ঢাকা, সোমবার 25 September 2017, ১০ আশ্বিন ১৪২8, ০৪ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

তিন জেলায় স্থানীয় সরকার নির্বাচনে সরকারদলীয়রা কেন্দ্র দখলে নিয়েছে -বিএনপি

 

স্টাফ রিপোর্টার : চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলাধীন নবগঠিত কর্ণফুলী উপজেলা পরিষদ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলাধীন কসবা উপজেলার খারেরা ইউনিয়ন এবং রংপুর জেলাধীন পীরগঞ্জ উপজেলার রামনাথপুর ও রায়পুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে সরকারদলীয় সন্ত্রাসীদের দৌরাত্ম্য ও বেপরোয়া সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। গতকাল রোববার এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, সরকারি দলের সন্ত্রাসী কার্যক্রমের কারণে নির্বাচনী এলাকাগুলোতে ভোটারদের মধ্যে চরম ভীতির সৃষ্টি করেছে। সকাল থেকেই তিন জেলার নির্বাচনী এলাকাগুলোর সকল ভোটকেন্দ্র পেশীশক্তির জোরে দখলে নিয়েছে সন্ত্রাসীরা। প্রতিপক্ষের এজেন্টদের মারধর করে ভোটকেন্দ্র থেকে বের করে দেয়া হয়েছে। স্থানীয় নির্বাচন কর্মকর্তা এবং প্রশাসনের নিকট বিষয়টি নিয়ে অভিযোগ উত্থাপন করলেও তারা এধরনের দুস্কর্মের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া দুরে থাক, নির্বিকার থেকেছে। 

বিবৃতিতে বিএনপি মহাসচিব বলেন, বর্তমান শাসকগোষ্ঠী আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীদেরকে গায়ের জোরে বিজয়ী করতে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলাধীন নবগঠিত কর্ণফুলী উপজেলা পরিষদ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলাধীন কসবা উপজেলার খারেরা ইউনিয়ন এবং রংপুর জেলাধীন পীরগঞ্জ উপজেলার রামনাথপুর ও রায়পুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সন্ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছে। অতীতের স্থানীয় নির্বাচনগুলোর মতো আজও সংশ্লিষ্ট নির্বাচনগুলোতে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীদের বিজয় সুনিশ্চিত করতে সরকার দলীয় সন্ত্রাসীদের লেলিয়ে দেয়া হয়েছে। প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ও সমর্থকদের ভয় পাইয়ে দিতে এবং নির্বাচনে নিরঙ্কুশ বিজয় ছিনিয়ে নিতেই আওয়ামী লীগ সরকার স্থানীয় সকল নির্বাচনে এধরণের ন্যক্কারজনক ঘটনার অবতারণা করছে, মানুষের ভোটের অধিকার কেড়ে নিচ্ছে। বর্তমানে দেশে সুষ্ঠু গণতান্ত্রিক পরিবেশ নেই। মানুষের ভোট দিবার অধিকার সম্পূর্ণরূপে অপহৃত। অবৈধভাবে ক্ষমতা দখলকারীগোষ্ঠী দীর্ঘদিন ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত থাকার বাসনায় সন্ত্রাসকেই এখন প্রধান অবলম্বন জ্ঞান করছে। চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলাধীন নবগঠিত কর্ণফুলী উপজেলা পরিষদ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলাধীন কসবা উপজেলার খারেরা ইউনিয়ন এবং রংপুর জেলাধীন পীরগঞ্জ উপজেলার রামনাথপুর ও রায়পুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীদের ব্যাপক তান্ডব এবং ধানের শীষ মনোনীত প্রার্থীদের অভিযোগের প্রেক্ষিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ না করে স্থানীয় নির্বাচন কর্মকর্তা ও প্রশাসনের নির্বিকার ভূমিকায় আমি তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই।

অপর এক বিবৃতিতে ঢাকা মহানগর (দক্ষিণ) জাতীয়তাবাদী যুবদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বাকী বিল্লাহ ওসমানী আনন্দ শাহকে গ্রেফতারের ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি অবিলম্বে বাকী বিল্লাহ ওসমানী আনন্দ শাহ’র বিরুদ্ধে দায়েরকৃত বানোয়াট মামলা প্রত্যাহার ও নি:শর্ত মুক্তির জোর দাবি জানান। 

একইভাবে যুবদল কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সভাপতি সাইফুল আলম নীরব ও সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন টুকু এক বিবৃতিতে জাতীয়তাবাদী যুবদল ঢাকা মহানগর দক্ষিণের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বাকীবিল্লা ওসমানী আনন্দ শাহ এর নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করেছেন। বিবৃতিতে তারা বলেন বর্তমান অবৈধ সরকার তাদের ক্ষমতা চিরস্থায়ী করার লক্ষ্যে যুবদলের প্রতিবাদী নেতাদের গ্রেফতার করে অনির্বাচিত অবৈধ সরকার বিরোধী আন্দোলন বাধাগ্রস্ত করতে চায়, কিšতু স্বৈরাচারী সরকারের ইতিহাস থেকে শিক্ষা নেওয়া উচিত কোন গণতান্ত্রিক আন্দোলন গ্রেফতার, হত্যা, গুম, খুন করে নিবৃত করা যায় না।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ