ঢাকা, সোমবার 25 September 2017, ১০ আশ্বিন ১৪২8, ০৪ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

বেলকুচি’র আইন-শৃংখলার অবনতিতে জামায়াত নেতৃবৃন্দের গভীর উদ্বেগ

বেলকুচি (সিরাজগঞ্জ) সংবাদদাতা: বেলকুচির আইন-শৃংখলার অবণতি জেলা জামায়াত নেতৃবৃন্দ গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।
গত শুক্রবার, বেলকুচি উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান,জেলা জামায়াতের কর্মপরিষদ সদস্য ও উপজেলা সেক্রেটারী আরিফুল ইসলাম সোহেলের নেতৃত্বে জামায়াতের এক প্রতিনিধি দল শোকাহত শ্রী মনতোষ কুমার সরকারের বাবা-মা ও পরিবারকে শান্তনা দিতে গিয়ে উপস্থিত গ্রামবাসীর সাথে মত বিনিময় কালে এ দাবী জানান। এ সময় উপজেলা ভাইস্ চেয়ারম্যান আরিফুল ইসলাম সোহেল, দ্রুত মনতোষ কুমারের খুনীদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় এনে দৃষ্ঠান্তমূলক শাস্তি দেয়া হবে মর্মে উপজেলা পরিষদ ও প্রশাসনের পক্ষ হতে দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। সেইসাথে তিনি উপস্থিত বিক্ষুব্ধ জনতা ও এলাকাবাসী’র সহযোগীতা কামনা করে খুঁনীদের গ্রেফতারে প্রশাসনকে সহযোগিতা করার আহবান জানান। এ সময় জামায়াত প্রতিনিধি দলের সাথে উপস্থিত ছিলেন, ধুকুরিয়াবেড়া ইউনিয়ন চেয়ারম্যান জামায়াত নেতা মাও. মাহবুবুর রশিদ শামীম,উপজেলা কর্মপরিষদ সদস্য, ভাঙ্গাবাড়ী ইউনিয়ন আমীর মাওঃ আহসান হাবীব,ইউপি সদস্য জাহাঙ্গীর হোসেন,জামায়াত নেতা জহুরুল ইসলাম প্রমুখসহ শিবির নেতৃবৃন্দ। জামায়াত নেতৃবৃন্দ, নিহত শ্রী মনতোষ কুমারের বাবা-মা ও পরিবারের সাথে কিছু সময় কাটান। এসময় এক আবেকঘন পরিবেশ সৃষ্টি হয় ও মনতোষ কুমারের বাবা-মায়ের আত্ম-চিৎকারে সবাই বাঁকরুদ্ধ হয়ে পড়েন। জামায়াত নেতৃবৃন্দ, শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান ও শোকাহত, বাকরুদ্ধ বাবা-মাকে সান্ত্বনা দেন।
উল্লেখ্য, গত ২০ সেপ্টেম্বর,মনতোষের লাশ বলরামপুর নদী থেকে উদ্ধার করে পুলিশ। শ্রী মনতোষ কুমার সরকার ভাঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের সোনামুখি গ্রামের শ্রী মঙ্গল সরকারের ছেলে, মনতোষ মাস্টাসে ফাস্টক্লাশ পেয়েছিল। গত ১৮ সেপ্টেম্বর, সোমবার আরিফুলের লাশ বেলকুচির মুকুন্দগাঁতীর এক ডোবায় ভেসে ওঠে। খুনিরা আরিফুলকে শ্বাসরুদ্ধ করে হত্যার পর হাত-পা বেঁধে ডোবায় ফেলে দেয়। নিহত আরিফুল ইসলাম বেলকুচি পৌরসভার ক্ষিদ্রমাটিয়া গ্রামের শহীদ মোল্লার ছেলে ও মাদ্রাসা পড়–য়া ৭ম শ্রেণির মেধাবী ছাত্র ছিল।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ