ঢাকা, বৃহস্পতিবার 5 October 2017, ২০ আশ্বিন ১৪২8, ১৪ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

ইনজুরির কারণে দ্বিতীয় টেস্ট থেকে তামিমের নাম প্রত্যাহার

স্পোর্টস রিপোর্টার : দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে প্রথম টেস্টে ৩৩৩ রানের বিশাল ব্যবধানে হেরেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। দ্বিতীয় টেস্টে ভালো করে সিরিজ ড্র করার স্বপ্ন ছিল টাইগারদের সামনে। কিন্তু দ্বিতীয় টেস্ট শুরুর আগেই বাংলাদেশ দলের জন্য একটা খারাপ খবর। দ্বিতীয় দলের হয়ে মাঠে নামতে পারবেন না ওপেনার তামিম ইকবাল। ফলে দ্বিতীয় টেস্টে তামিম ইকবালকে ছাড়াই মাঠে নামতে হবে বাংলাদেশ দলকে। ইনজুরির কারণে ইতোমধ্যে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে চলমান সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টেস্ট থেকে নাম প্রত্যাহার করে নিয়েছেন ওপেনার তামিম ইকবাল। সিরিজের আগে বোনোনিতে অনুষ্ঠিত প্রস্তুতি ম্যাচে বাম উরুতে পাওয়া আঘাত আরো বেড়ে যাওয়ায় দ্বিতীয় টেস্ট থেকে নাম প্রত্যাহার করে নিতে বাধ্য হন এ ড্যাশিং ওপেনার। প্রথম টেস্টে পচেফস্ট্রুমে বাংলাদেশের ৩৩৩ রানে পরাজিত হওয়া প্রথম ম্যাচের প্রথম ইনিংসে ৩৯ রান করলেও দ্বিতীয় ইনিংসে শূন্য রানে আউট হন তামিম। প্রথম টেস্টের পর স্ক্যান করলে তার গ্রেড ১ ইনজুরি নিশ্চিত হওয়া গেছে। এ ধরনের ইনজুরি থেকে সেরে উঠতে সাধারণত চার সপ্তাহ সময় লাগে। তবে বাংলাদেশ টিম ম্যানেজমেন্টের আশা তামিম দ্রুত সেরে উঠে ওয়ানডে সিরিজের আগে ফিটনেস পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হবেন। তেমন আশা থেকে তাকে দলের সঙ্গে দক্ষিণ আফ্রিকায় রাখা হচ্ছে। দ্বিতীয় ম্যাচে তামিমের জায়গায় ওপেনার হিসেবে সৌম্য সরকারকে খেলানো হতে পারে। চলমান টেস্ট সিরিজে বিশ্রাম দেয়ায় টাইগার দলে নেই অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। এবার তামিমকে প্রত্যাহার করায় ২০১৩ সালের মার্চের পর প্রথমবার একই ম্যাচে দলের দুই সর্বোচ্চ রান সংগ্রহকারীকে মিস করছে বাংলাদেশ দল। ২০১৩ সালে শ্রীলংকার বিপক্ষে গল টেস্ট মিস করেছিলেন উভয়েই। পক্ষান্তরে আগামীকাল শুরু হওয়া দ্বিতীয় টেস্টে ফার্স্ট বোলার মরনে মরকেলকে ছাড়া মাঠে নামতে হবে স্বাগতিক দক্ষিণ আফ্রিকাকে। তবে উরুর ইনজুরির কারণে তামিম দল থেকে ছিটকে গেলেও দলের সেরা ব্যাটসম্যানকে ছাড়াই ঘুরে দাঁড়ানোর চ্যালেঞ্জের সামনে টিম বাংলাদেশ। প্রথম টেস্ট শেষে করা স্ক্যান রিপোর্টে তামিমের ইনজুরির মাত্রা নিশ্চিত হয়।
‘গ্রেড ওয়ান টিয়ার’ থেকে পুরোপুরি সেরে উঠতে সাধারণত চার সপ্তাহ সময় লাগে। সেক্ষেত্রে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি সিরিজ নিয়ে রয়েছে অনিশ্চয়তা। তবে পুনর্বাসন প্রক্রিয়ায় ওডিআই সিরিজের সময়টায় তামিমের দ্রুত ফিটনেস ফিরে পাওয়ার ব্যাপারে আশাবাদী টিম ম্যানেজমেন্ট। এরপরও খেলার উপযোগী হতে শঙ্কাটা থেকেই যাচ্ছে। আগামী ১৫ অক্টোবর তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম ওয়ানডে মাঠে গড়াবে। বাকি দুই ম্যাচ যথাক্রমে ১৮ ও ২২ অক্টোবর। টি-টোয়েন্টি দু’টি হবে ২৬ ও ২৯ অক্টোবর। বিসিবি সূত্রে জানা গেছে, পুরনো চোট নিয়েই প্রথম টেস্টে ফিল্ডিং করেছিলেন। ফের একই জায়গায় ব্যথা পেলে অস্বস্তির কথা জানান ম্যানেজমেন্টকে। এরপর স্থানীয়ভাবে চিকিৎসক দেখানো হলে চার সপ্তাহের জন্য ছিটকে যাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত হয়। পুরোপুরি বিশ্রাম নিলে হয়তো দেখা যেতে পারে ওয়ানডে সিরিজে। তবে এই সম্ভাবনা শতভাগ নয়! পচেফস্ট্রুমের স্থানীয় চিকিৎসক জানিয়েছেন কম করে হলেও ৪ সপ্তাহের জন্য মাঠের বাইরে থাকতে হবে তামিমকে। এই অবস্থায় সৌম্যকে দেখা যেতে পারে দ্বিতীয় টেস্টে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ