ঢাকা, বুধবার 11 October 2017, ২৬ আশ্বিন ১৪২8, ২০ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

প্রধান বিচারপতির স্বাধীনতা না থাকলে বিচার ব্যবস্থাও থাকে না

প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র নাথ সিনহাকে গৃহবন্দী, আইনের শাসনের প্রতি হস্তক্ষেপ, বিচার বিভাগের স্বাধীনতা ও মর্যাদা রক্ষার দাবিতে গতকাল মঙ্গলবার সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণে বাংলাদেশ আইনজীবী সমিতির উদ্যোগে অবস্থান ধর্মঘট পালন করা হয় -সংগ্রাম

 

স্টাফ রিপোর্টার : সুপ্রিম কোর্ট বার এসোসিয়েশনের সভাপতি জয়নুল আবেদীন বলেছেন, যে দেশে প্রধান বিচারপতির স্বাধীনতা থাকে না, সে দেশে বিচার ব্যবস্থাও থাকে না। চাপের কাছে নত না হয়ে দেশে থাকার জন্য প্রধান বিচারপতির প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

গতকাল মঙ্গলবার দুপুর সোয়া ১টায় সুপ্রিম কোর্ট বার ভবনে সভাপতির কক্ষের সামনে এক কর্মসূচিতে এডভোকেট জয়নুল আবেদীন এ কথা বলেন । প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার (এস কে) সিনহার সঙ্গে আইনজীবীদের সাক্ষাতে বাধা দেয়ার প্রতিবাদ এবং বিচার বিভাগের ভাবমূর্তী রক্ষার দাবিতে দেশের সকল জেলা বারে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ কর্মসূচির অংশ হিসেবে এ কর্মসূচি পালন করছে সুপ্রিম কোর্ট বার। 

এডভোকেট জয়নুল আবেদীন বলেন, গতকালকে (সোমবার) আমরা প্রধান বিচারপতিকে আহ্বান জানিয়েছিলাম জীবন থাকতে আপনি দেশ ছাড়বেন না। আপনি আমাদের কথা শুনেছেন। এ কারণে বারের পক্ষ থেকে আপনাকে ধন্যবাদ।

তিনি বলেন, যতক্ষণ পর্যন্ত আপনি বেঁচে থাকেন, যতক্ষণ পর্যন্ত আপনাকে সুপ্রিম কোর্টে ফিরিয়ে আনা না হবে, ততক্ষণ পর্যন্ত আপনি বিদেশে যাবেন না। আপনার সঙ্গে সারা দেশের মানুষ আছে। তারা জানে আপনাকে জোর করে ছুটিতে পাঠানো হয়েছে। আমরা জেনেছি তার মন শক্ত, দৃঢ় ও কঠিন রয়েছে। আপনার জীবন বেঁচে থাকতে সুপ্রিম কোর্ট ছেড়ে যাবেন না। 

আওয়ামীপন্থী আইনজীবীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, আজকে যারা আওয়ামীপন্থী আইনজীবী হিসেবে সভা করছেন, তারা সুপ্রিম কোর্ট বার থেকে কোনো অনুমতি নেন নাই। তাদের বলছি, এ সুপ্রিম কোর্ট বার আইনের শাসনের বার, শামসুল হক চৌধুরীর বার। এই বারের ভাবমূর্তি নষ্ট করবেন না।

বারের সম্পাদক ব্যারিস্টার মাহ্বুব উদ্দিন খোকন বলেন, প্রধান বিচারপতি আজকে গৃহ্বন্দী। আমরা মনে করি, স্বাধীন বিচার ব্যবস্থাও আজ গৃহ্বন্দী। আমরা আশা করেছিলাম, আপিল বিভাগের বিচারপতিরা এই অন্যায়ের বিরুদ্ধে কথা বলবেন। আমরা এখনও তা আশা করছি।

তিনি বলেন, আজকে সংবিধানের রক্তক্ষরণ হচ্ছে। স্বাধীন বিচার বিভাগের রক্তক্ষরণ হচ্ছে। রক্তক্ষরণ হচ্ছে আমাদের হৃদয়ে। যারা এই রক্তক্ষরণের সঙ্গে জড়িত, তাদের এই দায়ভার নিতে হবে।

কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন আইনজীবী নিতাই রায় চৌধুরী, আবেদ রাজা, গোলাম মোহাম্মদ চৌধুরী আলাল, রবিউল করিম, মনির হোসেন, গাজী কামরুল ইসলাম সজল, আরিফা জেসমিন নাহিন, আবদুল্লাহ আল মাহ্বুব, শরীফ ইউ আহমেদ, মজিবুর রহমান, জহিরুল ইসলাম সুমন প্রমুখ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ