ঢাকা, শনিবার 30 September 2017, ১৫ আশ্বিন ১৪২8, ০৯ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

মাত্র এক রানের জন্য ডাবল সেঞ্চুরি মিস এলগারের

স্পোর্টস রিপোর্টার : মাত্র এক রানের জন্য টেস্টে প্রথম ডাবল সেঞ্চুরি করতে পারলেননা ওপেনার ডিন এলগার। গতকাল শুক্রবার বাংলাদেশের বিপক্ষে নার্ভাস নাইন্টিজের শিকার হয়ে এলগার ফিরেন ১৯৯ রানে।  মেহেদী হাসান মিরাজের বলটি আরেকটু ঘুরলেই স্ট্যাম্পড হয়ে যেতেন ডিন এলগার। বলটি ব্যাটের কোণায় লেগে চলে যায় থার্ড ম্যান অঞ্চলে। ৩ রান নিয়ে এলগার পৌঁছে যান ১৯৮ রানে। ওই ওভারে আরও ১ রান নিয়ে ডাবল সেঞ্চুরির পথে এগিয়ে যান বাঁহাতি ওপেনার। কিন্তু কে জানত পরের ওভারে ওই রানেই শেষ হবে তার ম্যারাথন ইনিংস। মোস্তাফিজের স্কোয়ার শর্ট বল ব্যাটের কানায়লেগে মিড উইকেটে উঠে যায়। মুমিনুলের হাতে বল জমা হওয়ার আগেই বাংলাদেশ শিবিরে উল্লাস। তবে ভিন্ন চিত্র স্বাগতিক শিবিরে। হতাশ সবাই। ৩৮৮ বলে ১৫ চার ও ৩ ছক্কায় সাজানো ১৯৯ রানের ইনিংসটি থেমে যায়। ক্যারিয়ারের সর্বোচ্চ রানের ইনিংসটি এভাবে শেষ হবে তা হয়ত ভাবতেও পারেননি এলগার। প্রথম দক্ষিণ আফ্রিকান ক্রিকেটার হিসেবে ১৯৯ রানে আউট হলেন তিনি। এটাই তার ক্যারিয়ারের সর্বোচ্চ ইনিংস। এর আগে বাঁহাতি এ ব্যাটসম্যানের টেস্টে সর্বোচ্চ রান ছিল ১৪০। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে চলতি বছর ডুনেডিনে করেছিলেন এ রান। গতকাল মেহেদী হাসান মিরাজের বল লং অন দিয়ে হাওয়ায় ভাসিয়ে বল বাউন্ডারির বাইরে পাঠিয়ে ১৪৭ থেকে ১৫৩ তে পৌঁছান ডিন এলগার। ক্যারিয়ারে প্রথমবারের মতো দেড়শ করেন এলগার। আর অপেক্ষা করেছিলেন ডাবল সেঞ্চুরির জন্য। ডাবল সেঞ্চুরির দ্বাপ্রান্তেও পৌছে গিয়েছিলেন। কিন্ত  শেষ রক্ষা হয়নি তার। মাত্র এক রানের জন্য করতে পারণেনা ডাবল সেঞ্চুরি। বাংলাদেশের বিপক্ষে উদ্বোধনী জুটিতে ব্যাট করতে নেমেছিলেন মার্করাম ও এলগার । এই জুটিতে তারা করেছিলেন ১৯৬ রান। মার্করাম ৯৭ রান করে আউট হলেও প্রথম দিনে সেঞ্চুরিসহ ১২৮ রানে ব্যাটিংয়ে ছিলেন তিনি। আর হাশিম আমলাকে নিয়ে গতকাল দলকে নিয়ে যান ৪১১ রানে। আমলা ১৩৪ রান করে আউট হওয়ার পর দলীয় ৪৪৫ রানে আউট হন তিনি। এলগার ১৯৯ রানে আউট হলেও দলকে নিয়ে গেছেন বিশাল স্কোরে। তার ১৯৯ রানের উপর নির্ভর করেই দক্ষিণ আফ্রিকা তিন উইকেটে ৪৯৮ রান করে ইনিঙস ঘোষণা করেছে। চলতি বছরটা দারুণ কাটছে প্রোটিয়া ওপেনার ডিন এলগারের। ১০ ম্যাচে ১৮ ইনিংসে ৯৬৬ রান করেছেন বাঁহাতি এ ওপেনার। বাংলাদেশের বিপক্ষে সেঞ্চুরিসহ মোট ৪টি সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছেন। হাফ সেঞ্চুরি আছে ৪টি। মোস্তাফিজুর রহমানের বলে ১৯৯ রানে আউট না হলে ক্যারিয়ারের প্রথম ডাবল সেঞ্চুরির স্বাদ পেতেন বাঁহাতি ওপেনার। কিন্তু হতে গিয়েও হলো না ডাবল সেঞ্চুরিটি। ক্রিকেট যে এক নিষ্ঠুর খেলা তা যেন পচেফস্ট্রুমে আরেকবার প্রমাণিত হল। নার্ভাস নাইন্টিজে এসে বেশ নড়বড়ে ছিলেন এলগার। ১৯৫ রানে এগিয়ে এসে মারতে গিয়ে প্রায় বেঁচে যান। কিন্তু ৪ রান যোগ হওয়ার পর নিজের উইকেট বাঁচতে পারেননি। ক্যারিয়ার সেরা ইনিংসটি থেমে যায় ১৯৯ রানে। তবে তার জন্য এটা একটু শান্তনা হতে পারে তিনি একাই এই স্কোরে এসে আউট হননি। এর আগে আরো ১১ জন ক্রিকেটার এই স্কোরে এসে আউট হয়েছেন। আর ১২তম ক্রিকেটার হিসেবে ১৯৯ রানে আউট হলেন এলগার।  তবে প্রথম দক্ষিণ আফ্রিকান ক্রিকেটার হিসেবে ১৯৯ রানে আউট হয়ে রেকর্ড বুকে নিজের নাম তুললেন এলগার।
১৯৯ রানে আউট হওয়া অন্যান্য ক্রিকেটাররা হলেন : মোদাচ্ছের নজর (পাকিস্তান),  মোহাম্মদ আজহারউদ্দিন (ভারত), ম্যাথু এলিয়ট (অস্ট্রেলিয়া), সনাৎ জয়াসুরিয়া (শ্রীলঙ্কা), স্টিভ ওয়াহ (অস্ট্রেলিয়া), অ্যান্ডি ফ্লাওয়ার (জিম্বাবুয়ে), ইউনিস খান (পাকিস্তান), ইয়ান বেল (ইংল্যান্ড), কুমার সাঙ্গাকারা (শ্রীলংকা), স্টিভেন স্মিথ (অস্ট্রেলিয়া), লোকেশ রাহুল (ভারত)।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ