ঢাকা, রোববার 15 October 2017, ৩০ আশ্বিন ১৪২8, ২৪ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

গাজীপুরে এক কারারক্ষী আটক : ইয়াবা ও মাদক বিক্রির টাকা উদ্ধার

গাজীপুর সংবাদদাতা : গাজীপুরে কাশিমপুর হাইসিকিউরিটি কেন্দ্রীয় কারা ক্যাম্পাস হতে মাদক সেবন ও বিক্রির অভিযোগে এক কারারক্ষীকে হাতে নাতে আটক করা হয়েছে। তবে ঘটনার পর থেকে অপর দু’কারারক্ষী পলাতক রয়েছে। এসময় আটককৃতের কাছ থেকে এক পিস ইয়াবা ও মাদক বিক্রির ২১ হাজার টাকা জব্দ করা হয়। শনিবার সন্ধ্যায় আটককৃতকে জয়দেবপুর থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়। আটককৃত কারারক্ষীর নাম পলাশ হোসেন (৩০)। তিনি রাজবাড়ি জেলার বালিয়াকান্দি এলাকার গোলাম মোস্তফার ছেলে। ডিআইজি (প্রিজনস) তৌহিদুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
কাশিমপুর হাইসিকিউরিটি কেন্দ্রীয় কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার মোঃ মিজানুর রহমান জানান, মাদক সংশ্লিষ্টতার কারণে প্রায় তিন মাস আগে শরীয়তপুর জেলা কারাগারের কারারক্ষী পলাশ হোসেনসহ তিন কারা রক্ষীকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। পরে সাময়িক বরখাস্তকৃত পলাশকে গাজীপুর জেলা কারাগারে সংযুক্ত করা হয়। তার গতিবিধি সন্দেহজনক হওয়ায় গোয়েন্দা বিভাগের লোকজন তার উপর নজর রাখছিল। শুক্রবার রাতে পলাশ গাজীপুর জেলা কারাগার এলাকা হতে গোপনে কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার ক্যাম্পাসে যায়। সেখানে কাশিমপুর হাই সিকিউরিটি কেন্দ্রীয় কারাগারের রক্ষী মোঃ মজনুকে সঙ্গে নিয়ে পলাশ হাই সিকিউরিটি কেন্দ্রীয় কারাগারের অপর কারা রক্ষী রাকিব হোসেনের বাসায় যায়। কারা ক্যাম্পাসের এ বাসায় বসে তারা ইয়াবা সেবন ও বেচাকেনা করছে। এমন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সিনিয়র জেল সুপারের নির্দেশে সেখানে অভিযান চালায় কারারক্ষীদের একটি টিম। এসময় তারা পলাশকে আটক করতে পারলেও মিজানুর রহমান ও রাকিব পালিয়ে যায়। এসময় আটককৃতের কাছ থেকে এক পিস ইয়াবা ও মাদক বিক্রির ২১ হাজার টাকা জব্দ করা হয়। এ ঘটনায় তাদের বিরুদ্ধে শনিবার জয়দেবপুর থানায় অভিযোগ দেয়া হয়। সন্ধ্যায় আটক পলাশকে জয়দেবপুর থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।
ডিআইজি (প্রিজন) তৌহিদুল ইসলাম জানান, মাদকের ব্যাপারে কাউকে কোন ছাড় দেওয়া হবে না। মাদক সংশ্লিষ্টতার ব্যাপারে গোপনে সন্দেহভাজন কারারক্ষীদের ওপর নজরদারি করা হচ্ছে। বিভিন্ন সূত্রে প্রাপ্ত সংবাদের সত্যতা যাচাই করে যে সব কারারক্ষী মাদক সেবন ও বহনের সঙ্গে জড়িত তাদের চিহ্নিত করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। এ ব্যবস্থা অব্যাহত থাকবে।
উল্লেখ্য, এরআগে গত ২১ সেপ্টেম্বর মাদক ব্যবসা ও সেবনের অভিযোগে কাশিমপুর হাইসিকিউরিটি কারাগারসহ কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার-১ ও ২ এর ৫ কারারক্ষীকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে কারা কর্তৃপক্ষ। এদের মধ্যে চার জনের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা ও একজনের বিরুদ্ধে ফৌজদারী মামলা রুজু করা হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ