ঢাকা, বুধবার 11 October 2017, ২৬ আশ্বিন ১৪২8, ২০ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

রাজনৈতিক ও আদর্শিকভাবে মোকাবিলায় ব্যর্থ হয়ে সরকার দলন-পীড়ন চালাচ্ছে

বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর আমীর মকবুল আহমাদ, সেক্রেটারি জেনারেল ডা. শফিকুর রহমান, নায়েবে আমীর মিয়া গোলাম পরওয়ারসহ নেতৃবৃন্দকে গ্রেফতারের প্রতিবাদে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী ঢাকা মহানগরী দক্ষিণ রাজধানীতে বিক্ষোভ মিছিল করে -সংগ্রাম

স্টাফ রিপোর্টার : বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর আমীর মকবুল আহমাদ ও সেক্রেটারি জেনারেল ডা. শফিকুর রহমানসহ ৮ নেতা গ্রেফতারের প্রতিবাদে এবং অবিলম্বে নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ করেছে জামায়াতে ইসলামী। এ সময় উত্তর বাড্ডা এলাকা থেকে ৬ জনকে গ্রেফতার করা হয়। ঢাকা মহানগরী উত্তরের উদ্যোগে আয়োজিত বিক্ষোভে কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ও ঢাকা মহানগরী উত্তরের সেক্রেটারি ড. মুহা. রেজাউল করিম বলেছেন, সরকার রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে রাজনৈতিক ও আদর্শিকভাবে মোকাবেলা করতে ব্যর্থ হয়ে দলন-পীড়নের পথ বেছে নিয়েছে। সে ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবেই বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ ও আমীরে জামায়াত মকবুল আহমাদ এবং সেক্রেটরি জেনারেল ডা. শফিকুর রহমানসহ নেতৃবৃন্দকে সম্পূর্ণ অন্যায়ভাবে গ্রেফতার করা হয়েছে। কিন্তু জুুলুম-নির্যাতন চালিয়ে অতীতে কোন ফ্যাসিবাদী ও স্বৈরাচারি শক্তির শেষ রক্ষা হয়নি, আর আওয়ামী লীগেরও হবে না। তিনি জামায়াতের শীর্ষ নেতৃবৃন্দকে গ্রেফতারের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান এবং অবিলম্বে আটককৃতদের নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করেন। অন্যথায় সরকারকে গণরোষের মুখোমুখী হতে হবে বলে সতর্ক করে দেন।

গতকাল মঙ্গলবার রাজধানীতে কেন্দ্র ঘোষিত বিক্ষোভ কর্মসূচীর অংশ হিসেবে বিক্ষোভ পরবর্তী সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন। বিক্ষোভ মিছিলটি উত্তর বাড্ডা থেকে শুরু হয়ে নগরীর বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে সংক্ষিপ্ত সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়। সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মহানগরীর সহকারী সেক্রেটারি লস্কর মোহাম্মদ তসলিম ও মাহফুজুর রহমান, শিবিরের কেন্দ্রীয় দপ্তর সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম, কেন্দ্রীয় মজলিসে শূরা সদস্য ও ঢাকা মহানগরী উত্তরের কর্মপরিষদ সদস্য মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন ও ঢাকা মহানগরী উত্তরের কর্মপরিষদ সদস্য নাজিম উদ্দীন মোল্লা, ঢাকা মহানগরীর মজলিসে শূরা সদস্য ডা. ফখরুদ্দীন মানিক, মোস্তাফিজুর রহমান, ডা. শফিউর রহমান, আবুল হাসান, হোসাইন আহমদ, আলাউদ্দীন, নাসির উদ্দীন, আনোয়ারুল করিম ও আব্দুল কাইয়ুম মজুমদার, জামায়াত নেতা আতিকুর রহমান, সাইফুল ইসলাম ও ফেরদৌস, ছাত্রনেতা মুজাহিদুল ইসলাম ও সজীব প্রমুখ। বিক্ষোভ সমাবেশ শেষ হলে পুলিশ সম্পূর্ণ অন্যায়ভাবে ৬ পথচারীকে আটক করে।

ড. এম আর করিম বলেন, জামায়াত একটি নিয়মতান্ত্রিক, গণতান্ত্রিক, সাংবিধানিক ও বৈধ রাজনৈতিক সংগঠন। জামায়াত দলীয় কার্যক্রম পরিচালনায় দেশের আইন, সংবিধান ও প্রচলিত নিয়ম অনুসরণ করে আসছে। কিন্তু পুলিশ সম্পূর্ণ ন্যক্কারজনকভাবে আমীরে জামায়াতের নেতৃত্বে ঘরোয়া বৈঠক চলাকালে তিনিসহ কেন্দ্রীয় নেতৃব্ন্দৃকে গ্রেফতার করেছে। যা আইনের শাসন, মানবাধিকার ও রাষ্ট্রীয় সংবিধানের মারাত্মক লঙ্ঘন। তিনি সরকারকে বিরাজনীতিকরণের পথ পরিহার করে গণতান্ত্রিক ও সাংবিধানিক শাসনে ফিরে আসার আহ্বান জানান। অন্যথায় জনগণ ফ্যাসিবাদী সরকারের বিরুদ্ধে তীব্র গণপ্রতিরোধ গড়ে তুলবে।

তিনি বলেন, সরকার দেশকে নেতৃত্বশূন্য করে করদরাজ্য বানানোর জন্যই দেশপ্রেমী জাতীয় নেতৃবৃন্দের বিরুদ্ধে গভীর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে। এ সরকার জামায়াতকে নেতৃত্ব শূন্য করার জন্য পরিকল্পিতভাবে শীর্ষ নেতৃবৃন্দকে সাজানো ও মিথ্যা মামলায় দণ্ডিত করে সাবেক অমীরে জামায়াত মাওলানা মতিউর রহমান নিজামী, সাবেক সেক্রটারি জেনারেল আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ, সাবেক সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল মোহাম্মদ কামারুজ্জামান ও আব্দুল কাদের মোল্লা এবং সাবেক কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদ সদস্য মীর কাসেম আলীকে নির্মম ও নিষ্ঠুরভাবে হত্যা করেছে। কিন্তু নেতৃবৃন্দকে হত্যা করে, জুলুম-নির্যাতন চালিয়ে জামায়াতের অগ্রযাত্রা অতীতে রুদ্ধ করা যায়নি আর কখনো যাবেও না। তিনি সরকারের গণবিরোধী ষড়যন্ত্র মোকাবেলায় দলমত, ধর্মবর্ণ নির্বিশেষে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান।

ঢাকা মহানগরী দক্ষিণ: ৮ কেন্দ্রীয় নেতাকে গ্রেফতারের প্রতিবাদে ও অবিলম্বে তাদের মুক্তির দাবিতে গতকাল মঙ্গলবার সকাল ৯টায় রাজধানীতে এক বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ সমাবেশ করে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী ঢাকা মহানগরী দক্ষিণ। মিছিলটি রাজধানীর বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে নবাবপুর রোডে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়।

বিক্ষোভ মিছিল পরর্বতী সংক্ষিপ্ত সমাবেশে জামায়াত নেতৃবৃন্দ বলেন, সরকার জামায়াতে ইসলামীকে নেতৃত্ব শূন্য করার যে ষড়যন্ত্র চালিয়ে যাচ্ছে তারই অংশ হিসাবে জামায়াতের আমীর বয়োবৃদ্ধ জননেতা মকবুল আহমাদ ও সেক্রেটারি জেনারেল ডা. শফিকুর রহমানসহ ৮ কেন্দ্রীয় নেতাকে গ্রেফতার করেছে। বর্তমান অবৈধ সরকার জনগণের কণ্ঠরোধ করে অন্যায়ভাবে ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্য জাতীয় নেতৃবৃন্দকে একের পর এক গ্রেফতার করছে। দেশে আজ গণতন্ত্র ও আইনের শাসন বলতে কোন কিছুই নেই। সরকার বছরের পর বছর ধরে জামায়াতের কেন্দ্রীয় অফিসসহ দেশের অন্যান্য সকল অফিস বন্ধ করে রেখেছে। ঘরোয়া বৈঠকগুলোতেও হামলা চালিয়ে গ্রেফতার ও ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা মামলা প্রদান করছে। সরকারের এই জুলুম নির্যাতন ও দুঃশাসনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদে সোচ্চার হওয়ার জন্য নেতৃবৃন্দ দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানান। নেতৃবৃন্দ আরোও বলেন, জামায়াতের আমীর মকবুল আহমাদ ও সেক্রেটারি জেনারেল ডা. শফিকুর রহমানসহ ৮ কেন্দ্রীয় নেতাকে অবিলম্বে মুক্তি দেওয়া না হলে এবং তাদের সাথে কোন অন্যায় আচরণ করা হলে সরকারকে এর জন্য কঠোর জবাবদিহি করতে হবে।

বিক্ষোভ মিছিলে উপস্থিত ছিলেন- মহানগরী কর্মপরিষদ সদস্য শামসুর রহমান, কামাল হোসেন, মহানগরী শূরা সদস্য আমিনুর রহমান, হাফিজুর রহমান, মতিউর রহমান, মহিবুল্লাহ ফরিদ, আবু আব্দুল্লাহ, মাহবুবুর রহমান, বাহার উদ্দিন ও বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবিরের কেন্দ্রীয় প্রচার সম্পাদক খালিদ মাহমুদ, ঢাকা মহানগরী পূর্বের সভাপতি ছাত্রনেতা সোহেল রানা মিঠু, ঢাকা মহানগরী পূর্বের সেক্রেটারি ছাত্রনেতা তোফাজ্জল হোসেন, শিবির ঢাকা মহানগরী দক্ষিণ সেক্রেটারি তারিক মাসুম, জামায়াত মতিঝিল থানা সেক্রেটারি মুতাসিম বিল্লাহ, খিলগাঁও থানা সেক্রেটারি মাহমুদ হাসান, রমনা দক্ষিণ থানা সেক্রেটারি আব্দুস সাত্তার সুমন প্রমূখ।

 দেশব্যাপী জামায়াতের বিক্ষোভ

ঢাকা জেলা উত্তর: জামায়াত নেতা আবদুল কাদেরের নেতৃত্বে বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। বিক্ষোভ মিছিল পরবর্তী সংক্ষিপ্ত সমাবেশে জামায়াত নেতা আবদুল কাদের বলেন, বর্তমান আওয়ামী সরকার ফ্যাসিস্ট, গণতন্ত্রের দুশমন। বিরোধী দলের বিশেষ করে জামায়াতে ইসলামীর মত একটি নিয়মতান্ত্রিক ও গণতান্ত্রিক সংগঠনের নেতৃত্ব শূন্য করার জন্য সারাদেশে জামায়াত-শিবিরের নেতাদের অন্যায়ভাবে গ্রেফতার করছে। অবিলম্বে আমীরে জামায়াত মকবুল আহমাদ সেক্রেটারি জেনারেল ডা. শফিকুর রহমানসহ সকল নেতৃবৃন্দকে মুক্তি দিতে হবে। 

বিক্ষোভ মিছিলে আরো উপস্থিত ছিলেন ছাত্রশিবির জেলা সভাপতি নাঈমুর রহমান, জামায়াত নেতা রফিকুল ইসলাম, শিবিরের জেলা সেক্রেটারি হাফেজ ফয়জুল ইসলাম প্রমুখ।

বগুড়া অফিস: জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় আমীর মকবুল আহমদ ও সেক্রেটারি জেনারেল ডা, শফিকুর রহমানসহ কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দকে গ্রেফতারের প্রতিবাদে বগুড়ায় বিক্ষোভ করেছে জামায়াত। কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে জামায়াতে ইসলামী বগুড়া শহর শাখার উদ্যোগে গতকাল মঙ্গলবার সকালে শহরের দ্বিতীয় বাইপাস সড়কের ঘুনিয়াতলায় বিক্ষোভ মিছিল বের হয়। মিছিল শুরুও পূর্বে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে জামায়াত নেতৃবৃন্দ অবিলম্বে জামায়াতের আমীর ও সেক্রেটারি জেনারেলসহ গ্রেফতারকৃত সকল নেতাকর্মীও মুক্তির দাবি জানান।

কক্সবাজার সংবাদদাতা: জামায়াতে ইসলামী আমীর মকবুল আহমদ ও সেক্রেটারি জেনারেল ডাঃ শফিকুর রহমানসহ আটককৃত নেতৃবৃন্দের মুক্তির দাবিতে গতকাল কক্সবাজার শহর জামায়াতের উদ্যোগে বিশাল বিক্ষোভ মিছিল বের হয়েছে। মিছিলে নেতৃত দেন জেলা জামায়াতের আমীর মাওলানা মোস্তাফিজুর রহমান। মিছিলটি প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ সংক্ষিপ্ত সমাবেশে মিলিত হয়। এসময় জামায়াতে ইসলামী ও ইসলামী ছাত্রশিবিরের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

চকরিয়া সংবাদদাতা: জামায়াতের আমীরসহ আটককৃত নেতাকর্মীদের মুক্তির দাবিতে গতকাল মঙ্গলবার বিক্ষোভ মিছিল বের করেছে চকরিয়া উপজেলা জামায়াতে ইসলামী। মিছিলে নেতৃত্ব দেন চকরিয়া পৌরসভা শাখার ভারপ্রাপ্ত আমীর হেদায়ত উল্লাহ ও উপজেলা দক্ষিণের আমীর মুহাম্মদ মোজাম্মেল হক। জামায়াত ও ছাত্রশিবিরের নেতাকর্মীদের উপস্থিতিতে মিছিলটি কক্সবাজার-চট্টগ্রাম মহাসড়ক প্রদক্ষিণ করে সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়।

রাজশাহী অফিস : জামায়াতে ইসলামীর আমির মকবুল আহমাদ ও সেক্রেটারি জেনারেল ডা. শফিকুর রহমানসহ কেন্দ্রীয় নেতাদের অন্যায়ভাবে গ্রেফতারের প্রতিবাদ ও তাদের মুক্তির দাবিতে রাজশাহীতে বিক্ষোভ-সমাবেশ করেছে জামায়াত। কেন্দ্র ঘোষিত বিক্ষোভ কর্মসূচির অংশ হিসেবে গতকাল মঙ্গলবার সকালে রাজশাহী মহানগর জামায়াতের উদ্যোগে নগরীর সাগরপাড়া এলাকায় এ কর্মসূচির আয়োজন করা হয়। 

সমাবেশে জামায়াত নেতৃবৃন্দ বলেন, বর্তমান সরকার ক্ষমতা গ্রহণের পর থেকেই জামায়াতে ইসলামীর নেতাকর্মীদের ওপর অত্যাচার-নির্যাতন ও গ্রেফতার অভিযান চালিয়ে যাচ্ছে। সরকার একদিকে সভা সমাবেশে বাধা দিচ্ছে এবং হামলা চালিয়ে গ্রেফতার করে মিথ্যা মামলা দিয়ে মানবাধিকার লঙ্ঘন করছে। শুধু তাই নয়, সরকার দেশের মানুষকে সাংবিধানিক অধিকার পর্যন্ত ভোগ করতে দিচ্ছেনা। তারা বলেন, সরকার জনগণের সমর্থন ছাড়াই ক্ষমতাকে দীর্ঘায়িত করতে সারা দেশব্যাপী জামায়াতে ইসলামীসহ বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের ওপর নির্যাতনের স্টীম রোলার চালিয়ে যাচ্ছে। জামায়াতের শত শত নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করছে। নেতারা জামায়াতের আমির মকবুল আহমাদ ও সেক্রেটারি জেনারেল ডা. শফিকুর রহমানসহ কেন্ত্রীয় নেতাদের অবিলম্বে মুক্তি দাবি জানান। অন্যথায় কঠোর আন্দোলন গড়ে তোলা হবে বলে হুসিয়ারি দেন তারা। 

এদিকে, সমাবেশের আগে সাগরপাড়া এলাকায় বিক্ষোভ মিছিল বের করেন জামায়াত নেতাকর্মীরা। মিছিলটি ওই এলাকার কয়েকটি সড়ক প্রদক্ষিণ করে। পরে নেতাকর্মীরা সেখানে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে মিলিত হন। এতে মহানগর জামায়াতের নেতৃবৃন্দ বক্তব্য দেন। 

খুলনা অফিস : বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর আমীর মকবুল আহমাদ, নায়েবে আমীর অধ্যাপক মিয়া গোলাম পরওয়ার ও সেক্রেটারি জেনারেল ডা. শফিকুর রহমানসহ নয় জন নেতাকে অন্যায়ভাবে গ্রেফতারের প্রতিবাদে খুলনায় বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। কেন্দ্র ঘোষিত কর্মসূচীর অংশ হিসেবে গতকাল মঙ্গলবার সকালে নগরীর শামসুর রহমান রোডে এ বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়। 

বিক্ষোভ মিছিল শেষে সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ও খুলনা মহানগরী আমীর মাওলানা আবুল কালাম আজাদ। এ সময় উপস্থিত ছিলেন জামায়াত নেতা আবু তামান্না, এম এম রহমান, মো. কিবরিয়া, মো. আব্দুল আজিজ, ইসলামী ছাত্রশিবিরের খুলনা মহানগরী সভাপতি মো. ইমরান খালিদ, সেক্রেটারি মো. হাবিবুর রহমান, আবু হানিফ, মুশাররফ আনসারি, আব্দুর রহমান, নাজমুল হাসান, সাঈদী হাসান, ওবায়দুর রহমান, সোলায়মান হোসেন, হেলাল উদ্দিন প্রমুখ। 

বিক্ষোভ সমাবেশে সভাপতির বক্তব্যে মাওলানা আবুল কালাম আজাদ বলেন, আমীরে জামায়াতসহ শীর্ষ নেতৃবৃন্দকে অন্যায়ভাবে গ্রেফতার করা হয়েছে। সরকারের অন্যায়, জুলুম, নির্যাতন ও ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদ জানানোর সাংবিধানিক অধিকার থেকে জনগণকে বঞ্চিত করছে। মূলত দেশে একদলীয় বাকশালী শাসন ব্যবস্থা কায়েম করেছে। সরকারের মনে রাখা দরকার জনগণ আজ জেগে উঠেছে। গ্রেফতার, গুলী, হত্যা, গুম, নিপীড়ন ও রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস চালিয়ে জনগণের আন্দোলন দমন করা যাবে না। পৃথিবীর কোন স্বৈরশাসকই গণবিস্ফোরণ ঠেকাতে পারেনি, আওয়ামী সরকারও পারবে না ইনশাআল্লাহ্। 

নেতৃবৃন্দ সকল রাজনৈতিক দলসমূহকে সরকারের এই গ্রেফতারের বিরুদ্ধে সোচ্চার হওয়ার জন্য আহ্বান জানান এবং অবিলম্বে আমীরে জামায়াত মকবুল আহমদ, অধ্যাপক মিয়া গোলাম পরওয়ার, ডা. শফিকুর রহমানসহ শীর্ষ নেতৃবৃন্দের মুক্তির দাবি জানান।

সিলেট ব্যুরো : সিলেট মহানগর জামায়াত নেতৃবৃন্দ বলেছেন, অবৈধ সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকেই বাংলাদেশের সবুজ ভু-খন্ডে ইনসাফভিত্তিক সমাজ বিনির্মাণেুর প্রত্যয়দীপ্ত কাফেলা জামায়াত ইসলামীকে নেতৃত্বশূন্য করার জন্য পরিকল্পিতভাবে একের পর এক শীর্ষ নেতৃবৃন্দকে মিথ্যা মামলায় বিচারের নামে ফাঁসি দিয়ে হত্যা করেছে। এরই ধারাবাহিকতায় জামায়াতের আমীর মাওলানা মকবুল আহমদ, সেক্রেটারি জেনারেল ডা: শফিকুর রহমান, নায়েবে আমীর মিয়া গোলাম পারওয়ারসহ শীর্ষ নেতৃবৃন্দকে অন্যায়ভাবে গ্রেফতার করা হয়েছে। এর পরিণতি অবৈধ সরকারের জন্য মঙ্গলজনক হবে না। বিচারের নামে অবিচার চালিয়ে ফাঁসি দিয়ে জামায়াতের অগ্রযাত্রা দমিয়ে রাখা সম্ভব হয়নি, শীর্ষ নেতৃবৃন্দকে আটক করে জামায়াতের অগ্রগতি স্তব্ধ করা যাবে না। অবিলম্বে আমীরে জামায়াতসহ গ্রেফতারকৃত সকল নেতৃবৃন্দকে নিঃশর্ত মুক্তি দিতে হবে।

গতকাল মঙ্গলবার জামায়াত কেন্দ্র ঘোষিত দেশব্যাপী বিক্ষোভ কর্মসুচীর অংশ হিসেবে আমীরে জামায়াত মকবুল আহমদ, সেক্রেটারি জেনারেল ডা: শফিকুর রহমান, নায়েবে আমীর অধ্যাপক মিয়া গোলাম পারোয়ার সহ শীর্ষ নেতৃবৃন্দকে গ্রেফতারের প্রতিবাদে নগরীতে বিক্ষোভ মিছিল বের করে সিলেট মহানগর জামায়াত। মিছিল পরবর্তী সংক্ষিপ্ত সমাবেশে নেতৃবৃন্দ উপরোক্ত কথা বলেন।

বিক্ষোভ মিছিলে উপস্থিত ছিলেন ও বক্তব্য দেন- সিলেট মহানগর জামায়াতের সেক্রেটারি মাওলানা সোহেল আহমদ, সহকারী সেক্রেটারি মো: শাহজাহান আলী, জামায়াত নেতা মুফতী আলী হায়দার, মশাহিদ আহমদ, মু. আজিজুল ইসলাম, চৌধুরী আব্দুল বাছিত নাহির ও ইসলামী ছাত্রশিবির সিলেট মহানগর সেক্রেটারি নজরুল ইসলাম প্রমুখ।

বরিশাল অফিস : বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর আমীর মোঃ মকবুল আহমেদ ও সেক্রেটারি জেনারেল ডাঃ শফিকুর রহমানসহ কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দকে আটকের প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল করেছে বরিশাল নগর জামায়াত। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে নগরীর নবগ্রাম রোডে এ বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। মিছিলে নেতৃত্বদেন মহানগর জামায়াতের কর্মপরিষদ সদস্য মোঃ মিজানুর রহমান, শিবির মহানগর সভাপতি মোঃ জাবের হোসাইন।

মিছিল পরবর্তী সমাবেশে বক্তারা বলেন, বিনা কারণে পুলিশ জামায়াতে ইসলামীর আমীর মকবুল আহমদ এবং সেক্রেটারি জেনারেল ডাঃ শফিকুর রহমানসহ ৯ নেতাকে গ্রেফতার করেছে। বর্তমান অবৈধ সরকার ক্ষমতা ধরে রাখতে জামায়াতের শীর্ষ নেতাদের মিথ্যা মামলায় মৃত্যুদন্ড দিয়ে নেতৃত্ব শূন্য করেছে। আবার এই খুনি বাকশালী সরকার গ্রেফতার নির্যাতন করে জামায়াতের কার্যক্রম থামিয়ে দেওয়ার ষড়যন্ত্র করে চলছে। সারাদেশে জামায়াতের নেতাকর্র্মীদের বিরুদ্ধে কয়েকহাজার মিথ্যা মামলা দিয়ে বিরামহীন হয়রানি ও জুলুম করে যাচ্ছে। 

বক্তারা এসময় গ্রেফতারকৃত জামায়াতের আমীর মকবুল আহমেদ ও সেক্রেটারি জেনারেল ডাঃ শফিকুর রহমানসহ ৯ নেতাকর্মীর অবিলম্বে মুক্তি দাবী করে বলেন, ক্ষমতা আওয়ামী লীগের জন্য চিরস্থায়ী বন্দবস্ত হয়নি। একদিন আপনাদের ক্ষমতা হারাতে হবে এবং সেদিনের পরিনতির কথা ভেবে প্রস্তুতি নিন।

এদিকে জামায়াতে ইসলামীর আমীর ও সেক্রেটারি জেনারেলসহ ৯ নেতাকর্মীকে আটকের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ এবং অবিলম্বে সতাদের নিঃশর্ত মুক্তি দাবী করে বিবৃতি দিয়েছে বরিশাল মহানগর জামায়াত। বিবৃতি দাতারা হলেন, জামায়াতের কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ও বরিশাল মহানগর জামায়াতের আমীর এ্যাডভোকেট মুয়যযম হোসাইন হেলাল, নায়েবে আমীর অধ্যক্ষ আমিনুল ইসলাম খসরু, সেক্রেটারি জহির উদ্দিন মুহাঃ বাবর।

গাজীপুর সংবাদদাতা : আমীরে জামায়াতসহ গ্রেফতারকৃত সকল শীর্ষ নেতাদের নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করেছে গাজীপুর মহানগর জামায়াত। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে গাজীপুর মহানগর জামায়াতের অফিস সেক্রেটারি ইরফানুল হকের নেতৃত্বে বের হওয়া বিশাল বিক্ষোভ মিছিলটি ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের সাইনবোর্ড ও জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় এলাকা গ্রদক্ষিণ শেষে পথসভার মাধ্যমে শেষ হয়।

পথসভায় বক্তব্য প্রদানকালে জনাব ইরফানুল হক বলেন, শীর্ষ নেতাদের বেআইনিভাবে গ্রেফতার-নির্যাতন করে ইসলামী আন্দোলনকে বাধাগ্রস্ত করা যাবে না।

মিছিলে অন্যান্যের মাঝে উপস্থিত ছিলেন জামায়াত নেতা হাফেজ মোতালিব হোসেন মন্ডল, মোঃ মনির হোসেন, মোঃ আশরাফ আলী কাজল, মোঃ জিয়াউর রহমান, মোঃ মুহিউদ্দীন, ছাত্রশিবির গাজীপুর মহানগর সভাপতি ইশমাম আব্দুল্লাহ ও সেক্রেটারি মিজানুর রহমানসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।

এদিকে মঙ্গলবার এক যুক্ত বিবৃতিতে মহানগর জামায়াতের আমীর অধ্যক্ষ এস এম সানাউল্লাহ ও সেক্রেটারি খায়রুল হাসান আমীরে জামায়াতসহ শীর্ষ নেতৃবৃন্দের নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করে বলেন, ইসলামী আন্দোলনকে নেতৃত্বশূন্য করতেই নেতৃবৃন্দকে অন্যায়ভাবে গ্রেফতার করা হয়েছে।

কুমিল্লা অফিস : বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্র ঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে জামায়াতের আমীর মকবুল আহম্মেদসহ আটক নেতৃবৃন্দকে গ্রেফতারের প্রতিবাদে ও মুক্তির দাবিতেকুমিল্লা মহানগরী জামায়াতের উদ্যাগে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করে।

কুমিল্লা মহানগরী জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারি মাহাবুবর রহমানের নেতৃত্বে মিছিলটি নগরীর সালাউদ্দিন মোড় থেকে শুরু হয়ে টমচমব্রীজ এসে সমাবেশে মাধ্যমে শেষে হয়।

এসময় উপস্থিত ছিলেন জামায়াত নেতা আমীর হোসাইন ফরায়েজী,কামরুজ্জামান সোহেল,কাজী নজীর আহম্মেদ,মোহাম্মদ হোসাইন, কুমিল্লা মহানগরী ছাত্রশিবির সভাপতি মো শাহাদাত হোসাইন,সেক্রেটারি হাবিবুর রহমান মজুমদারসহ আরো অনেকে।

শাহরাস্তি (চাঁদপুর) সংবাদদতা : আমীরে জামায়াত মকবুল আহমাদ, সেক্রেটারি জেনারেল ডাঃ শফিকুর রহমান, নায়েবে আমীর অধ্যাপক মিয়া গোলাম পরওয়ার, চট্টগ্রাম মহানগরীর আমীর মাওলানা মোহাম্মদ শাহাজাহান, চট্টগ্রাম মহানগরী সেক্রেটারি নজরুল ইসলাম, চট্টগ্রাম দক্ষিন জেলা আমীর জাফর সাদেককে অন্যায়ভাবে গ্রেফতারের প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে জামায়াতে ইসলামী শাহরাস্তি উপজেলা শাখা। গতকাল মঙ্গলবার সকালে জামায়াত-শিবির নেতৃবৃন্দের নেতৃত্বে অনুষ্ঠিত বিক্ষোভ মিছিটি চাঁদপুর-কুমিল্লা আঞ্চলিক মহাসড়কের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন করে সংক্ষিপ্ত সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়।

সমাবেশে নেতৃবৃন্দ বলেন, বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী একটি নিয়মতান্ত্রিক, গণতান্ত্রিক, আইনানুগ রাজনৈতিক দল। জামায়াতে ইসলামী তার দলীয় কর্মসূচী পরিচালনায় দেশের আইন, সংবিধান ও প্রচলিত নিয়ম অনুসরণ করে চলে। ঘরোয়া বৈঠক চলাকালে পুলিশ অন্যায়ভাবে দলের আমীরসহ কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দকে গ্রেফতার করে। আমরা সরকারের এ অন্যায় ন্যক্কারজনক ভূমিকার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

চাঁদপুর সংবাদদাতা : বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় আমীর মকবুল আহমাদ ও সেক্রেটারি জেনারেল ডা. শফিকুর রহমানসহ ৯ নেতার গ্রেফতারের প্রতিবাদে এবং অবিলম্বে নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে গতকাল মঙ্গলবার চাঁদপুর শহরে বিক্ষোভ করেছে শহর জামায়াত। শহর জামায়াতে ইসলামীর নেতৃত্বে একটি বিক্ষোভ মিছিল মাতৃপীঠ মোড় থেকে শুরু হয়ে শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে সংক্ষিপ্ত সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়। বিক্ষোভ মিছিলে উপস্থিত ছিলেন জেলা জামায়াতের, শহরের ও ইসলামী ছাত্র শিবিরের নেতৃবৃন্দ।

বিক্ষোভ মিছিল পরর্বতী সংক্ষিপ্ত সমাবেশে জামায়াত নেতৃবৃন্দ বলেন, সরকার রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে রাজনৈতিক ও আদর্শিকভাবে মোকাবেলা করতে ব্যর্থ হয়ে দলন-পীড়নের পথ বেছে নিয়েছে। 

বক্তারা বলেন, সে ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবেই বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ ও কেন্দ্রীয় আমীরে জামায়াত মকবুল আহমাদ এবং সেক্রেটরি জেনারেল ডা. শফিকুর রহমানসহ নেতৃবৃন্দকে সম্পূর্ণ অন্যায়ভাবে গ্রেফতার করা হয়েছে। কিন্তু জুুলুম-নির্যাতন চালিয়ে অতীতে কোন ফ্যাসীবাদী ও স্বৈরাচারি শক্তির শেষ রক্ষা হয়নি, আর আওয়ামী লীগেরও হবে না। তিনি জামায়াতের শীর্ষ নেতৃবৃন্দকে গ্রেফতারের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান এবং অবিলম্বে আটককৃতদের নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ