ঢাকা, মঙ্গলবার 19 September 2017, ০৪ আশ্বিন ১৪২8, ২৭ জিলহজ্ব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

ফেনীতে দুই গৃহবধূকে পিটিয়ে ও শ্বাসরোধ করে হত্যার চেষ্টা

ফেনী সংবাদদাতা : ফেনীতে যৌতুকের দায়ে তানজিনা আক্তার ( ১৮) ও আসমা আক্তার (১৯) নামে দুই গৃহবধূকে পিটিয়ে ও শ্বাসরোধ করে হত্যার অভিযোগে পৃথক দুইটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। মঙ্গলবার ফেনী মডেল থানায় তানজিনার মা বিবি রাবেয়া আক্তার বাদি হয়ে সাত জন ও সোনাগাজী মডেল থানায় আসমা আক্তারের মা পেয়ারা বেগম বাদি হয়ে দুইজনকে আসামী করে মামলা দায়ের করেছেন। আসমা আক্তারকে হত্যার ঘটনায় স্বামী বোরহান উদ্দিন আহমেদ (৩৫) গ্রেফতার করেছে পুলিশ।
তানজিনা আক্তারকে (১৮) হত্যার মামলায় আসামী করা হয়েছে দেবর জিয়া উদ্দিন (৩২),শ্বশুর তোরাব আলী (৬০), শ্বাশুড়ি হালিমা খাতুন (৫০), ননদ ফিরোজা আক্তার (২৮), জরিনা আক্তার (৪০), স্বামী হুমায়ুন কবির (৩০),জরিনার স্বামী আহম্মদ উল্যাহ (৫৫)। আসমা আক্তারকে (১৯) হত্যার মামলায় আসামী করা হয়েছে তাঁর স্বামী বোরহান উদ্দিন আহমেদ (৩৫), ভাসুর মেজবাহ উদ্দিন (৪৮)।
এদিকে মঙ্গলবার তানজিনা আক্তার হত্যার ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতার দাবীতে ফেনী-ছাগলনাইয়া সড়কের মালিপুর এলাকায় ত্রিশ মিনিট সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করতে থাকে এলাকাবাসি ও স্বজনরা। এসময় সড়কের দুই পাশে যানচলাচল বন্ধ হয়ে যায়। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনে অবরোধকারীদের সরিয়ে যান চলাচল স্বাভাবিক করে দেয়।
পুলিশ ও পরিবারিক সূত্র জানায়, এক বছর আগে ফেনী সদর উপজেলার ধর্মপুর ইউনিয়নের ধর্মপুর (৯নম্বর ওয়ার্ড) গ্রামের তোরাব আলীর ছেলে হুমায়ুন কবিরের সাথে একই উপজেলার কাজিরবাগ ইউনিয়নের মালিপুর গ্রামের নরুল আলমের মেয়ে তানজিনা আক্তারের (১৮) বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে তানজিনা আক্তারের স্বামী ও শ্বশুর বাড়ির সদস্যরা যৌতুকের জন্য নির্যাতন করতেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ