ঢাকা, মঙ্গলবার 3 October 2017, ১৮ আশ্বিন ১৪২8, ১২ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

ভেড়ামারায় মধুমতি ট্রেনের ৩টি বগি লাইনচ্যুত

ভেড়ামারা (কুষ্টিয়া) সংবাদদাতা : কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা রেলস্টেশনের কাছে গোয়ালন্দঘাট থেকে ছেড়ে আসা রাজশাহীগামী মধুমতি এক্সপ্রেসের ইঞ্জিনসহ ৩টি বগি লাইনচ্যুত হয়। আপ লাইনে থাকা ট্রেনটি লাইনচ্যুত হয়ে ডাউন লাইনে ছিটকে পড়ার ফলে দক্ষিণবঙ্গের সাথে সারা দেশের ট্রেন যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়। ফলে চরম দুর্ভোগের মুখে পড়ে ট্রেনে থাকা সহস্রাধিক যাত্রী এবং রেলওয়ের অন্য যাত্রীরা। ত্রুটিপূর্ণ রেললাইনের জন্য এ দুর্ঘটনা ঘটেছে বলে ট্রেনের চালক এবং স্থানীয়রা প্রাথমিকভাবে মত দিয়েছেন।
ভেড়ামারা রেলওয়ে স্টেশন মাস্টার শামসুল আলম জানান, সন্ধ্যা ৬টা ১৫ মিনিটে ভেড়ামারা স্টেশনে পৌঁছার কথা ছিল মধুমতি এক্সপ্রেসের। কিন্তু ১ ঘন্টা বিলম্বে ৭টা ১৫ মিনিটের দিকে ট্রেনটি ভেড়ামারায় প্রবেশের মুখে রেল ক্রসিংয়ে দূর্ঘটনা কবলিত হয়। এসময় ট্রেনের ইঞ্জিনসহ ৩টি বগি লাইনচ্যুত হয়ে পড়ে। আপ লাইনে থাকা ট্রেন টি ছিটকে পড়ে ডাউন লাইনে। ট্রেনের গতি ধীর থাকায় প্রাণে বেঁচে যায় যাত্রীরা।
আন্তঃনগর মধুমতি এক্সপ্রেস ট্রেনের চালক বিপ্লব কুমার সরকার জানিয়েছেন, সিগন্যাল ক্লিয়ার পেয়ে আমি ক্রসিংয়ে ট্রেন নিয়ে প্রবেশ করি। কিন্তু ত্রুটির্পূণ রেললাইনের কারণে ইঞ্জিনের পিছনে থাকা বগি রেল লাইনে বাধাপ্রাপ্ত হয় বিকট শব্দে। ফলে ট্রেনটি দুর্ঘটনায় পতিত হয়। ট্রেনের গতি ধীর থাকায় বড় ধরনের দুর্ঘটনা থেকে বেঁচে যায় যাত্রী সাধারণ।
প্রত্যক্ষদর্শী স্থানীয় যুবক রায়হান জানান, ট্রেনটি স্বাভাবিক গতিতেই আসছিল। হঠাৎ বিকট শব্দ শুনতে পাই এবং দেখি ট্রেনটি লাইনচ্যুত হয়ে অন্য লাইনে ছিটকে পড়েছে। তিনি বলেন, ত্রুটিপূর্ণ রেললাইনের কারণে এ দুর্ঘটনা ঘটে। এ জন্য তিনি রেল লাইন মেইনটেন্সে থাকা পি ডব্লিউ আই-কে দায়ী করেন। ফলে চরম দুর্ভোগে পড়ে ট্রেনের যাত্রীরা। ট্রেনের যাত্রী আরিফুল ইসলাম ছেলেমেয়ে নিয়ে রাজশাহী যাচ্ছিলেন। পথে ট্রেনটি দূর্ঘটনা কবলিত হওয়ায় তিনিসহ সহস্রাধিক যাত্রী চরম দুর্ভোগে পড়েন।
এ দিকে রাত ১২টার দিকে রিলিপ ট্রেন উদ্ধার অভিযান শুরু করে। রাত দেড়টার দিকে ডাউন লাইন থেকে ট্রেনটি সরিয়ে সীমিত আকারে ট্রেন চলাচল শুরু হয়। দ্বিতীয় দফা উদ্ধার অভিযান শুরু করে রোববার সকালে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ