ঢাকা, সোমবার 18 September 2017, ০৩ আশ্বিন ১৪২8, ২৬ জিলহজ্ব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

চুয়েটে ভর্তি পরীক্ষা ১ নভেম্বর আবেদন শুরু ২১ সেপ্টেম্বর

চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (চুয়েট) -এর চারটি অনুষদের ১০ টি বিভাগে স্নাতক কোর্সে ৭০০ আসনের বিপরীতে ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষে ভর্তিচ্ছু প্রার্থীদের নিকট থেকে আবেদন আহবান করা হয়েছে। ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে ০১ নভেম্বর, ২০১৭ খ্রি. বুধবার সকাল ১০.০০ টা থেকে বেলা ১.০০ টা পর্যন্ত (সময় ৩ ঘণ্টা) এবং মুক্তহস্ত অংকন একই দিন বিকাল ২.৩০ টা থেকে ৪.৩০ টা পর্যন্ত (সময় ২ ঘণ্টা)। অন্যদিকে ভর্তির জন্য অনলাইনে আবেদনপত্র গ্রহণ শুরু হবে আগামী ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ খ্রি. থেকে। অনলাইনে আবেদন করার শেষ সময় আগামী ০৩ অক্টোবর, ২০১৭ খ্রি. বিকাল ৪.৩০ টা পর্যন্ত। এ-লেভেল এবং বিদেশী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রার্থীদের আবেদনপত্র গ্রহণ করার সময় ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ খ্রি. থেকে ০৩ অক্টোবর, ২০১৭ খ্রি. প্রতিদিন সকাল ৯.০০ টা হতে বিকাল ৪.৩০ টা পর্যন্ত। মোবাইল ব্যাংকিং এর মাধ্যমে আবেদনের টাকা জমাদানের শেষ তারিখ আগামী ০৪ অক্টোবর, ২০১৭ খ্রি. বিকাল ৪.৩০ টা পর্যন্ত। ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের যোগ্য প্রার্থীদের রোলসহ নামের তালিকা প্রকাশ করা হবে ১৫ অক্টোবর, ২০১৭ খ্রি.। এক্ষেত্রে শুধুমাত্র লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে এবং গঈছ পদ্ধতির কোন প্রশ্ন থাকবে না।
বিভাগসমূহ হচ্ছে- সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং (১৩০ টি আসন), মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং (১৩০ আসন), কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং (১৩০ আসন), ইলেক্ট্রিক্যাল এন্ড ইলেক্ট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং (১৩০ আসন), ইলেক্ট্রনিক্স এন্ড টেলিকমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং (৩০ আসন), পেট্রোলিয়াম এন্ড মাইনিং ইঞ্জিনিয়ারিং (৩০ আসন), সিভিল এন্ড ওয়াটার রিসোর্সেস ইঞ্জিনিয়ারিং (৩০ আসন), মেকাট্রনিক্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিয়াল ইঞ্জিনিয়ারিং (৩০ আসন), আর্কিটেকচার (৩০ আসন), আরবান এন্ড রিজিওনাল প্ল্যানিং (৩০ আসন)। এছাড়া রাখাইন সম্প্রদায়ের জন্য ০১টি, পার্বত্য চট্টগ্রাম ও অন্যান্য জেলার উপজাতীয়দের জন্য ১০টি সহ অতিরিক্ত ১১টি আসন সংরক্ষিত আছে।
ভর্তির জন্য অন্য কোনো ধরনের আসন সংরক্ষিত নেই।
ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের যোগ্যতা: প্রার্থীকে বাংলাদেশের নাগরিক হতে হবে, প্রার্থীকে ২০১৭ ইং সালে উচ্চ মাধ্যমিক বা তার সমমানের পরীক্ষায় পাশ হতে হবে অথবা ২০১৬ ইং সালের সেপ্টেম্বরের পরে ‘অ’ লেভেল সার্টিফিকেট প্রাপ্ত হতে হবে, প্রার্থীকে বাংলাদেশের যে কোন মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড/মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড/কারিগরি শিক্ষা বোর্ড থেকে মাধ্যমিক বা সমমানের পরীক্ষায় কমপক্ষে জিপিএ ৪.০০ পেয়ে পাশ হতে হবে অথবা সমমানের পরীক্ষায় কমপক্ষে সমতুল্য গ্রেড পেয়ে পাশ হতে হবে এবং প্রার্থীকে বাংলাদেশের যে কোন মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড/মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড/কারিগরি শিক্ষা বোর্ড থেকে উচ্চ মাধ্যমিক/আলীম/সমমানের পরীক্ষায় গণিত, পদার্থ বিজ্ঞান, রসায়ন ও ইংরেজি এ চার বিষয়ে কমপক্ষে মোট জিপিএ ১৮.৫০ ও ইংরেজী মাধ্যম/বিদেশী শিক্ষা বোর্ড থেকে সমমানের পরীক্ষায় উক্ত বিষয়সমূহে কমপক্ষে সমতুল্য গ্রেড পেয়ে পাশ হতে হবে। প্রার্থী যদি এঈঊ ‘ঙ’  লেভেল এবং ‘অ’ লেভেল পাশ করে থাকলে তার ক্ষেত্রে ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য এঈঊ ‘ঙ’  লেভেল পরীক্ষায় গণিত, পদার্থ বিজ্ঞান, রসায়ন ও ইংরেজীসহ কমপক্ষে পাঁচটি পেপারে নূন্যতম  ‘ই’  গ্রেড পেয়ে পাশ হতে হবে। এঈঊ ‘অ’  লেভেল পরীক্ষায় পদার্থ বিজ্ঞান, রসায়ন ও গণিতে পৃথক পৃথকভাবে কমপক্ষে  ‘ই’ পেয়ে পাশ হতে হবে।
অনলাইনে ভর্তির আবেদন ঃ ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য আবেদন ফরম কেবলমাত্র অনলাইনে পূরণ করা যাবে এবং আবেদন ফি ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের মোবাইল ব্যাংকিং এর মাধ্যমে প্রদান করতে হবে। কোন ছাপানো ফরম বিক্রয় করা হবে না এবং ডাচ্-বাংলা মোবাইল ব্যাংকিং ব্যতীত অন্য কোন মাধ্যমে আবেদন ফি গ্রহণযোগ্য হবে না। সকল আবেদনকারীর মধ্য থেকে ঐঝঈতে গণিত, পদার্থ বিজ্ঞান, রসায়ন এবং ইংরেজীতে প্রাপ্ত মোট গ্রেড পয়েন্টের ভিত্তিতে প্রথম ১০,০০০ (দশ হাজার) জনকে ভর্তি পরীক্ষার জন্য নির্বাচিত ঘোষণা করা হবে। তবে, ১০,০০০ তম স্থানে একাধিক প্রার্থী থাকলে ক্রমানুসারে গণিত, পদার্থ বিজ্ঞান, রসায়ন এবং ইংরেজি বিষয়ের ঐঝঈতে প্রাপ্ত নম্বরেরভিত্তিতে ভর্তি পরীক্ষার জন্য যোগ্য প্রার্থী নির্বাচন করা হবে। সেক্ষেত্রে ঐঝঈ তে গণিত, পদার্থ বিজ্ঞান, রসায়ন এবং ইংরেজিতে একই নং প্রাপ্ত ১০,০০০ তম স্থানের সকল প্রার্থী ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সুযোগ পাবে।
আবেদন ফি ঃ গ্রুপ-ক/ কঅ (ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগসমূহ এবং নগর ও অঞ্চল পরিকল্পনা বিভাগ) এর জন্য ৯০০/-(নয়শত) টাকা, গ্রুপ-খ/ কঐঅ (ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগসমূহ, নগর ও অঞ্চল পরিকল্পনা বিভাগ এবং স্থাপত্য বিভাগ) এর জন্য ১,০০০/- (এক হাজার) টাকা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ