ঢাকা, বুধবার 4 October 2017, ১৯ আশ্বিন ১৪২8, ১৩ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

রাজারহাটে কালুয়া কমিউনিটি ক্লিনিক ভেঙে যাওয়ায় চিকিৎসা সেবা ব্যাহত

রাজারহাট (কুড়িগ্রাম) সংবাদদাতা: কুড়িগ্রামের রাজারহাটে কালুয়ার চরে অবস্থিত একমাত্র কমিউিনিটি ক্লিনিকটি বন্যার পানির স্রোতে ভেঙ্গে পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় ওই এলাকার প্রায় ৬হাজার মানুষ স্বাস্থ্য সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। ফলে ঝুঁকিপূর্ণভাবেই পরিবার পরিজন নিয়ে বসবাস করতে হচ্ছে। অপরদিকে ক্লিনিকের পরিবর্তে একটি ক্লাবে সেবাদান করা হচ্ছে বলে দাবী করেছে স্বাস্থ্যসেবাদানকারীরা।
২৫ সেপ্টেম্বর সকালে কালুয়ার চর এলাকার কয়সার আলী, মনতাজ,আইয়ুব আলী, মেহের জামাল, শমসের আলী সহ অনেকে বলেন, উপজেলার ছিনাই ইউনিয়নের ধরলা নদীর অদুরে কালুয়ার চর এলাকায় চরাঞ্চলের ৬হাজার মানুষের স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করতে একটি কমিউনিটি ক্লিনিক তৈরি করে চিকিৎসা সেবা চালু করা হয়। কালুয়া চর থেকে রাজারহাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্্েরর দুরত্ব ২০কিলোমিটার এবং কুড়িগ্রাম সদর হাসপাতালের দুরত্ব আরো বেশী হওয়ায় ওই এলাকার মানুষ অসুস্থ্য হয়ে পড়লে কোথাও চিকিৎসা নেয়ার পথ খুঁজে পায় না। ফলে অনেক রোগীকেই অকালেই না ফেরার দেশে চলে যেতে হয়েছে। কিন্তু সম্প্রতি শ^রণকালের ভয়াবহ বন্যায় পানির প্রবল স্্েরাতে কমিউনিটি ক্লিনিকসহ শতশত ঘরবাড়ী বিলীন হয়ে যায়। দূযোর্গপূর্ণ ওই এলাকায় চরম ঝুঁকিতে পড়ে বানভাসি মানুষ। বন্যা পরবর্তীতে ওই সব এলাকায় বিশুদ্ধ পানির চরম সংকট দেখা দেয়ায় বাধ্য হয়েই পানি পান করে এবং পঁচাসড়ার দুর্গন্ধে মানুষ অসুস্থ হয়ে পড়ে। ডায়রিয়া আমাশয় সহ নানা রোগে আক্রান্ত হতে থাকে। এসময় সরকারী ভাবে পর্যাপ্ত ওষধ সরবরাহ করা হলেও স্টক করার মতো কোন নিদিষ্ট জায়গা ছিল না। ছিল না কালুয়া কমিউনিটি ক্লিনিকটি। এ কারণে স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চত করতে ওই এলাকার দিশারী নামের একটি ক্লাবে ওষধপত্র রেখে এলাকার মানুষদের চিকিৎসা দেয় হয়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ