ঢাকা, মঙ্গলবার 3 October 2017, ১৮ আশ্বিন ১৪২8, ১২ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

আগামী সংসদ নির্বাচন হবে কিনা আশঙ্কা আছে -গয়েশ্বর

গতকাল সোমবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি মিলনায়তনে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল সুইডেন শাখার উদ্যোগে অবাধ, নিরপেক্ষ ও গ্রহণযোগ্য জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠানে আন্তর্জাতিক পর্যবেক্ষণ মিশনের গুরুত্ব শীর্ষক আলোচনা সভার আয়োজন করা হয় -সংগ্রাম

স্টাফ রিপোর্টার : দলের সদস্য সংগ্রহ অভিযান কর্মসূচির সময়কাল আবারো এক মাস বাড়িয়েছে বিএনপি। এটি দলটির দ্বিতীয় দফা বৃদ্ধি। গতকাল সোমবার দুপুরে এক অনুষ্ঠানে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী দলের এই সিদ্ধান্তের কথা জানান। তিনি বলেন, আমাদের দলের সাংগঠনিক কর্মকান্ড অব্যাহত রাখার জন্য দলের প্রাথমিক সদস্য সংগ্রহ ও পুরনো সদস্য নবায়ন কর্মসূচি সারাদেশে চলছে। এই কর্মসূচি দুই মাস ছিলো তা আমরা এক মাস বৃদ্ধি করেছিলাম সেটাও গতকাল শেষ হয়েছে। আমরা নির্দেশ পেয়েছি এটা আরো এক মাস বৃদ্ধি করা হয়েছে আগামী ১ নবেম্বর পর্যন্ত। গতকাল সোমবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি কার্যালয়ে সুইডেন বিএনপি শাখার উদ্যোগে ‘অবাধ, নিরপেক্ষ ও গ্রহনযোগ্য সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠানে আন্তর্জাতিক পর্যবেক্ষক মিশনের গুরুত্ব’ শীর্ষক এই আলোচনা সভা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়।
সুইডেন বিএনপি শাখার উপদেষ্টা মিজান চৌধুরীর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বরকত উল্লাহ বুলু, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, সমাজ কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক কামরুজ্জামান রতন প্রমুখ নেতারা বক্তব্য রাখেন।
রিজভী তার বক্তব্যে কেনো সময়কাল আবারো বাড়ানো হয়েছে তার কারণ ব্যাখ্যা না করলেও দলের দপ্তর থেকে খোঁজ-খবর নিয়ে জানা গেছে, সরকারের বাধার মুখে লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত না হওয়ায় কর্মসূচির মেয়াদ দ্বিতীয় দফা বাড়ানো হয়েছে। গত ১ জুলাই বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া দলের সদস্য সংগ্রহের দুই মাসব্যাপী কর্মসূচির উদ্বোধন করেন। অনুষ্ঠানের উদ্বোধন খালেদা জিয়া বলেছিলেন, ‘‘ আমাদের সদস্য সংগ্রহ অভিযানে এবারের লক্ষ্য মাত্রা হচ্ছে ১ কোটি। সদস্য সংগ্রহের অভিযানের কর্মসূচিটি ১ সেপ্টেম্বর শেষ হলেও লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত না হওয়ায় আবারো এক মাস অর্থাৎ ১ অক্টোবর পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছিলো। দপ্তর থেকে জানা গেছে, গতকাল পর্যন্ত প্রায় ৭০ লাখ ফরম বিক্রি হয়েছে। প্রতিটি ফরমের দাম রাখা হয়েছে ১০ টাকা। সেই হিসেবে প্রায় ৭ কোটির মতো অর্থ বিএনপির তহবিলে জমা পড়েছে। বিএনপির একাধিক নেতার সঙ্গে আলাপ করে জানা গেছে, কক্সবাজারে রোহিঙ্গা শরনার্থী সংকট ও উত্তরাঞ্চলসহ ২৭টি জেলায় ব্যাপক বন্যার কারণে সদস্য সংগ্রহের কর্মসূচি বাধাগ্রস্থ হয়েছে।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে আগামী সংসদ নির্বাচন হবে কিনা তার নিয়ে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়। তিনি বলেন, আমি বলব, আন্দোলন বা সংগ্রামের কোনো বিকল্প নাই। আগামী নির্বাচন অনিশ্চিত, অনিশ্চিত। কারণ এমন কোনো দেশি-বিদেশি শক্তিকে শেখ হাসিনা আশ্বস্ত করতে পারেন নাই যে, ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির মতো একতরফা নির্বাচন করতে গেলেও মাঠ থেকে সে ফেরত আসতে পারবে।  সুতরাং আমরা ক্ষমতায় যাই বা না যাই এই সরকারের আয়ু বেশি দিন নাই। এখন সরকার যাবে সেই যাওয়ার পেছনে আপনাদের কোনো অবদান আছে কিনা জনগনের মাঝে তা যদি দৃশ্যমান না করেন ফলাফল আপনাদের গোলায় নাও আসতে পারে।
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবাদুল কাদেরের বক্তব্যের কঠোর সমালোচনা করে তাকে ‘তামাশা ম্যান’ বলেছেন রুহুল কবির রিজভী। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের সংস্কৃতি হচ্ছে প্রতিহিংসা-প্রতিশোধ এবং প্রধান বিরোধী দলের প্রতি সকাল-সন্ধ্যা অনর্গল মিথ্যাচার করা। উত্তর কোরিয়ার শাসককে আমেরিকান প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প (ডোনাল্ড ট্রাম্প) বলেছেন, রকেট ম্যান। আর বাংলাদেশে অরাজনৈতিক, অপসংস্কৃতির যত ধরণের সংস্কৃতি তৈরি করা দরকার সেটা করেছেন প্রধানমন্ত্রী আর তার ‘তামাশা ম্যান’ হচ্ছেন ওবায়দুল কাদের। শেখ হাসিনার সকল ধরনের অনাচারকে তিনি (ওবায়দুল কাদের) সত্য হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করার জন্য একজন উন্নতমানের ফেরীওয়ালার ভুমিকা পালন করছেন, হকারের ভুমিকা পালন করছেন। রাস্তা-ঘাট সব ঠিক বলছেন। বাস্তবে রাস্তাঘাটের কী ভয়ংকর অবস্থা। অর্থাৎ ওবায়দুল কাদেররা যা বলবেন ঠিক তার উল্টোটা জনগনে বিশ্বাস করতে হবে, উল্টোটা বিশ্বাস করলে সত্যটা পাবেন। এটাই আওয়ামী লীগের সংস্কৃতি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ