ঢাকা, শুক্রবার 29 September 2017, ১৪ আশ্বিন ১৪২8, ০৮ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

চট্টগ্রামে হোল্ডিং ট্যাক্স লাগামহীন বৃদ্ধির প্রতিবাদ বিএইচআরএফ-এর

চট্টগ্রাম অফিস : চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের গৃহ কর লাগামহীন ভাবে বৃদ্ধির প্রতিবাদ জানিয়ে তা নগরবাসীর সহনীয় পর্যায়ে আনতে নগরপিতার হস্তক্ষেপে দাবি করেছে মানবাধিকার সংগঠন বাংলাদেশ হিউম্যান রাইটস ফাউন্ডেশন - বিএইচআরএফ নেতৃবৃন্দ।
 সংস্থার জাতীয় কমিটির পরিচালক (অর্গানাইজিং) ও চট্টগ্রাম চ্যাপ্টার সভাপতি এডভোকেট জিয়া হাবীব আহ্সান ও পরিচালক (পাবলিসিটি এন্ড কমিউনিকেশান) ও চট্টগ্রাম চ্যাপ্টার সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট মোহাম্মদ শরীফ উদ্দিন সহ চট্টগ্রাম মহানগরীর ১৪টি শাখার ২৮ জন সভাপতি/ সেক্রেটারি ও ৫০ জন মানবাধিকার আইনজীবী প্রদত্ত এক যৌথ বিবৃতিতে উক্ত দাবি জানানো হয়।
বিবৃতিতে মানবাধিকার নেতৃবৃন্দ আরো বলেন, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের হোল্ডিং ট্যাক্স ১০ থেকে ৫০ গুণ পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হয়েছে যা নজীর বিহীন। এতে নাগরিকগণ ক্রমান্বয়ে ‘বাস্তুহারা’ হয়ে পড়বে। ১০-৫০/১০০ গুণ ট্যাক্স বৃদ্ধি করে আপীলের সুযোগ থাকা এবং ৪০% পর্যন্ত আপীলে কমানোর বিষয়টি নাগরিকদের অনেকটা ধোঁকা দেয়ার শামীল। অতীতে বর্গ ফুটের ভিত্তিতে কর ধার্য্য করা হতো, বর্তমানে ভাড়া দিলে কত টাকা ভাড়া যাবে তৎ ভিত্তিতে কর ধার্য্য করায় এ অসঙ্গতির সৃষ্টি হয়। জোয়ারের পানি যে সব এলাকায় ঘরে প্রবেশ করে, বসবাসের অনুপযুক্ত হয়ে পড়েছে এবং পুরাতন সংস্কারবিহীন দালানের ট্যাক্স আর নবনির্মিত বিলাস বহুল ফ্ল্যাট ও দালানের ট্যাক্স একই হারে ধরা হয়েছে। নিজে বসবাসের গৃহেও বৃদ্ধির হার অবর্ণনীয়। মানবাধিকার নেতৃবৃন্দ অস্বাভাবিক কর বৃদ্ধি বন্ধ করে সরকারি আধা সরকারি প্রতিষ্ঠানের শত কোটি টাকা বকেয়া কর আদায় সহ অপব্যয় রোধ এবং মানসম্মত উন্নয়ন কাজের তাগেদা দেন মেয়রকে। তারা বলেন, পুরো মহানগরী জঞ্জাল, দুর্গন্ধ, মশা, মাছি উপদ্রুত জঞ্জালের শহরে পরিণত হয়েছে। দেওয়ান বাজার, হালিশহর, বাকলিয়া, চকবাজার প্রভৃতি নগরীর বিস্তীর্ণ এলাকা জোয়ারের পানি উঠে ঘরের নীচতলা বসবাসের অনুপযুক্ত হয়ে পড়েছে। নগরবাসী পৌরকরের অস্বাভাবিক বৃদ্ধির বোঝায় নগরবাসীর উৎকণ্ঠা লাঘবে নগরপিতার জরুরি হস্তক্ষেপ ও বলিষ্ট ভূমিকা প্রত্যাশা করেন। তারা বলেন, ‘আমদানি রপ্তানি সহ বন্দরনগরী চট্টগ্রামের বিপুল আয় থেকে প্রয়োজনে এ মহানগরী উন্নয়নে ভর্তুকি প্রদানের দাবি রাখে।’ চট্টগ্রামের মন্ত্রী এম পি দেরকেও এ ব্যাপারে যুগপৎ ভূমিকা রাখার দাবি জানান বিবৃতি দাতারা।
 বিবৃতিদাতা শাখা নেতৃবৃন্দ ও প্যানাল আইনজীবী যথাক্রমে- কোতোয়ালী থানার সভাপতি এডভোকেট মোহাম্মদ আবুল খায়ের, সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ আজহার উদ্দিন, চান্দগাঁও থানার সভাপতি এডভোকেট নুরুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক জসীম উদ্দিন সরকার, পাঁচলাইশ থানার সভাপতি সিরাজউদ্দৌলা, সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট আবু বক্কর তালুকদার, কর্ণফুলী থানার সভাপতি মোঃ ফোরকান আল হামিদী, সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক সজীব আহমদ, পতেঙ্গা থানার সভাপতি আলহাজ্ব মোঃ রিদওয়ানুল বারী, সাধারণ সম্পাদক নাসিরুল আনোয়ার মানিক, বাকলিয়া থানার সভাপতি এডভোকেট মোঃ আবদুচ ছত্তার, সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ জসীম উদ্দিন, ডবলমুরিং থানা সভাপতি এডভোকেট আনোয়ারা আলী, সাধারণ সম্পাদক এরশাদ আলম, খুলশী থানা সভাপতি আব্দুল আজিজ, সাধারণ সম্পাদক মোঃ কামরুল হুদা, হালিশহর থানা সভাপতি মোঃ নাসির উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট সৈয়দ মোহাম্মদ হারুন, পাহাড়তলী থানা সভাপতি ইউসুফ চৌধুরী, বন্দর থানা সভাপতি মিসেস সফিনা আমিন, সাধারণ সম্পাদক মোঃ আখতার হোসেন, বায়েজিদ থানা সভাপতি শামসুল আলম, সাধারণ সম্পাদক শাহেলা সামাদ রুবি এবং মানবাধিকারকর্মীবৃন্দ যথাক্রমে এডভোকেট সাইফুদ্দিন খালেদ, হাসান-আন-বান্না, শান্তনু চৌধুরী।
 বিবৃতিদাতারা বলেন, নির্বাচনী অঙ্গীকার ভঙ্গ করে ট্যাক্স বৃদ্ধি কল্যাণ রাষ্ট্রের বৈশিষ্ট্য নয়। তারা অবিলম্বে পৌর ট্যাক্স নামের খড়গ জনগণের উপর না চালাতে সরকারের প্রতি উদাত্ত আহ্বান জানান। বিবৃতিদাতারা মেয়রকে উদ্দেশ্য করে আরো বলেন, মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে নগরবাসী আপনাকে পাশে পেতে চায়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ