ঢাকা, শুক্রবার 29 September 2017, ১৪ আশ্বিন ১৪২8, ০৮ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে সাপে কাটা ভ্যাকসিন সরবরাহ বন্ধ ॥ ৪ দিনে ঝরে গেল ৩টি প্রাণ

চুয়াডাঙ্গা সংবাদদাতা: চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে অ্যান্টিস্নেকভেনম সরবরাহ বন্ধ থাকায় হাসপাতালে ভর্তি হবার পরও অকালে প্রাণ হারিয়েছে সর্প দংশনে একই দিনে দুজনসহ ৩ জন। চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাদের মৃত্যুর ঘটনায় ক্ষুদ্ধ হয়েছে সচেতন মহল। এদের মধ্যে রোববার চুয়াডাঙ্গা পৌর এলাকার সিএন্ডবি পাড়া ও মেহেরপুরের
শেওড়াবাড়িয়ার ২ জন একই দিনে মারা যায়।
জানা যায়, চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার সিএন্ডবি মাদরাসাপাড়ায় নিজ বাড়িতে ঘুমিয়ে থাকা অবস্থায় সজিব (১৮) কে রোববার ভোরে বিষধর একটি সাপ ডান হাতে ছোবল দেয়। পরিবারের লোকজন বিষয়টি বুঝতে পেরে দ্রুত তাকে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় অ্যান্টি¯েœকভেনমের অভাবে সজিবের মৃত্যু হয়। নিহত সজিব পৌর এলাকার সিএন্ডবি মাদরাসাপাড়ার রবিউল ইসলামের ছেলে।
একইভাবে ঘুমন্ত অবস্থায় সাপে দংশন করে গাংনী উপজেলার শেওড়াবাড়িয়া গ্রামের স্বপ্নাকে। তাকে উদ্ধার করে নেয়া হয় বিভিন্ন ওঝার কাছে। সেখানে ঝাড়ফুঁকের এক পর্যায়ে স্বপ্নার অবস্থার অবনতি হলে সকাল ৮টার দিকে নেয়া হয় চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সকাল সাড়ে ১০টার দিকে স্বপ্নার মৃত্যু হয়। চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগে দায়িত্বরত চিকিৎসক ডা. মশিউর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। নিহত স্বপ্না খাতুন (১৭) গাংনী উপজেলার শেওড়াবাড়িয়া গ্রামের সুমন মিয়ার মেয়ে। গত বৃহস্পতিবার অপর ঘটনায় নাজমা নামের আরেক ৮ম শ্রেনীর স্কুল ছাত্রীর মৃত্যু হয়।
জানাগেছে, চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে দীর্ঘদিন ধরে অ্যান্টিস্নেকভেনম ইনজেকশন সরবরাহ বন্ধ রয়েছে। ফলে একেকটি অ্যান্টিস্নেকভেনম ইনজেকশন বাইরে থেকে ১ হাজার টাকা দিয়ে কিনতে হয়। টাকার অভাবে সময়মত ইনজেকশন  কিনতে না পারায় রোগী মৃত্যুর ঘটনা বাড়ছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ