ঢাকা, সোমবার 9 October 2017, ২৪ আশ্বিন ১৪২8, ১৮ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

লাস ভেগাসে হামলার পর রক্তদানে এগিয়ে আসে মুসলিমরাও

৮ অক্টোবর, দ্য ওরেঞ্চ কাউন্টি রেজিস্টার : আমেরিকায় যখন কোনো দুর্যোগ সংঘটিত হয এবং তা যখন একটি সম্প্রদায়েক ধ্বংস করে দেয়, তখন সহায়তার জন্য অন্য অনেকের মতো মুসলিমরাও তাৎক্ষণিক এগিয়ে আসে।
চলিত সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্রের লাস ভেগাসের হামলার পর আহমদীযা মুসলমানদের একটি গ্রুপ আহতদের রক্তদানে এগিয়ে আসে এবং শহরের বিভিন্ন অংশে সতর্ক পাহারায় সহাযতা করে।
শিকাগো ভিত্তিক ইমাম আযম আকরাম, মিলওযাকি’র রিজওযান আহমদ এবং গ্রুপের অন্যান্য সদস্যের কাছ থেকে এ ধরনের প্রতিক্রিযা নতুন কিছু নয়। এর আগেও তারা মিসৌরি এবং অরল্যান্ডোর সন্ত্রাসী হামলার পর সহায়তা করতে এগিয়ে এসেছিল।
আকরাম জানান, তিনি এবং রিজওযান আহমদ হামলার কয়েক ঘণ্টা পর সোমবার বিকালে লাস ভেগাসে এসে পৌঁছান এবং স্থানীয় আহমদিযা সম্প্রদায়ের ৭০ জন সদস্যকে রক্তদানের জন্য সংগঠিত করেন। এছাড়াও কয়েকজনকে শহরের বিভিন্ন অংশে সতর্ক পাহারার জন্য পাঠান।
তিনি বলেন, ‘যখন আমাদের সমর্থন এবং সাহায্য করার সুযোগ এসেছে, তখন কেন আমরা তা করব না। আমরাও আমেরিকান। অন্য সবার মতো আমরাও এই হামলায় দুঃখিত।’
১৯২১ সালে আমেরিকায় আহমদীযা মুসলিম কমিউনিটি প্রতিষ্ঠিত হয। সাউদার্ন ক্যালিফোর্নিযার ৩ হাজার সদস্যসহ দেশটিতে প্রায ১৮ হাজার আহমদীয়া সদস্য রয়েছে।
তিনি জানান, সান বারনারডিনো সন্ত্রাসী হামলার পরপরই আহমদীযা মুসলমানরা ইসলামভীতির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানায এবং জনগণকে বুঝানোর চেষ্টা করে যে, ইসলাম সহিংসতা ও সন্ত্রাসবাদকে প্রত্যাখ্যান করে এবং শান্তি, সহনশীলতা এবং মানবিক সম্পর্ককে মূল্য দেয।
আকরাম জানান, এই হামলার দায স্বীকার করে আইএসের দাবি সম্পর্কে তিনি উদ্বিগ্ন ছিলেন। যদিও এফবিআই কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, আইএসের এই দাবি সমর্থন করার কোনো প্রমাণ নেই।
তিনি বলেন, ‘আমরা নিশ্চিত করতে চাই যে, আইএস তার নিজস্ব বক্তব্যের মাধ্যমে আমাদের মধ্য বিভেদ সৃষ্টির সুযোগ পায়নি।’
লাস ভেগাসে আসার পর তিনি শহটিকে ‘অস্বাভাবিক শান্ত এবং নির্জন’ বলে বর্ণনা করেন। তিনি বলেন, রাস্তায জনসাধারণের চেয়ে বেশি মিডিযা ছিল।
তিনি বলেন, লাস ভেগাসে বিষণ্নতার আবহাওয়া সত্ত্বেও মানুষ একে অপরকে সান্ত¦না দিয়েছে এবং সাহায্য করছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ