ঢাকা, শনিবার 30 September 2017, ১৫ আশ্বিন ১৪২8, ০৯ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

ভোলার শ্রেষ্ঠশিক্ষক মিরাজ উদ্দিন

বরিশাল ব্যুরো: ২০১৭ সালে ভোলা জেলার শ্রেষ্ঠ প্রাথমিক শিক্ষক মনোনীত হয়েছেন বোরহানউদ্দিন উপজেলার ৪০ নং পদ্মামনসা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক মিরাজ উদ্দিন। ভোলা জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার নিখিল চন্দ্র হালদার স্বাক্ষরিত ১৭২৬ নম্বর স্মারক সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।
ছাত্রজীবনে কৃতিত্বপূর্ণ ফলাফল আর্জনকারী মোঃ মিরাজ উদ্দিন ২০০৬ সালের ০২ জুলাই প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক হিসেবে চাকুরিতে যোগ দেন। ২০০৭-২০০৮ সালে ভোলা পিটিআই থেকে প্রথম বিভাগে সিইনএড উত্তীর্ন হন। ২০১৪ সালে বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষাবোর্ডের অধীনে কম্পিউটার অফিস অ্যাপ্লিকেশন কোর্সে জিপিএ ৫ পান তিনি। ২০১৬ সালে ভোলা পিটিআই থেকে আইসিটি কোর্স সম্পন্ন করার পাশাপাশি চারু ও কারুকলা বিষয়ের ট্রেইনার হিসেবে কাজ করছেন মিরাজ।
মোঃ মিরাজ উদ্দিন ৪০নং পদ্মামনসা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যোগদানের পর থেকেই পাল্টে যায় স্কুলের সার্বিক শিক্ষার মান। এগিয়ে যায় সার্বিক উন্নয়ন কার্যক্রম। পরীক্ষার ফলাফলেও আসে ব্যাপক পরিবর্তন। গত কয়েক বছর যাবত প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষায় বোরহানউদ্দিন উপজেলার মধ্যে সবচেয়ে বেশি সংখ্যক বৃত্তি পায় এ স্কুলের ছাত্রছাত্রীরা। আর এই সাফল্যের নেপথ্যের কারিগর হিসেবে কাজ করছেন শিশুবান্ধব শিক্ষক মিরাজ উদ্দিন। খেলাধুলা, ছবি আঁকা, চারু-কারু প্রশিক্ষণ, স্কুল সাজানো, মিড ডে মিল চালু করণ- কোথায় নেই শিক্ষার্থীদের প্রিয় মিরাজ স্যার? সবখানেই যার সরব পদচারণা সেই মিরাজ স্যার এবার বোরহানউদ্দিন উপজেলার গন্ডি পেরিয়ে এবার জেলা পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ শিক্ষক মনোনীত হওয়ায় দারুন খুশি ৪০নং পদ্মামনসা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক প্রবীর কুমার দে সহ অন্যান্য সহকারি শিক্ষক এবং স্কুলের শিক্ষার্থীরা।  যেসব দিক বিবেচনায় মোঃ মিরাজ উদ্দিন ভোলা জেলার শ্রেষ্ঠ প্রাথমিক শিক্ষক মনোনীত হয়েছেন তার মধ্যে রয়েছে ৪০নং পদ্মামনসা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের  বিদ্যালয়ের সম্মুখ ভাগে স্বহস্তে বর্ণমালা লিখন, বিদ্যালয়ের সময় সূচী লিখন, দেয়ালের বিভিন্ন অংশে বাণী লিখন, শ্রেণিকক্ষের নামকরণ, শ্রেণীকক্ষের সামনে মনীষীদের ছবি অংকন, বিদ্যালয়ের সকল বিদ্যুতের কাজ স্বহস্তে করণ, যথাসময়ের পূর্বেই বিদ্যালয়ে আগমন এবং বিদ্যালয় ছুটির ৩-৪ ঘন্টা পরও অবস্থান করে উন্নয়ন মূলক কাজ করণ, বৃত্তি প্রার্থী শিক্ষার্থীদের নিয়ে সারা বছর বিশেষ ফ্রি ক্লাস গ্রহণ, চারু ও কারুকলার বিশেষ কøাস গ্রহণ, জাতীয় ফুল-ফল, জাতীয় পাখি, জাতীয় স্মৃতিসৌধ, শহীদ মিনার, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবি ইত্যাদি আঁকা অত্যন্ত সহজ পদ্ধতিতে শিক্ষার্থীদের শিক্ষাদান, শিশুদের নিয়ে ফুলের বাগান তৈরী ও রক্ষণাবেক্ষণ, শিক্ষার্থীদের নিয়ে জাতীয় দিবসগুলো বিশেষভাবে উদযাপন। তারই অংশ হিসেবে স্বাধীনতা দিবস-১৭ এ উপজেলা পর্যায়ে ডিসপ্লে প্রদর্শনে ১ম স্থান অধিকার, ঝরে পড়া রোধ করার জন্য বাড়ি বাড়ি গিয়ে অভিভাবকদের সাথে বিশেষ ক্যাম্পেইন ও বিদ্যালয়কে আনন্দমূখর করার জন্য সাপ্তাহিক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজন, বিদ্যালয়ে বিভিন্ন শ্রেণির প্রচুর উপকরন তৈরী ও সংগ্রহ, বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা গোল্ড কাপ-১৭ এর উপজেলা পর্যায়ের ফাইনাল খেলায় রেফারির দায়িত্ব পালন, বোরহানউদ্দিন উপজেলা শিল্পকলা একাডেমির চারু ও কারুকলা বিভাগের প্রশিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন, ইউ.আর.সি বোরহানউদ্দিন এর চারু ও কারুকলা বিভাগের প্রশিক্ষক ও ২ টি ব্যাচে প্রশিক্ষকের দায়িত্ব পালন,  গণিত, ইংরেজি, বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয় ও মার্কিং স্কিম এ ইউ.আর.সি থেকে প্রশিক্ষণ গ্রহণ, বিদ্যালয়ে কাব কার্যক্রম সক্রিয়করণ, বৃক্ষরোপণ কার্যক্রমে সক্রিয় ভূমিকা পালন, মা সমাবেশ-অভিভাবক সমাবেশসহ বিভিন্ন উদ্বুদ্ধকরণ সমাবেশে উদ্যোগী ভুমিকা পালন, বছরে সবচেয়ে কম ছুটি গ্রহণ, হাতের তৈরী বিভিন্ন কাজ দিয়ে বিদ্যালয় সজ্জিত করণ।
মিরাজ উদ্দিন ২০১৭ সালে ভোলা জেলায় শ্রেষ্ঠশিক্ষক মনোনীত হওয়ায় ৪০ নং পদ্মামনসা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধানশিক্ষক প্রবীর কুমার দে বলেন, আমার স্কুলের সহকারি শিক্ষক মিরাজ উদ্দিন বোরহানউদ্দিন উপজেলায় শ্রেষ্ঠ শিক্ষক হওয়ার পর এবার ভোলা জেলা পর্যায়েও শ্রেষ্ঠশিক্ষক মনোনীত হওয়ায় আমরা আনন্দিত। প্রকৃত পক্ষে তিনি একজন সাদামনের মানুষ। একজন শিক্ষকের মধ্যে যেসব গুণাবলী থাকা দরকার- তার মধ্যে সবকিছুই পরিপূর্ণভাবে রয়েছে বলে আমি মনে করি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ