ঢাকা, মঙ্গলবার 17 October 2017, ২ কার্তিক ১৪২8, ২৬ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

খুলনায় স্ত্রীকে হত্যার দায়ে স্বামীর মৃত্যুদণ্ড

খুলনা অফিস : খুলনার দৌলতপুর থানাধীন মহেশ্বরপাশা এলাকায় স্ত্রী রহিমা বেগম (২৪) কে হত্যার দায়ে দণ্ডবিধির ৩০২ ধারায় স্বামী মো. মনির হাওলাদার (৩৫) কে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দেয়া হয়েছে। গতকাল সোমবার দুুপুর সাড়ে ১২টার দিকে খুলনার মহানগর দায়রা জজ আদালতের বিচারক অরূপ কুমার গোস্বামী এ রায় ঘোষণা করেন। দণ্ডপ্রাপ্ত আসামী দৌলতপুরের মহেশ্বরপাশা মুন্সিপাড়া এলাকার মৃত মুজিবর হাওলাদারের ছেলে। রায় ঘোষণাকালে সে আদালতের কাঠগড়ায় উপস্থিত ছিল।
এপিপি মো. কামরুল ইসলাম জোয়ার্দার জানান, ২০১৬ সালের ২ ফেব্রুয়ারি পারিবারিক কলহের জের ধরে সকাল সাড়ে ৮টার দিকে দৌলতপুরের মহেশ্বরপাশা মুন্সিপাড়া এলাকার বাসায় স্ত্রী রহিমা বেগমকে শ্বাসরোধে হত্যা করে তার স্বামী মনির হাওলাদার। স্ত্রীকে হত্যার পর ঘরের বাইরে থেকে তালা বদ্ধ করে চলে যায় মনির। এরপর বিবেকের তাড়নায় সে ছুটে যায় খুলনার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে। সেখানে গিয়ে মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মো. আমিরুল ইসলামের আদালতে আত্মসমর্পণ করেন তিনি। আদালত তার প্রাথমিক বক্তব্য শুনে দৌলতপুর থানা পুলিশকে ঘটনার বিষয়ে জানিয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধারসহ আইনী ব্যবস্থার আদেশ দেন। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ঘরের তালা ভেঙ্গে গৃহবধূ রহিমা বেগমের লাশ উদ্ধার করে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করে আদালতকে অবগত করেন। এ ঘটনায় সেদিনই নিহতের পিতা মো. আব্দুল ওহাব মিয়া বাদি হয়ে দ-বিধির ৩০২ ধারায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন (নং-১২)। একই দিনে আসামী মনির হাওলার আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দেয়। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা দৌলতপুর থানার এসআই বাবলুর রহমান খান ২০১৬ সালের ১ মে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন। মামলার এজাহার ও চার্জশিটভুক্ত ১৩ জন স্বাক্ষী আদালতে তাদের স্বাক্ষ্য প্রদান করেছেন। মামলায় রাষ্ট্রপক্ষের কৌশুলী ছিলেন মহানগর দায়রা জজ আদালতের পিপি সুলতানা রহমান শিল্পী ও এপিপি মো. কামরুল হোসেন জোয়ার্দার।
বন্দুকযুদ্ধে লিটন বাহিনীর সেকেন্ড-ইন-কমান্ড নিহত : সুন্দরবনে র‌্যাবের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে বনদস্যু লিটন বাহিনীর সেকেন্ড-ইন-কমান্ড মো. মোক্তার মোল্লাা নিহত হয়েছে। এ সময় ঘটনাস্থল থেকে ২১টি অস্ত্র ও ৩৭টি গুলী উদ্ধার করা হয়েছে। গতকাল সোমবার সকালে শরণখোলা রেঞ্জের শৈলা খাল এলাকায় এ ঘটনাটি ঘটে। র‌্যাব-৮ এর উপ-অধিনায়ক সোহেল রানা প্রিন্স জানান, ‘ সোমবার ভোরে সুন্দরবনের শরণখোলা রেঞ্জের শৈলা খালে বনদস্যু লিটন বাহিনী সশস্ত্র অবস্থায় অবস্থান করছিল। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সেখানে অভিযান চালায় র‌্যাব। র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে গুলী চালায় লিটন বাহিনী। র‌্যাবও পাল্টা গুলী চালায়। ঘণ্টাব্যাপী চলা বন্দুকযুদ্ধের পর একপর্যায়ে তারা পিছু হটে। পরে ঘটনাস্থল থেকে মো. মোক্তার মোল্লার গুলীবিদ্ধ লাশ উদ্ধার করে র‌্যাব।’ তিনি আরও বলেন, ঘটনাস্থল থেকে একটি ডাবল ব্যারেল ও একটি সিঙ্গেল ব্যারেল বন্দুক, একটি কাটা রাইফেল, দু’টি ওয়ানশুটার গান এবং ১৬টি পাইপগানসহ ৩৭ রাউন্ড গুলী উদ্ধার করা হয়। মোক্তারের লাশ শরণখোলা থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ