ঢাকা, রোববার 24 September 2017, ০৯ আশ্বিন ১৪২8, ০৩ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

সুখী সমৃদ্ধশালী ও উন্নত বাংলাদেশ গড়তে মাদরাসা শিক্ষার্থীদের এগিয়ে আসতে হবে -মাদরাসা বোর্ড চেয়ারম্যান

গতকাল শনিবার নিজস্ব মিলনায়তনে তা’মীরুল মিল্লাত কামিল মাদরাসা টঙ্গীর উদ্যোগে আয়োজিত কৃতী ছাত্র সংবর্ধনা-২০১৭ প্রদান অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন মাদরাসা শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর এ কে এম সায়েফ উল্লাহ -সংগ্রাম

বাংলাদেশ মাদরাসা শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর এ,  কে, এম, ছায়েফ উল্যা বলেন, একটি সুখী সমৃদ্ধশালী ও উন্নত বাংলাদেশ গড়তে মাদরাসা শিক্ষার্থীরাই যথার্থ ও যুগোপযোগী ভূমিকা পালন করতে পারে। এ ক্ষেত্রে সারা দেশ ও জাতীর আকাক্সক্ষারস্থল তা‘মীরুল মিল্লাতে ছাত্রদের এগিয়ে আসতে হবে। শুধু নিজেরাই নয় সারা বাংলাদেশের অবহেলিত ও পিছিয়ে পড়া মাদরাসার ছাত্রদের এগিয়ে নেয়ার জন্য এ মিল্লাতকেই অগ্রসেনানী হয়ে এগিয়ে আসতে হবে। 
গতকাল শনিবার তা‘মীরুল মিল্লাত কামিল মাদরাসা, টঙ্গীতে অধ্যক্ষ মাওলানা যাইনুল আবেদীনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত কৃতী ছাত্র সংবর্ধনায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডের বিভিন্ন গঠনমূলক পদক্ষেপের উল্লেখ করে তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশের দশটি শিক্ষা বোর্ডের মধ্যে মাদরাসা শিক্ষাবোর্ড সবচেয়ে অগ্রসর। মাদরাসা শিক্ষায় কোন বৈষম্যের সুযোগ নেই উল্লেখ করে চেয়ারম্যান বলেন, ২০০৯ সালে শিক্ষামন্ত্রী যে কমিশন গঠন করেছেন তার আলোকে মাদরাসাকে উন্নয়নের ধারায় নিয়ে আসা হয়েছে। ২০১৪ ও ২০১৬ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষায় তা‘মীরুল মিল্লাতের ছাত্র প্রথম হওয়া ও ইংরেজি বিভাগে যখন দুইজন ছাত্র উর্ত্তীণ হয় তারাও এই মাদরাসার ছাত্র হওয়া এবং মাদরাসা বোর্ডের রেজাল্টের তালিকায় একনাগাড়ে প্রথম থেকে ৪র্থ স্থান অধিকার করা প্রমান করে তা‘মীরুল মিল্লাতের ছাত্ররা আগামী দিনের উন্নত বাংলাদেশ গড়তে যেকোন সেক্টরে ভূমিকা পালন পালন করতে পারবে।
মাওলানা আব্দুল কাইয়ূমের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডের উপ-রেজিস্ট্রার মো: কামাল উদ্দীন। বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ জমিয়াতুল মোদাররেসীনের গাজীপুর জেলা সেক্রেটারী অধ্যক্ষ মাওলানা জহিরুল হক, অধ্যক্ষ মাওলানা আব্দুল মান্নান, উপাধ্যক্ষ মাওলানা সফিক উল্লাহ আল মাদানী, মুহাদ্দিস মাওলানা মিজানুর রহমান, ড. মোয়াজ্জেম হোসাইন আল আজহারী, মাওলানা আব্দুল কাদের জিলানী ও ছাত্র প্রতিনিধি মো: খাইরুল আনাম প্রমুখ।
বিশেষ অতিথি তাঁর বক্তব্যে বলেন, কৃতী ছাত্ররা তাদের অর্জনকে মহান মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে অর্জিত বাংলাদেশের কল্যাণে বিলিয়ে দেবে বলে আমরা আশা করি। তিনি তাঁর বক্তব্যে আরবি ও ইংরেজির পাশাপাশি বাংলা ভাষার  যথাযথ চর্চার প্রতি গুরুত্বারোপ করেন। কিছু কিছু বুদ্ধিজীবী কর্তৃক মাদরাসা শিক্ষাকে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদদের সাথে সম্পৃক্ত করার অপচেষ্টার প্রতিবাদ করে তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী কৃষি ইনিস্টিটিউটের সম্মলনে মাদরাসার সাথে জঙ্গিবাদের কোন সম্পর্ক নেই বলে ঘোষনা করেছেন। মজলুম রোহিঙ্গাদের জন্য আমাদের প্রধানমন্ত্রী জাতিসংঘে যে প্রস্তাব পেশ করেছেন আশা করি  তার ভিত্তিতে অল্প সময়ে রোহিঙ্গারা তাদের সকল অধিকার ফিরে পাবে।
সভাপতির বক্তব্যে অধ্যক্ষ যাইনুল আবেদীন বলেন, শিক্ষা মন্ত্রনালয়, মাদরাসা শিক্ষা অধিদপ্তর ও মাদরাসা বোর্ডের যাবতীয় প্রজ্ঞাপন ও নির্দেশনা যথাযথভাবে অনুসরণ করেই আমরা প্রতিষ্ঠানকে এগিয়ে নেয়ার চেষ্টা করছি। আশা করছি সবার সহযোগিতা অব্যাহত থাকলে আমরা আমাদের সাফল্যের ধারাবাহিকতা অবিরত পথ চলতে পারবো- ইনশাআল্লাহ।
ছাত্রদের আরবি ও ইংরেজি বক্তব্য, নান্দনিক নানান পরিবেশনায় শিক্ষক ও ছাত্রদের মুখরিত উপস্থিতিতে অনুষ্ঠানের শেষে কৃতী ছাত্রদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়। প্রেসবিজ্ঞপ্তি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ