ঢাকা, মঙ্গলবার 19 September 2017, ০৪ আশ্বিন ১৪২8, ২৭ জিলহজ্ব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

এক লাখ ৭০ হাজার টাকা জরিমানা নিয়ে ভাগ-বাটোয়ারার অভিযোগ

নাটোর সংবাদদাতা: নাটোরের গুরুদাসপুরে হাতাহাতির ঘটনায় শালিসের মাধ্যমে এক লাখ ৭০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করে ভাগ-বাটোয়ারা অভিযোগ ভুক্তভোগীদের। ভুক্তভোগী ও স্থানীয় সুত্রে জানাযায়, সোমবার উপজেলার ধারাবারিষা ইউনিয়নের খাকড়াদহ গ্রামের আজগর আলীর ছেলে করিমকে মারপিট করার ঘটনায় রায়হান, আঃ সামাদ, গাফ্ফার, শহিদুল, কাওছার, রহিম, জিল্লুর ছলিম, শরিফুলদের কাছ থেকে এক লাখ সত্তর হাজার টাকা আদায় করেন স্থানীয় প্রধানরা। গত ৩০ আগষ্ট বিকেলে সুদের টাকা নিয়ে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে করিম, দেলু, মাহাতাব প্রমুখরা রায়হানকে কিল-ঘুষি মারে। ওই খবর জানতে পেয়ে রায়হানের লোকজন রাতেই করিমকে মারপিট করে। এঘটনায় স্থানীয় প্রধানদের মধ্যস্থতায় মীমাংসার কথা বলে সোমবার শালিসে বসে। শালিসে প্রধানরা দলীয় প্রভাব খাটিয়ে তাদের ভয় ভীতি দেখিয়ে এক লাখ ৭০ হাজার টাকা জরিমানার রায় ঘোষনা করেন। ওই বৈঠকেই ৫০ হাজার টাকা দিতে বাধ্য করেন প্রধানরা।
ওই ৫০ হাজার টাকা তারা ভাগ-বাটোয়ারা করে নিয়েছেন বলে অভিযোগ করেন ভুক্তভোগীরা। বাকী টাকার জন্য ১০ দিনের সময় দেন তারা। ইতিমধ্যেই প্রধানরা ওই টাকার জন্য বিভিন্ন ভাবে হুমকি দিচ্ছে বলে অভিযোগ ভুক্তভোগী রায়হানের। উল্লেখ্য আহাদ, হামিদ, মনিরুল, মুসা, তরিকুল, বাহাদুর, মোজাহার প্রমূখ ওই শালিসী বৈঠকে প্রধান হিসেবে ছিলেন। এঘটনায় শালিসী বৈঠকের প্রধান মোঃ মুসা মন্ডল জানান, সাক্ষ্য প্রমাণের ভিত্তিতে উভয় পক্ষের প্রধানরা বোর্ডের মাধ্যমে ওই জরিমানা করেন। এখানে পক্ষপাত করার কোন সুযোগ নেই। সুদে কারবারী করিম জানায়, ওই দিন তাকে মারপিট করে ১লাখ ৭০ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয় রায়হান ও তার লোকজন। ওই ঘটনায় স্থানীয় প্রধানরা শালিসী বৈঠকের মাধ্যমে বিষয়টি আপোশ মীমাংসা করে দেন। ধারাবারিষা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি সোলায়মান আলী বিশ^াস জানান, বিভিন্ন ছোট খাটো ঘটনা নিয়ে ওই প্রধানরা তাদের ইচ্ছেমত জরিমানা করে ভাগ-বাটোয়ারা করে থাকেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ