ঢাকা, সোমবার 9 October 2017, ২৪ আশ্বিন ১৪২8, ১৮ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

ফল প্রকাশের দাবিতে নীলক্ষেতে অবরোধ ৭ কলেজ শিক্ষার্থীদের

দ্রুত পরীক্ষার ফল ঘোষণার দাবিতে গতকাল রোববার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত ৭টি কলেজের শিক্ষার্থীরা নীলক্ষেত মোড়ে সড়ক অবরোধ করে -সংগ্রাম

বিশ্ববিদ্যালয় রিপোর্টার : পরীক্ষার ফল প্রকাশের দাবিতে রাজধানীর নীলক্ষেতে রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) অধিভুক্ত ৭ কলেজের শিক্ষার্থীরা। গতকাল রোববার সকাল ৯টার দিকে নীলক্ষেত মোড়ের সড়কে অবস্থান নেয় তারা। এতে ওই এলাকায় যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মুখে আগামী নভেম্বরের মধ্যে ফল প্রকাশের ঘোষণা দিয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ড. আখতারুজ্জামান। তিনি দুপুর ১২টার দিকে নীলক্ষেতে আসেন এবং আন্দোলনকারীদের উদ্দেশ্যে এ ঘোষণা দেন। 

এ সময় তিনি শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে বলেন, দুঃখ প্রকাশ করছি। তোমাদের ওপর যে দুর্ভোগ হয়েছে তা শুধু তোমাদের ওপর বর্তায় না, তা আমাদের ওপরও বর্তায়। আগামী নবেম্বরের মধ্যে রেজাল্ট দেয়া হবে। সম্ভব হলে নভেম্বরের আগেই। তিনি বলেন, যখন ঢাবির ওপর দায়িত্ব পড়েছে তখন অনেক ব্যবস্থাপনা আমাদের ছিল না। আমি তখন দায়িত্বে ছিলাম না। আগেও টের পেয়েছি। এখন বেশি টের পাচ্ছি। আমাদের সক্ষমতা ছিল না।

ঢাবি ভিসি বলেন, ঢাবির শিক্ষার্থী ৩০ হাজার, কিন্তু আমাদের অধীনস্ত ৭ কলেজের শিক্ষার্থী ৩ লাখ। মহৎ উদ্দেশ্য নিয়ে আমাদের ওপর দায়িত্ব দেয়া হয়েছিল, লোকবলের অভাব, সার্বিক ব্যবস্থাপনার অভাবে সে মহৎ উদ্দেশ্য বাস্তবায়ন সম্ভব হয়নি। তোমাদের পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশের জন্য যা যা করণীয় তা গ্রহণ করেছি। 

তবে শিক্ষার্থীদের দাবি এ মাসেই রেজাল্ট দিতে হবে। আর কোনো প্রহসন নয়, আর কোনো তালবাহানা সহ্য করা হবে না। শিক্ষার্থীরা বলছেন, ভিসি স্যার আসায় আমরা খুশি কিন্তু রেজাল্ট না দেয়া পর্যন্ত আন্দোলন চলবে। শিক্ষার্থীদের দাবি, ঢাবি প্রশাসনের অনুমতি না পাওয়ায় নীলক্ষেতে অবস্থান নিতে তারা বাধ্য হয়েছেন। 

এ দিকে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভের মুখে সপ্তাহের প্রথম দিনেই প্রায় স্থবির হয়ে পড়ে রাজধানীর কয়েকটি সড়ক। সায়েন্স ল্যাব, কাঁটাবন, শাহবাগ, নিউমার্কেট, গ্রিন রোড এবং ধানমন্ডি সড়কে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়। স্কুল ফেরত শিশু ও অসুস্থ ব্যক্তিদের চলাফেরায় সবচেয়ে বেশি সমস্যায় পড়তে হয়ে।

চতুর্থ বর্ষের ফল প্রকাশসহ পাঁচ দফা দাবিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত সাতটি কলেজের শতাধিক শিক্ষার্থী গতকাল রোববার সকাল সোয়া নয়টার দিকে রাজধানীর নিউমার্কেট ক্রসিংয়ে সড়ক অবরোধ করলে এ অচলাবস্থার সৃষ্টি হয়।

দুপুরে ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা যায়, শিক্ষার্থীরা দড়ি দিয়ে গোটা নীলক্ষেত চত্বর ঘিরে রেখেছেন। কোনো যানবাহন এবং পায়ে হাঁটা মানুষ, কেউই নীলক্ষেত এলাকা দিয়ে চলাচল করতে পারছে না। শিক্ষার্থীদের পক্ষে একজন মাইকে বিভিন্ন দাবির কথা বলছেন এবং স্লোগান দিচ্ছেন। তার পাশে কয়েকজন শিক্ষার্থী তাদের দাবির পক্ষে লিফলেট বানিয়ে তা হাতে ধরে দাঁড়িয়ে আছেন। প্রচ- রোদের কারণে অনেক শিক্ষার্থী মাথায় রুমাল দিয়ে রাস্তায় বসে আছেন। এ ছাড়া শিক্ষার্থীদের টানানো দড়ি ভেদ করে যেন কেউ চলাচল করতে না পারে সে জন্য কয়েকজন শিক্ষার্থীকে তৎপর দেখা গেল। এভাবে পথ আটকানোর কারণে স্কুল ফেরত শিশু ও অভিভাবকদের বিপাকে পড়তে হচ্ছে।

বিক্ষোভে অংশ নেয়া শিক্ষার্থীরা বলেন, চতুর্থ বর্ষের স্নাতক পরীক্ষার ফল প্রকাশসহ পাঁচ দফা দাবিতে তাঁরা সকাল নয়টা থেকে নীলক্ষেতের মোড়ে অবস্থান নিয়েছেন। জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত কলেজগুলোর চতুর্থ বর্ষের ফল গত মে মাসে প্রকাশিত হয়েছে। অথচ তাদের ফল এখনো প্রকাশ না হওয়ায় তাঁরা স্নাতকোত্তর শ্রেণিতে ভর্তি হতে পারছেন না। এ ছাড়া বিসিএস পরীক্ষায় আবেদন করা ছাড়া তারা কোনো নিয়োগ পরীক্ষায় আবেদন করতে পারেননি।

জানা যায়, গত বৃহস্পতিবার (৫ অক্টোবর) শাহবাগে এক সাংবাদিক সম্মেলনে অনার্স চতুর্থ বর্ষের ২০১১-১২ সেশনের ফল প্রকাশসহ পাঁচ দফা দাবিতে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে এই বিক্ষোভ সমাবেশ কর্মসূচি দিয়েছিলেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। তাদের পাঁচ দফা দাবি হলো- এক হাজার ২০০ ছাত্রের বিরুদ্ধে করা মামলা প্রত্যাহার, চতুর্থ ও দ্বিতীয় বর্ষের ফল দ্রুত প্রকাশ, অ্যাকাডেমিক ক্যালেন্ডার প্রকাশ, তৃতীয় বর্ষের রুটিন প্রকাশ ও অধিভুক্ত সাত কলেজের জন্য স্বতন্ত্র ওয়েবসাইট খোলা।

অধিভুক্ত কলেজগুলো হলো- ঢাকা কলেজ, ইডেন মহিলা কলেজ, সরকারি শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজ, কবি নজরুল কলেজ, বেগম বদরুন্নেসা সরকারি মহিলা কলেজ, মিরপুর সরকারি বাঙলা কলেজ ও সরকারি তিতুমীর কলেজ।

উল্লেখ্য, ২০১১-২০১২ সেশনের অনার্স শেষ বর্ষের পরীক্ষা গত ফেব্রুয়ারি মাসে অনুষ্ঠিত হয়। পরীক্ষা চলাকালে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আলাদা হয়ে এই সাতটি কলেজ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত হয়। যার কারণে ফল প্রকাশের দায়িত্ব পায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন। কিন্তু পরীক্ষার নয় মাস পার হলেও এখনও ফল প্রকাশ করা হয়নি। চলতি বছরের জুলাইয়ে ৭ কলেজের শিক্ষার্থীরা পরীক্ষার সূচি ঘোষণার দাবিতে আন্দোলনে নামে। গত ২০ জুলাই বিক্ষোভ চলাকালে শাহবাগে পুলিশের টিয়ারশেলের আঘাতে দুই চোখ হারান তিতুমীর কলেজের শিক্ষার্থী সিদ্দিকুর রহমান।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ