ঢাকা,বৃহস্পতিবার 19 October 2017, ৪ কার্তিক ১৪২8, ২৮ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

ভিন্ন ফর্মেটে শ্রীলংকাকে পরাস্ত করার আশা করছে পাকিস্তান

ফাইল ছবি

সংগ্রাম অনলাইন : লংগার ভার্সনে হারলেও পরিবর্তিত ফর্মেটে আগামীকাল দুবাইতে শুরু হওয়া পাঁচ ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজে শ্রীলংকাকে হারানোর আশা করছে স্বাগতিক পাকিস্তান।

সীমিত ওভার ফর্মেটের আগে টেস্ট সিরিজে ২-০ ব্যবধানে হোয়াউটওয়াশ হয়েছে পাকিস্তান। তবে এবার পরিবর্তিত ফর্মেটে নিজেদের ভাগ্য পরিবর্তন এবং গত জুনে ইংল্যান্ডে অনুষ্ঠিত আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির ফর্মটা অব্যাহত রাখতে চায়।

কেবলমাত্র অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদ, ব্যাটসম্যান হারিস সোহেল এবং বাবার আজম ও ফাস্ট বোলার হাসান আলী টেস্ট দলে ছিলেন। অভিজ্ঞ অলরাউন্ডার মোহাম্মদ হাফিজ এবং ওপেনার মোহাম্মদ শেহজাদসহ ১১ জন ওয়ানডে দলে যোগ দিয়েছেন।

অধিনায়ক হিসেবে নিজের প্রথম টেস্ট সিরিজ হেরে বেশ চাপ অনুভব করলেও সিমিত ওভারের ম্যাচে আরো ভাল পারফরমেন্স করতে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ সরফরাজ।

চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির গ্রুপ পর্বে শ্রীলংকার বিপক্ষে ম্যাচ জয়ী অপরাজিত ৬১ রানের ইনিংস খেলা সরফরাজ আহমেদ বলেন, ‘অধিনায়ক হিসেবে আপনি যখন প্রথম টেস্ট সিরিজ হারবেন, তখণ অবশ্যই একটা চাপ থাকবে।’

‘তবে আমরা সে অবস্থা থেকে বেড়িয়ে আসার চেস্টা করব। আমাদের ওয়ানডে দলটি ভারসাম্যপূর্ণ এবং আমাদের রেকর্ড বেশ ভাল। দলে বেশ কয়েকজন সিনিয়র খেলোয়াড় ফিরেছেন এবং আশা করছি আমরা আরো ভাল ক্রিকেট খেলব।’

চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির ফাইনালে ভারতের বিপক্ষে জয় পাওয়া ম্যাচে সেঞ্চুরি করা ফখর জামান, লেগ স্পিনার শাদাব খান, অলরাউন্ডার ইমাদ ওয়াসিম, ফাহিম আশরাফ এবং পেসার রুম্মন রইস, জুনাইদ খান এবং উসমান সিনওয়ারির মত দ্রুত তারকা খ্যাতি পাওয়া বেশ কিছু তরুণ খেলোয়াড়ও পাকিস্তান দলে রয়েছে।

দুবাইতে দ্বিতীয় টেস্টে পাঁজরে আঘাত পাওয়ায় ওয়ানডে সিরিজ থেকে নাম প্রত্যাহার করে নিয়েছেন দলের পেস সুপারহেড মোহাম্মদ আমির।

২০০৯ সালে লাহোরে শ্রীলংকা দল বহনকারী বাসে সন্ত্রাসী হামলার পর নিজেদের হোম গ্রাউন্ড বানানো সংযুক্ত আরব আমিরাতের মাটিতে নিজেদের দশম টেস্ট সিরিজে হারের স্বাদ পেয়েছে পাকিস্তান।

তবে এখানে পাকিস্তানের ওয়ানডে রেকর্ড মোটেই ভাল নয়। ২০০৯ সাল থেকে মধ্য প্রাচ্যে ১২টির মধ্যে ৯টি ওয়ানডে সিরিজে হেরেছে পাকিস্তান। তারা কেবলমাত্র শ্রীলংকার বিপক্ষে দুই বার এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে একবার সিরিজ জিতেছে।

পক্ষান্তরে নিজেদের শেষ ২১ ওয়ানডে ম্যাচের মধ্যে ১৬ ম্যাচেই পরাজিত হয়েছে শ্রীলংকা। বাকি চারটিতে জিতেছে এবং একটি হয়েছে পরিত্যক্ত। দক্ষিণ আফ্রিকা ও ভারতের কাছে পাঁচ ম্যাচ সিরিজে হোয়াইটওয়াশ ছাড়াও দুর্বল জিম্বাবুয়ের কাছে প্রথমবার ওয়ানডে সিরিজ পরাজিত হয়েছে লংকানরা।

গত মাসে ভারতের কাছে পরাজয়ে বেশ চাপে অধিনায়ক উপুল থারাঙ্গা। ভারতের বিপক্ষে সিরিজে কোন ম্যাচেই ২৫০ রান স্পর্শ করতে না পারা লংকার অধিনায়ক থারাঙ্গা বলেন, ‘আমাদের ধারাবাহিকতার অভাব ছিল। আমারা ব্যাটিং, বোলিং, ফিল্ডিং কোন বিভাগেই ভাল করতে পারিনি। দলের ব্যাটিং পারফরমেন্স নিয়ে আমি অসন্তস্ট। তবে পাকিস্তানের বিপক্ষে এ সিরিজে ভাল করতে আমরা মুখিয়ে আছি।’ সূত্র: বাসস। 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ