ঢাকা, শনিবার 7 October 2017, ২২ আশ্বিন ১৪২8, ১৬ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক গ্রুপের হামলায় সংগঠনের সভাপতিসহ আহত ১৯

যশোর সংবাদদাতা : যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক গ্রুপের হামলায় সংগঠনের সভাপতিসহ ১৯ জন আহত হয়েছেন। এদের মধ্যে নয়জনকে যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অন্যরা বিভিন্ন ক্লিনিকে চিকিৎসা নিয়েছেন। আহতরা আশঙ্কামুক্ত বলে জানিয়েছেন চিকিৎসক।
আহত ছাত্ররা অভিযোগ করেন,বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে ক্যাম্পাসের বাইরে থাকা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শামীমের নেতৃত্বে ৪০-৫০ জন সন্ত্রাসী বিশ্ববিদ্যালয়ে ঢোকে। তারা বোমা ফাটিয়ে, গুলী ছুড়ে ত্রাস সৃষ্টি করে। এরপর হলে গিয়ে সভাপতি সুব্রত বিশ্বাসসহ ছাত্রলীগের নেতাকর্মী ও সাধারণ শিক্ষার্থীদের ধরে মারপিট করে।
সভাপতি সুব্রত সাংবাদিকদের জানান, তারা হলে ঢুকে মারপিট করে। তিন তলা থেকে নামিয়ে দেয়। সুব্রত এ সময় দাবি করেন,তাকে তিনতলা থেকে নিচে ফেলে দেয়। তবে হাসপাতালে সুব্রতকে দেখে তেমন মনে হয়নি। তিনি জানান, পরে দুই শতাধিক মোবাইল, শতাধিক ল্যাপটপ নিয়ে চলে যায় দুর্বৃত্তরা। রাতে আহতরা বিশ্ববিদ্যালয়ের আশপাশে অবস্থান নেন। সকালে তারা হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। অবশ্য এ বিষয়ে সাধারণ সম্পাদক গ্রুপের বক্তব্য জানা যায়নি। তার মোবাইলে যোগাযোগ করে তাকে পাওয়া যায়নি। তারা ক্যাম্পাসের বাইরে অবস্থান করছেন বলে সাধারণ শিক্ষার্থীরা জানিয়েছেন।
যশোর জেনারেল হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডা. মেহেদি আহসান জানান, হাসপাতালে ভর্তি নয়জনই আশঙ্কামুক্ত।
এ বিষয়ে জানতে পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে কোতায়ালি থানা ওসি বলেন, যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে হলে হামলা হয়েছে শুনেছি। তবে কত জন আহত হয়েছে জানি না। হাসপাতালে যোগযোগ করতে বলেন ওসি।  তবে এ ঘটনায় এখনো কোনো মামলা হয়নি এবং কেউ আটক নেই বলে নিশ্চিত তিনি।
 যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় জনসংযোগ কর্মকর্তা আব্দুর রশিদ বলেন, এ ঘটনায় জরুরি ভাবে শনিবার সকাল ১১ টায় রির্জোন বোর্ডের সভা আহবান করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রক্টর প্রফেসর ড. শেখ মিজানুর রহমান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন,এ ঘটনায় অনেকেই আহত হয়েছেন। নয় জন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। তিন জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানান তিনি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ