ঢাকা, মঙ্গলবার 10 October 2017, ২৫ আশ্বিন ১৪২8, ১৯ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

জাতীয় ক্রিকেট লিগে শামসুর রহমানের সেঞ্চুরি

স্পোর্টস রিপোর্টার : জাতীয় লিগের দ্বিতীয় স্তরে ঢাকা মেট্রো ও চট্টগ্রামের ম্যাচ ড্র হয়েছে দারুণ উত্তেজনা ছড়ানোর পর। তবে ¤্রাচে সেঞ্চুরি করেছেন শামসুর রহমান। অভাবনীয় এক জয়ের আশা জাগিয়েও শেষ পর্যন্ত পেরে ওঠেনি ঢাকা মেট্রো। প্রথম ইনিংসে ১০৮ রানে লিড পাওয়া ঢাকা মেট্রো দ্বিতীয় ইনিংসে রীতিমত টি-টোয়েন্টি খেলেছে। ২১ ওভারে ১৬৫ রান তুলে ঘোষণা করে ইনিংস। ৬৭ বলে ১০২ রানের দুর্দান্ত অপরাজিত ইনিংস খেলেন শামসুর।
শেষ ইনিংসে চট্টগ্রাম তোলে ৬ উইকেটে ৯৭ রান। গতকাল শেষ দিন শুরু হয়েছিল চট্টগ্রামের প্রথম ইনিংস দিয়ে। ৮ উইকেটে ২১৬ রান নিয়ে শুরু করা দল যায় ২৬১ পর্যন্ত। দশে নেমে ৫ ছক্কায় ৩২ বলে ৫৮ রান করেন অভিষিক্ত ওয়াহিদুল আলম। ঢাকা মেট্রো ব্যাটিংয়ে নেমে শুরু থেকেই তোলে ঝড়। ৬৪ বলে সেঞ্চুরি করেন শামসুর, প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে তার ১৪তম সেঞ্চুরি। ৮ চারের সঙ্গে ইনিংসে ছক্কা ছিল ৫টি। বাকিরাও রান করেছে বলের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে। ঢাকা মেট্রো ইনিংস ঘোষণা করে ২১ ওভার খেলেই। বাকি সময়ে ২৭৪ রান তাড়া করা ছিল ভীষণ কঠিন। চট্টগ্রামের লক্ষ্য ছিল টিকে থাকা। শুরুটাও ভালোই হয়েছিল তাদের। উদ্বোধনী জুটিতে আসে ৪৭ রান। এরপরই বিপত্তি। একের পর এক উইকেট হারিয়ে পরাজয়ের শঙ্কায় পড়ে যায় তারা। ২০ রানের মধ্যে পড়ে যায় ৫ উইকেট। তবে শেষ পর্যন্ত ইরফান শুক্কুরের ব্যাট ভরসা দেয় তাদের। ১১১ বল খেলে ২১ রানে অপরাজিত থাকেন শুক্কুর। প্রথম ইনিংসে ৬৬ রান ও ২ ইনিংস মিলিয়ে ৪ উইকেট নিয়ে ম্যাচ সেরা মোহাম্মদ আশরাফুল।
ঢাকা-বরিশালের ম্যাচও ড্র
জাতীয় ক্রিকেট লিগের চতুর্থ রাউন্ডে খুলনায় বৃষ্টিতে ভেসে গিয়েছে ম্যাচের শেষ দিন। ফলে ঢাকা-বরিশালের ম্যাচের শেষ হয়েছে সমতার মধ্য দিয়ে। প্রথম দু’দিন খেলা হলেও শেষ দু’দিন বৃষ্টির বাগড়ায় ম্যাচের ভাগ্য ড্রয়ে সমাপ্ত হয়। তৃতীয় দিনও খুলনার শেখ আবু নাসের স্টেডিয়ামে ব্যাট-বলের লড়াই হয়েছিল।
কিন্তু চতুর্থ দিনের শুরু থেকেই বৃষ্টি। একটি বলও গড়াতে পারেনি মাঠে এদিন। প্রথম সেশন পরিত্যক্ত হওয়ার পর দুপুর ১টা ৫০ মিনিটে দুই দলকে পয়েন্ট ভাগ করে দেন ম্যাচ রেফারি। ম্যাচ সেরা হয়েছেন বরিশাল বিভাগের মোহাম্মদ নুরুজ্জামান। বল হাতে ১ উইকেট ও ব্যাট হাতে ৬৮ রান করেছেন তিনি। টস জিতে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে ঢাকা বিভাগ প্রথম ইনিংসে করেছিল ২৫০ রান। জবাবে বরিশাল বিভাগ গুটিয়ে যায় ২৯৯ রানে। ৪৯ রানে পিছিয়ে থেকে দ্বিতীয় ইনিংস শুরু করে ৩ উইকেটে ১১০ রান তুলে মোহাম্মদ শরীফের দল। রকিবুল হাসান ৩৯ ও শুভাগত হোম ৫ রানে অপরাজিত ছিলেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ