হিমাগারে ২৬ লাখ বস্তা আলু সংরক্ষিত হচ্ছে। এই আলুতে ১৩৬ কোটি টাকা লোকসানের আশঙ্কা করা হচ্ছে।
রাজশাহী জেলায় লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশী আলু উৎপাদন হয়েছে এবার। জেলায় প্রায় ৩৭ হাজার হেক্টর জমিতে আলুচাষ হয়। উৎপাদনও ছিল ভাল। চাষি ও ব্যবসায়ীরা লাভের আশায় জেলার ২৬টি হিমাগারে আলু রাখেন। এবার লাভের আশায় হিমাগারে আলু রেখে ব্যাপক লোকসানের মুখে পড়েছেন আলুচাষি ও ব্যবসায়ীরা। এ বছর আলুর ব্যাপক উৎপাদনই কৃষক-ব্যবসায়ীদের কাল হয়ে দাঁড়িয়েছে। এজন্য বাজার ব্যবস্থাপনাকে দুষছেন কৃষক ও ব্যবসায়ীরা। এই সব হিমাগারে আলু মজুতের ধারণক্ষমতা প্রায় ৩৪ লাখ বস্তা (প্রতিবস্তায় ৮৫ কেজি)। বর্তমান বাজারে প্রতিবস্তায় চাষি ও ব্যবসায়ীদের কমবেশী ৪০০ টাকা করে লোকসান গুণতে হচ্ছে। সেই হিসেবে শুধু হিমাগারে রক্ষিত আলুতেই ১৩৬ কোটি টাকা লোকসানের আশংকা করা হচ্ছে। আলু চাষিরা জানান, বর্তমান বাজারে প্রতিবস্তা আলু বিক্রি হচ্ছে ১০২০ টাকা থেকে ১০৮০ টাকা। এতে লাভ দুরে থাক প্রতিবস্তার প্রায় ৪০০ টাকা লোকসান গুণতে হচ্ছে। এদিকে চাষি ও ব্যবসায়ীদের পাশাপাশি বিড়ম্বনায় পড়েছেন হিমাগার কর্তৃপক্ষ। তারা কোটি কোটি টাকা ঋণ দিয়েছেন চাষিদের। কিন্তু বার বার তাগিদ দিয়েও আলু বিক্রিতে সাড়া পাচ্ছেন না হিমাগার মালিকেরা। অথচ এখনো প্রায় ২৬ লাখ বস্তা আলু জেলার বিভিন্ন হিমাগারে মওজুদ আছে। আলুর দরপতন হচ্ছে প্রতিদিনই। এক হিমাগারের ব্যবস্থাপক বলেন, গতবারের চেয়ে এবারে আলুর সার্বিক দিক আরো ভয়াবহ। আলুর দাম দিনে দিনে কমে যাচ্ছে। এ অবস্থায় আলুচাষি, ব্যবসায়ী ও হিমাগার কর্তৃপক্ষ বিপাকে পড়েছে। হিমাগার মালিক সমিতির সভাপতি আবু বাক্কার জানান, হিমাগারে আলু রাখার শর্তে এবার কৃষক-ব্যবসায়ীদের বিপুল অঙ্কের টাকা ঋণ দেয়া আছে। কিন্তু বাজার মন্দার কারণে কৃষক-ব্যবসায়ীরা আলু তুলতে হিমাগারে আসছেন না। এ অবস্থায় হিমাগার ভাড়ার পাশাপাশি ঋণ আদায় অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। বাজার চাঙা না হলে এবার বিপুল পরিমাণ আলু হিমাগারেই পড়ে থাকার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের একজন কর্মকর্তা বলেন, কৃষি বিভাগ ফসলের উৎপাদন ও কৃষকদের বিভিন্ন লাভজনক ফসলে উৎসাহিত করে থাকে। কোন ফসলের দাম কম-বৃদ্ধির বিষয় দেখভাল করে বাজার ব্যবস্থাপনা বিভাগ। বর্তমানে সত্যিই অন্যান্য সবজির তুলনায় আলুর দাম কম বলে তিনি স্বীকার করেন।

রাজশাহীর সেফহোম থেকে দুই কিশোরী নিখোঁজ
রাজশাহী অফিস : রাজশাহীর বিমান বন্দর রোডে অবস্থিত বায়ায় সরকারি সেফহোম থেকে দুই কিশোরীর পালিয়ে যাওয়া ঘটনা ঘটেছে। গত শনিবার রাত ১০টার পর থেকে তাদের দু’জনকে খুঁজে পাওয়া যায়নি। সেফ হোমের উপ-তত্ত্বাবধায়ক লাইজু আক্তার বলেন, বাথ রুমের পিছনের গ্রীল ভেঙ্গে তারা পালিয়ে গেছে তারা। এবিষয় শাহ মখদুম থানায় সাধারণ ডাইরী করা হয়েছে।
দুই কিশোরী হলে, তানজিলা আক্তার ও সুমি আক্তার। এদের দুইজনের বয়স ১৬ বছর। জানা গেছে, এরা রংপুরের তারাগঞ্জ এলাকার বাসিন্দা তানজিলা। তাকে গত ১২ সেপ্টেম্বর রংপুরের একটি আদালত সেফহোমে পাঠায়। আর সুমির বাড়ি নীলফামারির ডোমার এলাকায়। তাকে গত ২৯ আগস্ট নীলফামারির একটি আদালতের বায়ার সেফহোমে পাঠানোর নির্দেশে দিয়েছিলেন। উপ-তত্ত্বাবধায়ক লাইজু আক্তার বলেন, গতকাল শনিবার রাত ৯টার থেকে ১০টা পর্যন্ত বিদ্যুৎ ছিল না। এ সময়ের মধ্যে তারা দু’জন বাথ রুমের পিছনের ভেন্টিলিটারের গ্রীল ভেঙে পালিয়ে গেছে। রাত ১০টার পর থেকে এলাকায় অনেক খোঁজাখোঁজি করে তাদের না পেয়ে থানায় জিডি করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ