ঢাকা, সোমবার 25 September 2017, ১০ আশ্বিন ১৪২8, ০৪ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

রোহিঙ্গা নিপীড়নে জাতিসংঘে মিয়ানমারের নিন্দা সৌদি আরবের

সংগ্রাম ডেস্ক : রাখাইন প্রদেশে সংখ্যালঘু মুসলিম রোহিঙ্গাদের উপর অমানবিক অত্যাচার আর নির্যাতনে মিয়ানমার সরকারের প্রতি তীব্র নিন্দা জানিয়েছে সৌদি আরব। স্থানীয় সময় শনিবার নিউ ইয়র্কে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে সৌদির পররাষ্ট্রমন্ত্রী আল জুবায়ের একথা বলেন।

২৫ আগস্ট থেকে মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর পাশবিক নির্যাতনের শিকার হয়ে দেশটির রাখাইন প্রদেশ থেকে লাখ লাখ রোহিঙ্গা নিজেদের সব হারিয়ে প্রতিবেশি দেশগুলোর কাছে আশ্রয় ভিক্ষা চাইছে। তাদের বাড়িঘর আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয়া হচ্ছে। রাখাইন থেকে বের করে দেওয়ার উদ্দেশ্যেই এই গণহত্যাকান্ড চালাচ্ছে তারা। প্রতিবেশী দেশ বাংলাদেশে প্রায় ৪ লাখ ২২ হাজার রোহিঙ্গা শরণার্থী আশ্রয় নিয়েছে। সৌদি তাদের মানবিক সাহায্য ও সহযোগিতা করার জন্য সবসময় প্রস্তুত আছে বলে তিনি জানান।

মিয়ানমার সরকারের তীব্র সমালোচনার পর জুবায়ের বর্তমান ইয়েমেনের পরিস্থিতির কথাও উল্লেখ করেন। সেখানে চলমান সহিংসতায় মানুষ একইভাবে দেশ ছাড়তে বাধ্য হচ্ছে। তাদের জন্যেও সৌদি মানবিক সাহায্যের হাত বাড়িয়ে রেখেছে। এ পর্যন্ত ইয়েমেনের জন্য তারা ৮ বিলিয়ন ডলার অর্থ সহায়তা দিয়েছে। এছাড়া দেশটিতে কলেরা মহামারীতে আক্রান্তদের জন্যে ৬৭ মিলিয়ন ডলার অর্থ সহায়তা প্রদান করে। তারপরও তিনি আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদ নিয়ন্ত্রণের উপর গুরুত্ব দেন। কেন না জঙ্গিগোষ্ঠীকে অর্থ সাহায্য ও আশ্রয় দেওয়ার কারণেই দিন দিন তাদের আধিপত্য বিস্তৃত হচ্ছে। যা বিভিন্ন দেশে যুদ্ধ আর সহিংসতা ছড়াচ্ছে। আরব নিউজ, রয়টার্স।

সহায়তা দেবে তুরস্ক

স্টাফ রিপোর্টার : নির্যাতনের কারণে মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা এক লাখ রোহিঙ্গা নাগরিকের জন্য আশ্রয়কেন্দ্র নির্মাণে সহায়তা দেবে তুরস্ক। এছাড়া তুরস্ক রোহিঙ্গাদের জন্য শীঘ্রই ১৩টি আইটেমের সমন্বয়ে প্রস্তুতকৃত ১০ হাজার প্যাকেট ত্রাণ সামগ্রী প্রদান করবে।

সফররত তুরস্কের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক ও সহযোগিতা বিষয়ক সংস্থার সমন্বয়ক আহমেদ রফিক গতকাল রোববার দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া এমপি’র সাথে তার সচিবালয়ের অফিসকক্ষে সৌজন্য সাক্ষাৎকালে একথা জানান।

সাক্ষাৎকালে তারা রোহিঙ্গা পরিস্থিতিসহ দ্বিপাক্ষিক বিভিন্ন বিষয়ে আলাপ করেন। রোহিঙ্গাদের নির্যাতনের বিষয়টিকে অমানবিক হিসেবে উল্লেখ করে দ্রুত এর সমাধান আশা করেন তারা। 

ত্রাণমন্ত্রী জানান, একান্ত মানবিক কারণে বাংলাদেশ মিয়ানমারের নাগরিক রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে আশ্রয় দিয়েছে। রোহিঙ্গা নিয়ে সরকারের মনোভাব ও অবস্থান অবহিত করেন মন্ত্রী। 

তুরস্কের প্রতিনিধি জানান, রোহিঙ্গা সমস্যার সুষ্ঠু সমাধানে তুরস্ক বাংলাদেশের পাশে থাকবে। এ সময় আহমেদ রফিক জানান, তুরস্ক বাংলাদেশে পালিয়ে আসা এক লাখ রোহিঙ্গা নাগরিকের জন্য আশ্রয়কেন্দ্র নির্মাণ করে দেবে। আশ্রয়কেন্দ্র নির্মাণের স্থান নিয়ে আলোচনা করেন তারা। আহমেদ রফিক আরও জানান, তুরস্ক শীঘ্রই ১৩টি আইটেমের সমন্বয়ে প্রস্তুতকৃত ১০ হাজার প্যাকেট ত্রাণ সামগ্রী প্রদান করবে। এগুলোর হস্তান্তর নিয়েও কথা বলেন তারা। 

প্রতিনিধি আরও জানান, শীঘ্রই তুরস্কের উপপ্রধান মন্ত্রী রিসেপ আব্বাস বাংলাদেশ সফর করবেন। বাংলাদেশ তুরস্কের উপপ্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানাবে বলে মন্ত্রী প্রতিনিধিকে জানান। সফরের কর্মসূচি নিয়ে উভয়পক্ষের মধ্যে আলাপ হয়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ