ঢাকা, বৃহস্পতিবার 5 October 2017, ২০ আশ্বিন ১৪২8, ১৪ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

সেপ্টেম্বর মাসে রাজনৈতিক সন্ত্রাস

-মুহাম্মদ ওয়াছিয়ার রহমান
সেপ্টেম্বর মাসে মাঠে-ময়দানে কোন রাজনৈতিক নেতা-কর্মীকে দেখা যায়নি। তবে বিএনপি ও আওয়ামী লীগের সীমিত আকারে সদস্য সংগ্রহ ও নবায়ন প্রক্রিয়া অব্যাহত ছিল। এ মাসে রাজনৈতিক মাঠ রহিঙ্গা সমস্যায় ঢাকা পড়ে যায়। দেশের উত্তরাঞ্চলের বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে বিভিন্ন রাজনৈতিক সংগঠন স্বল্প পরিসরে তাদের ত্রাণ তৎপরতা অব্যাহত রাখে। এ মাসে অন্য রাজনৈতিক তৎপরতার মধ্যে নির্বাচন কমিশন একাদশ সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সাথে সংলাপ চলমান ছিল। সেপ্টেম্বর মাসে ১১১টি রাজনৈতিক ঘটনার তথ্যে নিহতের সংখ্যা ১৪। এই ১৪ জনের ৫ জনই খুন হয় আওয়ামী লীগের হাতে, ছাত্রলীগের হাতে-৩ এবং যুব লীগের হাতে ৬। এ মাসে রাজনৈতিক সংশ্লিষ্টতায় প্রাপ্ত তথ্যে আহত হয় ৩৫২ জন এবং গ্রেফতার অনেক বেশী হলেও ২১৫ জনের তথ্য পাওয়া গেছে বাকীদের পরিচয় প্রকাশিত হয়নি, গ্রেফতারকৃতরা অধিকাংশই বিরোধী রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মী এবং দন্ডপ্রাপ্ত ১২ জন, এই ১২ জনের আওয়ামী লীগের ৮, ছাত্রলীগের ১ এবং জেএমবির ৩ জন। প্রাপ্ত তথ্যে সেপ্টেম্বর মাসে নিহত হয়- (১) চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গায় ঈদ জামায়াতে বক্তৃতা দেয়াকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে জয়নাল নামে একজন, (২) কিশোরগঞ্জে মিঠামইনে আওয়ামী লীগের হাতে আনিস নামে একজন, (৩) পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় আওয়ামী লীগের হাতে বিএনপি নেতা হাবিবুর রহমান তালুকদার, (৪) কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় থানায় আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে বিল্লাল ও (৫) এনামুল নামে দু’জন খুন হয়, (৬) সিলেট মহানগরীতে ছাত্রলীগের দলীয় কোন্দলে জাকারিয়া মোহাম্মদ মাসুম, (৭) নেত্রকোনা সদরে ছাত্রলীগ নেতার ধর্ষণের ফলে ধর্ষিতা পান্না আক্তার আত্মহত্যা ও (৮) ময়মনসিংহ সদরে দুই ছাত্রলীগ নেতার দ্বন্দ্বে মামুনুর রশীদ শাওন নিহত হয়, এবং (৯) ঢাকার আদাবরে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে যুবলীগের হাতে ছাত্রলীগ নেতা মশিউর রহমান মশু, (১০) জামালপুরের মাদারগঞ্জে যুবলীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে রাশেদুল ইসলাম (১১) তার চাচা আব্দুস সোবহান, (১২) চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ে যুবলীগের দলীয় কোন্দলে ফজলুল করীম খুন হয়, (১৩) মুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়ীতে যুবলীগের হাতে বিএনপির আলী হোসেন বাবু ও (১৪) শাহ আলম খান খুন হয়।
আওয়ামী লীগ : ১ সেপ্টেম্বর পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ার গুদিঘাটা বাজারে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে আহত ৮ জন। উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আজিজুল হক মাতুব্বর সেলিম এবং সাংগঠনিক সম্পাদক লোকমান হোসেনের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে জাকির হোসেন, জেসমিন বেগম, মেহেদী হাসান, আসাদ, ইদ্রিস, আরিফ, সেকেন্দার ও জসিম উদ্দিন বাদশা আহত হয়। ২ সেপ্টেম্বর চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গায় হাঁপানিয়া গ্রামে ঈদ জামায়াতে বক্তব্য দেয়াকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপে সংঘর্ষ হয়। আওয়ামী লীগ নেতা ও ইউপি মেম্বার ইনতাজুল এবং অপর আওয়ামী লীগ নেতা ও সাবেক উপজেলা ভাইস-চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেনের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে সুইট, ফিরোজ, মোখলেছ, কায়েম, নজরুল, মন্টু, আজিজুল ও জয়নালসহ ১৪ জন আহত হয়। পরে ৪ সেপ্টেম্বর আহত জয়নাল চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায় এবং পুলিশ এ ঘটনায় ৬ জনকে আটক করে। বগুড়ায় আওয়ামী সিন্ডিকেটের কারনে চামড়ার বাজার পানি দাম বলে অভিযোগ করে ব্যবসায়ীরা। প্রথমে গরুর চামড়া ১ হাজার থেকে ২ হাজার টাকা বিক্রি হলেও বিকালে তা কমে যায় এবং ছাগলের চামড়ার দাম ১ থেকে ২’শ টাকায় নেমে আসে। ৩ সেপ্টেম্বর বরিশালের গৌরনদীতে খুলনা সরকারি বি.এল কলেজের সাবেক ভিপি, বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা ও সাবেক এমপি এম জহির উদ্দিন স্বপনের ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় কালে আওয়ামী লীগের হামলায় বিএনপির ৫ জন আহত হয়। পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় তুষখালী মাধ্যমিক বিদ্যালয় মসজিদের সামনে থেকে বিএনপি নেতা হাবিবুর রহমান তালুকদারকে অপহরণ হত্যা করে আওয়ামী লীগের লোকজন। এ  মামলায় আওয়ামী লীগ ধানীসাপা ইউনিয়ন সাধারণ সম্পাদক ও ইউপি চেয়ারম্যান হারুণ-অর-রশীদ তালুকদারসহ অন্যান্যদের আসামী করা হয়। পুলিশ মাসুম তালুকদার নামে একজনকে আটক করে।
৪ সেপ্টেম্বর ঝিনাইদাহ সদরে সমশপুর গ্রামে আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে ৩৫ জন আহত হয়। আওয়ামী লীগ নেতা ও ফুরসুন্দি ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল মালেক এবং সাবেক চেয়ারম্যান ও অপর আওয়ামী লীগ নেতা শহীদ সিকদার গ্রুপের মধ্যে এই সংঘর্ষ হয়। শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ এবং সখিপুরে পদ্মার ভাঙ্গন ও বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত’দের মাঝে ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রমে পুলিশ এবং আওয়ামী লীগ-ছাত্রলীগের হামলা ও বাধায় ১০ স্থানে কর্মসূচী পন্ড হয়ে যায়। এ সময় বিএনপির ২০ জন আহত হয়। কিশোরগঞ্জের মিঠামইনে ঘাগড়া বাজারে আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে আনিস মিয়া নামে একজন খুন হয়। খাঘড়া ইউয়িন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বাচ্চু মিয়া এবং সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান বোরহান উদ্দিন চৌধূরী বুলবুল সমর্থকদের মধ্যে দু’দিন ধরে এই সংঘর্ষে ওসি আলমগীর হোসেন ও এসআই সিরাজসহ ৪ পুলিশ এবং অন্য প্রায় ৪৬ জন আহত হয়। ৫ সেপ্টেম্বর জামালপুর সদরে শিলকুড়া গ্রাম থেকে ৫ পিস ইয়াবাসহ আওয়ামী লীগ নেতা সুলতান মীরকে আটক করে পুলিশ। ৬ সেপ্টেম্বর নোয়াখালীর হাতিয়ায় আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষ। আওয়ামী লীগ নেতা ও সাবেক এমপি মোহাম্মদ আলী এবং অপর আওয়ামী লীগ নেতা মাহমুদ আলী রাতুল সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে মহিউদ্দিন, ভুট্টু, আক্তার, শহীদ, মঞ্জু ও সাহেদ গুলিবিদ্ধসহ আহত ৩০ জন। গত ৩০ আগস্ট যুবলীগ নেতা রিয়াজ উদ্দিন হত্যার ঘটনা নিয়ে এই সংঘর্ষ হয়। রাজশাহীর বানেশ্বর উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ অপহরণ নাটক সাজিয়া জেলা যুবলীগ সহ-সভাপতি ওবায়দুর রহমানকে ফাঁসানোর চেষ্টা করছেন বলে একটি রেস্তরায় সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করে ওবায়েদুর রহমান। ৬ সেপ্টেম্বর বরিশালের মুলাদীতে বিএনপির সদর ইউনিয়নে ঈদ পুনঃর্মিলনীতে পুলিশ ও আওয়ামী লীগের বাধা। মুন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ে কুমারভোগ গ্রামে বিএনপির সদস্য সংগ্রহ ও নবায়ন কর্মসূচীতে আওয়ামী লীগে নেতা লুৎফর তালুকদারের নেতৃত্বে হামলা, ভাংচুর ও ১০ জনকে আহত করে। জামালপুরের ইসলামপুরে চিনাডুলি ইউনিয়নের আমতলা বালিয়াদহ এলাকার নদী থেকে ১৬৫ বস্তা ভিজিডি-এর চাউল উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট রুবেল মাহমুদ উদ্ধার করে। সাপধরী ইউনিয়নের এই চালসহ চেয়ারম্যানের সহযোগী কালবাজারী তোতা চৌধূরীকে পুলিশ আটক করে। ইউপি চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা বলেন- আমার ইউনিয়নের চাউল রিতরণ হয়ে গেছে এটা অন্য ইউনিয়নের চাউল।
৭ সেপ্টেম্বর কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় থানায় বখাইল গ্রামে আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে বিল্লাল ও এনামুল নামে দু’জন নিহত হয়। আওয়ামী লীগ নেতা ও চেয়ারম্যান কেরামত উল্লাহ এবং সাবেক চেয়ারম্যান ও সদর উপজেলা আওয়ামী লীগ যুগ্ম-সম্পাদক বখতিয়ার রহমান বিশ্বাস সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে ইকবাল হোসেন, রাশিদুল, আজিজ, সামু, সাহ্বে আলী, নজরুল, বকুল, মজিবর, হেলাল ও জাগিবরসহ আহত ২০ জন। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ১০ জনকে আটক করে। নারায়নগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে ইলিয়াসদী গ্রামে মসজিদের অনুদানের টাকা চাওয়া নিয়ে আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষ। মোগরাপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য ও আওয়ামী লীগ নেতা আনায়ার আলী এবং অপর আওয়ামী লীগ নেতা লিটন মিয়ার মধ্যে সমজিদের টাকার হিসাব চাওয়া কেন্দ্র করে দুই দিন ব্যাপী হামলা, সংঘর্ষ, বাড়ী-ঘর ভাংচুর ও লুটপাট করা হয়। তাদের হামলায় জুয়েল, বাবুল, ইকবাল ও আমির হোসেনসহ ১০ জন আহত হয়। ৮ সেপ্টেম্বর পটুয়াখালীর কুয়াকাটায় আওয়ামী লীগ নেতা ও কুয়াকাটা পৌর মেয়র আব্দুল বারেক মোল্লার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগ ও যুবলীগের হামলায় বিএনপির কেন্দ্রীয় প্রশিক্ষন সম্পাদক ও কলাপাড়া উপজেলা বিএনপি সভাপতি এ.বি.এম মোশাররফ হোসেন, আব্দুল আজিজ মুসল্লী, হারুণ-অর-রশীদ, শামীম তালুকদার, ওবায়দুল, রিয়াজ কাজী, মজিবর, রিয়াজ খান ও জাকারিয়াসহ ৩০ জন আহত হয়। ১০ সেপ্টেম্বর বগুড়ার নন্দীগ্রামে ভাটরা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি মোর্শেদুল বারী বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে দূর্জয়পুর গ্রামের কলেজ ছাত্রী রমিজা খাতুনকে বগুড়া, ঢাকা, চট্টগ্রাম ও কক্সবাজারসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে নিয়ে ধর্ষণ করে বলে বগুড়া প্রেস ক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এই অভিযোগ করা হয়। এখন সে বিয়ে করতে অম্বীকার করে। সর্বশেষ ১৫ জুলাই বগুড়া পর্যটন মোটেলে নিয়ে ধর্ষণ করে। মেয়েটি প্রতিবাদ করলে মারধর করে, মেয়েটির চিৎকার শুনে লোকজন এসে মেয়েটিকে উদ্ধার করে।
১২ সেপ্টেম্বর নাটোরের লালপুরের রামকৃষ্ণপুরে যুবলীগের মটর শোভাযাত্রায় আওয়ামী লীগের হামলায় যুবলীগ কর্মী লিটন, আলম, আব্দুস সামাদ, আব্দুল খালেক ও রাজুসহ আহত ১৫ জন। যুবলীগ অভিযোগ করে স্থানীয় এমপি ও আওয়ামী লীগ নেতা আবুল কালাম আজাদের সমর্থকরা এ ঘটনা ঘটায়। ১৪ সেপ্টেম্বর সাতক্ষীরার কলারোয়ায় ভারতীয় নাগরিককে ধর্ষণ করায় যুগিখালি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও ইউপি চেয়ারম্যান রবিউল হাসান, সোহাগ হোসেন, আসাদুজ্জামান, সোহাগ দফাদার ও কদম আলীর নামে ধর্ষণ মামলা দায়ের করা হয়। গত ৭ সেপ্টেম্বর রাতে আসামীরা ঝিকরা গ্রামে সঞ্জয়ের বাড়ীতে মহিলাকে ধর্ষণ করে। ১৫ সেপ্টেম্বর চুয়াডাঙ্গার জীবননগরে আওয়ামী লীগ নেতা ও আগামী নির্বাচনে এমপি প্রার্থী নজরুল মল্লিকের বিল বোর্ড ও ব্যানার ছেড়াকে কেন্দ্র করে বর্তমান এমপি ও অপর আওয়ামী লীগ নেতা আলী আজগর টগরের সমর্থকদের মধ্যে বাঁকা পশ্চিমপাড়ায় মসজিদে জুম্মার নামায শেষে হামলায় আব্দুল মালেক, আশরাফুল ইসলাম ও জুলমত মন্ডল এবং অন্য স্থানে হামলা চালিয়ে সিমি খাতুন ও শাহনাজকে আহত হয়। টাঙ্গাইলের ঘাটাইলের হামিদপুরে একই স্থানে রোহিঙ্গা নির্যাতনের প্রতিবাদে আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপে সমাবেশ ডাকায় প্রশাসন দুপুর ১২টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত ১৪৪ ধারা জারি করে। ১৮ সেপ্টেম্বর চট্টগ্রামের বাঁশখালীর বৈলছড়ি নাজমুন্নেসা উচ্চবিদ্যালয় মাঠে জাতীয় পার্টির শ্রমিকদের সমাবেশে আওয়ামী লীগের একটি গ্রুপের বাধা। তারা সেখানে স্বৈরচার এইচ এম এরশাদকে প্রবেশে বাধা সৃষ্টি করে। উল্লেখ্য, ২০ সেপ্টেম্বর এই সমাবেশ হওয়ার কথা ছিল। ১৯ সেপ্টেম্বর খাগড়াছড়িতে সুষম উন্নযন ও দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সড়ক অবরাধ কর্মসূচীতে আওয়ামী লীগের হামলায় ১০ জন আহত হয়। এ সময় সংবাদ সংগ্রহ কালে তারা সাংবাদিকদের লাঞ্ছিত করে। ২০ সেপ্টেম্বর জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে যমুনা সার কারখানা এলাকায় আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষ হয়। আওয়ামী লীগ নেতা ও আওনা ইউপি চেয়ারম্যান বেলাল উদ্দিন এবং ইউপি সদস্য ও অপর আওয়ামী লীগ নেতা রাজা মিয়া গ্রুপের সংঘর্ষে মারুফ ও লাল মিয়াসহ আহত ১০ জন। পুলিশ রাজা মিয়াকে আটক করে। কুষ্টিয়ার ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় থানার দূর্গাচরা গ্রামে দাসপাড়া মন্দিরে হামলা করে মুর্তি ভাঙ্গে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি সানোয়ার হোসেন মোল্লার সমর্থকরা। মানিকগঞ্জের শিবালয়ের জাফরগঞ্জ গ্রাম থেকে তেওতা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি আব্দুল করীম শেখের বাড়ী থেকে ১০০ পিস ইয়াবাসহ জনি নামে একজনকে আটক করে পুলিশ।
২১ সেপ্টেম্বর বরগুনা সার্কিট হাউজ এলাকায় পাথরঘাটা উপজেলা আওয়ামী লীগের কমিটি গঠন নিয়ে বিরোধ ও দু’গ্রুপের সংঘর্ষে আহত ১৫ জন। আহতারা হলো- সেলিম, রমিম, রাজিব, রুবেল, জুয়েল, মোহাম্মদ আলী, গোলাম মোস্তফা, জাহাঙ্গীর, রফিক, শাহীন, মনির ও স্বপনসহ ১৫ জন। ২২ সেপ্টেম্বর বাগেরহাটের শরণখোলায় খাস্তাকাটা বাজারে আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের সমাবেশ ডাকায় উপজেলা প্রশাসন ১৪৪ ধারা জারি করে। স্থানীয় এমপি ও আওয়ামী লীগ নেতা ডাঃ মোজাম্মেল হোসেন এবং উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি কামাল উদ্দিনের মধ্যে বিরোধে এই ১৪৪ ধারা জারি হয়। ২৩ সেপ্টেম্বর মৌলভীবাজার জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের আহ্বায়ক স্বাগত কিশোর দাস চৌধুরীকে নিজ বাসভবনে কুপিয়ে জখম করা হয়। বিএনপি এই ঘটনার জন্য আওয়ামী লীগকে অভিযুক্ত করে। ২৪ সেপ্টেম্বর নোয়াখালী সদরে নন্দনপুর গ্রামে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র আওয়ামী লীগ-বিএনপির মধ্যে সংঘর্ষে দেলোয়ার হোসেন রতন, জিসান ও স্বপনসহ ৪ জন আহত হয়। ২৬ সেপ্টেম্বর নড়াইল জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা সোহরাব হোসেন, নড়াইল পৌর মেয়র ও আওয়ামী লীগ নেতা জাহাঙ্গীর বিশ্বাস, সাবেক কাউন্সিলর শরফুল আলম লিটু, মুশফিকুর রহমান, আহম্মেদ আলী খান, রফিকুল ইসলাম এবং তেলাওয়াত হোসেনসহ ৮ জনকে দুর্নীতির দায়ে ৭ বছর করে কারাদন্ড ও ১ লাখ ৮৬ হাজার টাকা জরিমানা আদায়ের নির্দেশ দেয়। গাজীপুরের কাপাসিয়ায় পুজামন্ডপ পরিদর্শন কালে এমপি সিমিন হোসেন রিমি এবং কৃষক লীগ কেন্দ্রীয় সভাপতি মোতাহার হোসেন মোল্লার উপস্থিতিতে আওয়ামী লীগ ও কৃষক লীগের মধ্যে সংঘর্ষে ঘাগটিয়া ইউনিয়ন কৃষক লীগ সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মালেক মোল্লা, কাপাসিয়া ইউনিয়ন কৃষক লীগ যুগ্ম-সম্পাদক ইব্রাহিম ও আজাহারসহ ১৫ জন আহত হয়। ২৭ সেপ্টেম্বর নারায়নগঞ্জের রূপগঞ্জে চনপাড়া ও গোলাকান্দাইল এলাকায় আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের ২ দিন ব্যাপী সংঘর্ষে ২০ জন আহত, ঘর-বাড়ী ভাংচুর ও লুটপাট করে। আওয়ামী লীগ নেত্রী ও ইউপি সদস্যা বিউটি আক্তার কুট্টি এবং যুবলীগ নেতা আনোয়ার হোসেন গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষে সাদেক মিয়া, খোকন মিয়া, হেলাল উদ্দিন, নূরু মিয়া, হাবিবুর রহমান, ফারুক, জুয়েল, উজ্জল, খলিলুর রহমান ও জীবনসহ ২০ জন আহত হয়। [চলবে]

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ