ঢাকা, সোমবার 9 October 2017, ২৪ আশ্বিন ১৪২8, ১৮ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

কুমারখালীতে নিখোঁজের চার দিন পর প্রবাসীর গলিত লাশ উদ্ধার

কুমারখালী (কুষ্টিয়া) সংবাদদাতা : জেলার কুমারখালীতে নিখোঁজের চার দিন পর এক প্রবাসীর গলিত লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। গতকাল রোববার সকালে উপজেলার চাপড়া ইউপির পাহাড়পুর-বাঁধবাজারের পাশে কালীগঙ্গা নদী থেকে পুলিশ এই লাশ উদ্ধার করে। নিহত রাকিবুল (৩২) স্কুলপাড়ার মন্টু বিশ^াসের বড় ছেলে।
জানা যায়, দুই মাস আগে মালয়েশিয়া থেকে ছুটিতে আসে প্রবাসী রাকিবুল। গত বৃহস্পতিবার সন্ধায় পাশের গ্রামে শ^শুর বাড়ীতে বেড়াতে যায় সে। সেখান থেকে ফিরে ছোট ভাই রফিকের কাছে বাজারের উপর থেকে  মটর সাইকেল দিয়ে একটি ফোন পেয়ে চলে যায়। এরপর রাত ১০টার পর থেকেই মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। তখন থেকেই পরিবার ও শ^শুর বাড়ির লোকেরা বিভিন্ন জায়গায় সন্ধান করেও পাইনি। গতকাল রোববার সকালে স্থানীয়রা বাঁধবাজার পুলিশ ক্যাম্প সংলগ্ন কালীগঙ্গা নদীতে রাকিবুলের গলিত লাশ দেখতে পায়।
কুমারখালী থানার ওসি আব্দুল খালেক জানান, গত দুমাস আগে রাকিবুল ইসলাম মালয়েশিয়া থেকে ছুটিতে বাড়ি আসে। গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় সে পাশের গ্রামের (কাঞ্চনপুর) শ্বশুর বাড়িতে যায়। এরপর আর বাড়ি ফিরে আসেনি সে। এ ঘটনায় তার পরিবার একটি সাধারন ডায়েরিও করেছিল। রাকিবুলের ছোট ভাই রকিব জানান, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় রাকিবুল তার মটরসাইকেল নিয়ে শ্বশুড় বাড়িতে যাওয়ার কিছু সময় পরে বাঁধবাজার এসে তাকে মটরসাইকেল দিয়ে আবার শ্বশুর বাড়ীতে চলে যায়। এর পর রাত ১০ টার দিকে রাকিবুল ফোন দিয়ে জানায় সে রাতে বাড়ীতে চলে আসবে। এরকিছু সময় পরই তার মোবাইল বন্ধ হয়ে পাওয়া যায়।
 এতে দু:চিন্তায় পরে পরিবারের সদস্যরা। পরে রাকিবের খোঁজে শ্বশুর বাড়ীতে ফোন দিলে সেখান থেকে জানানো হয় রাকিবুল বেশ কিছু সময় আগেই বাড়ীর উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছে। এতে আরো হতাশ হন তারা। এরপর রাকিবের শ্বশুর বাড়ীর লোকজন ও রাকিবের পরিবারের সদস্যারা স্থানীয় স্বজনসহ সাম্ভব্য সব জায়গাতেখোঁজ করেও রাকিবের কোন সন্ধান পাইনি। তবে সে কি নিখোঁজ নাকি তাকে অপহরণ করা হয়েছে এ নিয়েও এলাকায় ব্যাপক গুঞ্জন চলে আসছিল।  ধারনা করা হচ্ছে শ্বাসরোধ করার পর পেট কেটে তাকে হত্যা করা হয়।
এরপর বস্তায় ইট ভরে কোমর ও পায়ে বেঁধে নদীতে ডুবিয়ে দেয়া হয়েছিল। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠায়। ময়না তদন্ত শেষে রাকিবুলের লাশ গ্রামের গোরস্থানে দাফন করা হয়েছে। এ ঘটনায় পুলিশ  চাপড়া ইউপির প্যানেল চেয়ারম্যান ও মেম্বর  ইব্রাহিম শাহ এর ছেলে মনোয়ার হোসেন লালন ও সোহেল নামের দুই যুবককে আটক করেছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত এখনো পর্যন্ত মামলা হয়নি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ