ঢাকা, রোববার 15 October 2017, ৩০ আশ্বিন ১৪২8, ২৪ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

মুক্তিযোদ্ধা পরিষদের মহাসচিব মোহাম্মদ ইকবাল আর নেই

গতকাল শনিবার মোহাম্মদপুর কৃষি মার্কেট তাহেরিয়া জামে মসজিদ চত্বরে বিশিষ্ট ব্যবসায়ী বীর মুক্তিযোদ্ধা জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা পরিষদের সেক্রেটারি মোহাম্মদ ইকবাল হোসাইনের নামাযে জানাযা অনুষ্ঠিত হয় -সংগ্রাম

স্টাফ রিপোর্টার : বীর মুক্তিযোদ্ধা ও জাতীয় মু্িক্তযোদ্ধা পরিষদের মহাসচিব মোহাম্মদ ইকবাল গত শুক্রবার রাত পৌনে তিনটায় ঢাকাস্থ ইবনে সিনা হাসপাতালে ইন্তিকাল করেছেন-ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলায়হি রাজিউন। তার বয়স হয়েছিল ৬৩ বছর। তিনি দীর্ঘদিন লিভার ক্যান্সারসহ নানাবিধ শারীরিক জটিলতায় ভূগছিলেন। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, ১ ছেলে এবং ১ মেয়ে সহ অসংখ্য আত্মীয়-স্বজন ও গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। তিনি ৭ ভাই ২ বোনের মধ্যে চতুর্থ। তার জন্মস্থান লক্ষ্মীপুর জেলার রাজগঞ্জ উপজেলার সোনাপুর গ্রামে। তিনি ঢাকার আদাবর থানার শ্যামলী হাউজিং সোসাইটিতে বসবাস করতেন।
মরহুমের প্রথম নামাযে জানাযা গতকাল শনিবার বেলা সাড়ে ১১ টায় ধানমন্ডি ঈদগাহ মাঠে এবং শেষ জানাযা বাদ জু’মা মোহাম্মদপুর কৃষি মার্কেট মসজিদে অনুষ্ঠিত হয়। জানাযায় জামায়াত নেতৃবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য  মোবারক হোসাইন, ঢাকা মহানগরী উত্তরের নায়েবে আমীর আব্দুর  রহমান মুসা, কেন্দ্রীয় মজলিসে শুরা সদস্য শহীদুল ইসলাম ও শহীদ ফারুকী, ঢাকা মহানগরী উত্তরের সহকারি সেক্রেটারি মাহফুজুর রহমান, ঢাকা মহানগরী উত্তরের কর্মপরিষদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার গোলাম মোস্তফা ও হেমায়েত হোসেন, ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের মসলিশে শুরা সদস্য রফিকুন্নবী, ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের কর্মপরিষদ সদস্য অধ্যাপক নূরনবী মানিক, নিউ মার্কেট থানা আমীর ফরিদ হোসেন, ধানমন্ডি থানা আমীর এডভোকেট জসিম উদ্দীন তালুকদার, ডা. শফিউর রহমান ও মোস্তাফিজুর রহমান। মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা পরিষদের কেন্দ্রীয় সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার  মোসলেম উদ্দীন, ঢাকা মহানগরীর সহ-সভাপতি ও সাব- সেক্টর কমান্ডার ফজলুল হক ও বীর মুক্তিযোদ্ধা শামসুদ্দীন প্রমুখ। নামাযে জানাযায় বিপুল সংখ্যক সাধারণ মুসল্লীও অংশ গ্রহণ করেন। পরে তাকে  মোহাম্মদপুরস্থ সলিমুল্লাহ রোড কবরস্থানে দাফন করা হয়।
শোকবাণী: বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ ইকবালের ইন্তিকালে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদ সদস্য ও ঢাকা মহানগরী উত্তরের আমীর মুহাম্মদ সেলিম উদ্দিন।
গতকাল দেয়া শোকবাণীতে মহানগরী উত্তর আমীর বলেন, মোহাম্মদ ইকবালের মৃত্যুতে আমরা একজন দেশপ্রেমী বীর মুক্তিযোদ্ধাকে হারালাম। তার অকাল মৃত্যুতে যে শুণ্যতা সৃষ্টি হয়েছে তা সহজেই পূরণীয় নয়। মরহুম ১৯৭১ সালে মহান মুক্তি সংগ্রামে মরণপণ লড়াইয়ে অংশ নিয়ে দেশ, জাতি ও স্বাধীনতার জন্য যে অসামান্য অবদান রেখে  গেছেন জাতি তা চিরদিন শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করবে। তিনি সামাজিক সংগঠনের সাথে জড়িত থেকে আর্ত-মানবতার কল্যাণে আত্মনিয়োগ করার জন্যও গণমানুষের কাছে শ্রদ্ধার পাত্র হয়ে থাকবেন।
মহানগরী আমীর মরহুমের রুহের মাগফিরাত কামনা করেন এবং তার শোকাহত পরিবার পরিজনের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।
ড. হেলালের শোক: বীর মুক্তিযোদ্ধা মুহাম্মদ ইকবাল  হোসেনের ইন্তিকালে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন জামায়াতে ইসলামী ঢাকা মহানগরী দক্ষিনের ভারপ্রাপ্ত আমীর ও কেন্দ্রীয় মজলিশে শুরা সদস্য এডভোকেট ড. হেলাল উদ্দিন। এক শোক বিবৃতিতে ড. হেলাল রাজনীতি ও মুক্তিযুদ্ধে মরহুমের অসামান্য অবদানের কথা স্মরণ করেন।
তিনি বলেন, তার মৃত্যুতে জাতি এক বীর মুক্তিযোদ্ধা ও নিবেদিত সমাজ সেবক নেতাকে হারালো। শোক বার্তায় ড. হেলাল মরহুমের রুহের মাগফেরাত কামনা করেন ও শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জানান। তিনি বলেন, আল্লাহ যেন তাঁর নেক আমল সমূহ কবুল করে তাকে জান্নাতবাসী করেন এবং পরিবার ও আত্মীয় স্বজনকে সবর করার তৌফিক দান করেন।
শ্রমিক কল্যাণ ফেডারেশনের শোক: বাংলাদেশ শ্রমিক কল্যাণ ফেডারেশন ঢাকা মহানগরীর সাবেক সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্বা মোঃ ইকবাল হোসেনের ইন্তিকালে গভীর শোক ও সমবেদনা জানিয়েছেন বাংলাদেশ শ্রমিক কল্যাণ ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় ভারপ্রাপ্ত  সভাপতি  অধ্যাপক হারুন অর রশিদ খান ও কেন্দ্রীয় ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি লস্কর মোঃ তাসলিম।
এক শোকবাণীতে নেতৃবৃন্দ বলেন, জনাব ইকবালের মৃত্যুতে শুধু ইসলামী শ্রমণীতি প্রতিষ্ঠার আন্দোলনের একজন মহান নেতাকে হারালোনা বরং দেশ এবং জাতি একজন মহান মহান মুক্তিযোদ্ধা কে হারালো। মহান স্বাধীনতাযুদ্বে ২ নং সেক্টরের একজন মুক্তিযোদ্বা ছিলেন তিনি।
তার ইন্তিকালে জনগণের মত আমরাও গভীরভাবে শোকাহত। ইসলামী শ্রমণীতি ও আদর্শ সমাজ কায়েমের জন্য তিনি সারাজীবন সংগ্রাম করে গিয়েছেন। তার আত্ম ত্যাগ ইসলামী শ্রমনীতির আন্দোলনের নেতা-কর্মীদের জন্য অনুপ্রেরণার উৎস হয়ে থাকবে।
 শোকবাণীতে নেতৃবৃন্দ  আরো বলেন, মরহুমের জীবনের সকল নেক আমল কবুল করে মহান আল্লাহ রাব্বুল আ’লামীন তাকে জান্নাতে উচ্চ মর্যাদা দান করুন। তার শোক-সন্তপ্ত পরিবার-পরিজন ও সহকর্মী এবং গুণগ্রাহীদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানিয়ে আমরা দোয়া করছি মহান আল্লাহ তায়ালা তাদের এ শোক সহ্য করার তাওফিক দান করুন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ