ঢাকা, মঙ্গলবার 3 October 2017, ১৮ আশ্বিন ১৪২8, ১২ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

অপ্রস্তুত মাঠেই পেশাদার ফুটবল লিগ আবারো শুরু

স্পোর্টস রিপোর্টার: দীর্ঘ ১৭ দিন বিরতির পর বাংলাদেশ প্রিমিয়ার ফুটবল লিগ ঢাকা আবাহনী-ব্রাদার্সের মধ্যকার ম্যাচ দিয়ে আবারো মাঠে গড়ালো। বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামের যে মাঠে খেলা শুরু হলো তা কতটা খেলার উপযোগী তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। এতদিন বিরতির পরও ক্লাবগুলোকে খেলতে হচ্ছে অপ্রস্তুত মাঠে। বড় বড় ঘাস। ঘাসের নিচে কোথাও কাদা, কোথাও ছুপছুপ পানি। খেলা শুরুর নির্ধারিত সময়ের পরও মাঠকর্মীরা চুনের দাগ দিয়ে মাঠের বিভিন্ন সীমানা নির্ধারণ করছিলেন। তাই তো বল মাঠে গড়াতে বিলম্ব ৭ থেকে ৮ মিনিট। তারচেয়ে ও বড় কথা স্টেডিয়ামের দর্শক গ্যালারীর চেয়ারগুলো হটাৎ করেই ভেঙ্গে চুরমার হয়ে গেল। বৃষ্টিতে চেয়ার ভঙ্গার কথা তো নয়।তাহলে চেয়ারগুলো ভাংলো কীভাবে? চেয়ারগুলোর অবস্থা দেখে সহজেই বোঝা যাচ্ছে কাজটি হয়তো টেন্ডারবাজদের। গ্যালারীর প্রতিটি চেয়ারই একই কায়দায় ভাঙ্গা হয়েছে। গতকাল সোমবার আবাহনী-ব্রাদার্সের মধ্যকার ম্যাচের শুরুর আগে মাঠের সার্বিক অবস্থা দেখে বাফুফের সদস্য আবাহনী ফুটবল দলের ম্যানেজার সত্যজিৎ দাস রুপু ক্ষোভ প্রকাশ করলেন। ক্ষোভ ঝারলেন ক্রোয়েশিয়ান কোচ দ্রাগো মামিচও,বললেন ‘এ মাঠে কিভাবে ভাল খেলা সম্ভব। আবাহনীর টেন্টে খেলোয়াড়রা বসে আছেন নিচে। কেন? দলের সিনিয়র খেলোয়াড় প্রানতোষ কুমার দাস বললেন, ‘আপনারাই দেখে বলুন আমরা কোথায় বসবো। সব চেয়ার যে ভাঙ্গা!’ অভিযোগ অসত্য নয়, টেন্টের চেয়ারে বসার কোনো অবস্থা নেই। চেয়ারগুলো ভেঙ্গে কঙ্কাল হয়ে আছে। মাঠের এ অবস্থা কেন? এই প্রসঙ্গে বাফুফের গ্রাউন্ডস কমিটির চেয়ারম্যান ফজলুর রহমান বাবুল বললেন, ‘লিগ বিরতির সময় আমরা পানি আর সার দিয়ে ঘাস সবুজ করেছিলাম; কিন্তু গত দুই দিনের বৃষ্টির জন্য মাটি নরম হওয়ায় ঘাস কাটা সম্ভব হয়নি। এব্যাপারে বাফুফে সাধারণ সম্পাদককে জানালেও কোন সিদ্ধান্ত পাওয়া যায়নি। তাই এই মাঠেই খেলা চালাতে হচ্ছে।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ