ঢাকা, সোমবার 9 October 2017, ২৪ আশ্বিন ১৪২8, ১৮ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

শ্রমিক আন্দোলনের গুণগত পরিবর্তনের জন্য যোগ্য ও নৈতিকতা সম্পন্ন নেতৃত্ব প্রয়োজন -মিয়া গোলাম পরওয়ার

গতকাল রোববার টঙ্গীর একটি মিলনায়তনে ঢাকা মহানগর ও পার্শ্ববর্তী এলাকার বিভিন্ন শিল্পাঞ্চল ও ট্রেড ইউনিয়ন নেতাদের নিয়ে লিডারশীপ ওয়ার্কশপ অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ শ্রমিক কল্যাণ ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় সভাপতি অধ্যাপক মিয়া গোলাম পরওয়ার -সংগ্রাম

বাংলাদেশ শ্রমিক কল্যাণ ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় সভাপতি সাবেক এমপি অধ্যাপক মিয়া গোলাম পরওয়ার বলেছেন, ইসলামী শ্রমনীতি প্রতিষ্ঠার আন্দোলনের সর্বস্তরের কর্মীদের আল্লাহর নৈকট্য লাভের চেষ্টা করতে হবে। কুরআনের বিধান অনুযায়ী ইসলামী শ্রমনীতির সমাজ বিনির্মাণের মহৎ উদ্দেশ্য সাধনে শ্রমিক কল্যাণ ফেডারেশনের সকল নেতাকর্মী সততা, নৈতিকতা ও ধৈর্যের সর্বোচ্চ নজীর স্থাপন ও ত্যাগ স্বীকার করে দেশ সেবায় আত্মনিয়োগ করতে হবে। শ্রমিক কল্যাণ ফেডারেশনের আদর্শ ও চরিত্রবান কর্মীরা আগামী শ্রমিক নেতৃত্ব গঠনের মাধ্যমে ইনসাফভিত্তিক, ইসলামী শ্রমনীতি গঠনে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। তাই সকল পেশার শ্রমিকদেরকে আদর্শ ও নৈতিকতার ভিত্তিতে গড়ে তুলতে হবে।
গত শনিবার টংগী শিল্পাঞ্চলের একটি মিলনায়তনে বাছাইকৃত ঢাকা ও ঢাকার পার্শ¦বর্তী এলাকার বিভিন্ন শিল্পাঞ্চল ও ট্রেডের শ্রমিক নেতাদের নিয়ে লিডারর্শীপ ওয়ার্কশপ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এই কথা বলেন। ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় সহ-সাধারণ সম্পাদক মোঃ আতিকুর রহমানের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় শিক্ষা ও প্রশিক্ষ সম্পাদক তানভীর হোসাইন, কেন্দ্রীয় সহ শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ সম্পাদক আব্দুল্লাহ বাছির ও গাজীপুর মহানগরী সভাপতি আজহারুল ইসলাম।
মিয়া গোলাম পরওয়ার আরো বলেন, বাংলাদেশের শ্রমজীবী মানুষের ন্যায্য মজুরির দাবি এখনো উপেক্ষিত, এখনো তাঁদের বিরাট অংশ মৌলিক মানবাধিকার থেকেও বঞ্চিত। বাংলাদেশের শ্রমিকদের, বিশেষ করে পোশাকশিল্প, জাহাজশিল্প, ইমারত নির্মাণশিল্পসহ অনানুষ্ঠানিক ক্ষেত্রে কর্মরত লাখো শ্রমিক উপযুক্ত পারিশ্রমিক ও অন্যান্য অধিকার পান না। মৌলিক চাহিদা পূরণ করে মর্যাদাপূর্ণ জীবনযাপনের জন্য প্রয়োজন জাতীয়ভাবে ন্যূনতম মজুরি নিশ্চিত করা। কিন্তু কাগজের সেই নিয়মের বাস্তবায়ন এখনো হয়নি।
তিনি বলেন, শ্রমিকদের সংগঠিত হওয়ার ক্ষেত্রেও একশ্রেণীর স্বার্থবাদি মালিক ও রাষ্ট্রশক্তি  বহুভাবে বাধা সৃষ্টি করে রাখে। রানা প্লাজা, তাজরীনসহ গত দুই বছরের পোশাকশিল্পে হাজারো শ্রমিকের মৃত্যুর যথাযথ ক্ষতিপূরণ দান এবং দোষী ব্যক্তিদের বিচারও এখনো হয়নি।
তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশে শ্রমিক আন্দোলন এ পর্যন্ত আদর্শ ও নৈতিকতা সম্পন্ন সংগ্রামী চরিত্র অর্জন করতে পারেনি। এটি এক বিরাট দুর্বলতা। যার পরিণামে শ্রমিক স্বার্থে যেমন যথাযথ মাত্রা অর্জিত হয়নি, তেমনি শ্রমিক আন্দোলন সমাজ বদলের সংগ্রামেও সহায়ক শক্তি হয়ে উঠতে পারেনি। শ্রমিক আন্দোলন শ্রমিক নেতাদের বিত্তবান নাগরিক হতে, কাউকে অঢেল সম্পদ ও বৈভবের অধিকারী হতে সাহায্য করেছে। সাধারণ শ্রমিকদের অবস্থার তেমন কোনো পরিবর্তন ঘটেনি।
মিয়া গোলাম পরওয়ার বলেন, অপ্রিয় সত্য হচ্ছে যে এ দেশে শ্রমিক আন্দোলন ব্যক্তি ও দল স্বার্থকেন্দ্রিক এবং দুর্নীতিগ্রস্ত হওয়ার কারণে এর মূল আদর্শ আজ ব্যাহত। তাই আজ প্রমাণিত মানব রচিত আইন দিয়ে শ্রমিকের ন্যায্য অধিকার আদায় করা সম্ভব নয়। তিনি আরো বলেন, শ্রমিক আন্দোলনের গুণগত পরিবর্তনের জন্য যোগ্য ও নৈতিকতাসম্পন্ন  নেতৃত্ব প্রয়োজন। আর এটার জন্য যে জিনিসটা দরকার তা হলো ইসলামী শ্রমনীতির ব্যবস্থা। তিনি অনতিবিলম্বে ইসলামী শ্রমনীতির ব্যবস্থা বাস্তবায়িত করা এবং ইসলামের আদর্শ অনুযায়ী মালিক ও মজুর কর্মচারীর যাবতীয় সমস্যার সমাধান করতে সংশ্লিষ্ট পক্ষকে আহবান জানান। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ