ঢাকা, শনিবার 18 November 2017, ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২8, ২৮ সফর ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

বিশ্বের সর্বকনিষ্ঠ সরকারপ্রধান পেতে যাচ্ছে অস্ট্রিয়া

সংগ্রাম অনলাইন ডেস্ক: একত্রিশ বছর বয়সী জেবাস্টিয়ান কুর্তস হতে চলেছেন অস্ট্রিয়ার নতুন চ্যান্সেলার, সেই সঙ্গে বিশ্বের তরুণতম রাষ্ট্রনায়ক। বর্তমানে তিনি দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী এবং রক্ষণশীল পিপলস পার্টির (ওভিপি) প্রধান।

বিবিসির খবরে বলা হচ্ছে, কুর্তস নেতৃত্বাধীন রক্ষণশীল পিপলস পার্টি রোববারের সাধারণ নির্বাচনে জয় পেতে চলেছে বলেই বুথফেরত জরিপে আভাস মিলেছে।

বয়সের কারণে অস্ট্রিয়ার রাজনীতিতে কুর্তসকে তুলনা করা হয় ফরাসি নেতা ইমানুয়েল ম্যাঁক্রো আর কানাডার জাস্টিন ট্রুডোর সঙ্গে। পার্থক্যটা হল, ম্যাঁক্রো বা ট্রুডোর মত কুর্তস উদারপন্থি নন। 

গত মে মাসে রক্ষণশীল পিপলস পার্টির (ওভিপি) প্রধান হিসেবে দায়িত্ব নেন। তার নেতৃত্বে ওভিপির যেন নবজন্ম হয়েছে।

রোববার অস্ট্রিয়ায় জাতীয় নির্বাচনে ভোট গ্রহণ করা হয়। আগাম জরিপ অনুযায়ী, জয়ের সম্ভাবনা কুর্জের ওভিপির। একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা না পেলেও জোট সরকার গঠনের সুযোগ পাবেন কুর্জ। তাই যদি হয়, তাহলে তরুণ সরকারপ্রধান হিসেবে তিনি হবেন অতুলনীয়।

এখনও পর্যন্ত বর্তমান বিশ্বে সর্বকনিষ্ঠ সরকারপ্রধান ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রোঁ।

আগাম জরিপ অনুযায়ী, নির্বাচনে দ্বিতীয় স্থানের জন্য লড়ছে ফ্রিডম পার্টি ও সোস্যাল ডেমোক্র্যাটস পার্টি।

ধারণা করা হচ্ছে, ফ্রিডম পার্টি আগামী জোট সরকারে যোগ দেয়ার সুযোগ পেতে চলেছে। তাদের নির্বাচনী প্রচারে গুরুত্ব পেয়েছে অভিবাসন বিরোধিতা।

২০১৫ সালে ইউরোপে অভিবাসী সঙ্কট শুরু হলে ফ্রিডম পার্টি ইস্যুটিকে বড় করে তোলে এবং অভিবাসন আইন কঠোর করার পক্ষে প্রচার চালায়। মধ্যপ্রাচ্য ও আফ্রিকা থেকে আসা লাখ লাখ আশ্রয়প্রার্থী নিয়ে চরম টানাপড়েন সৃষ্টি হয় ইউরোপে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ