ঢাকা, শুক্রবার 20 October 2017, ৫ কার্তিক ১৪২8, ২৯ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

যে সরকারের অধীনে প্রধান বিচারপতি নিরাপদ নয় তাদের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন কিভাবে সম্ভব? 

স্টাফ রিপোর্টার :  যে সরকারের অধীনে দেশের প্রধান বিচারপতিই নিরাপদ নন সেখানে সেই দলীয় সরকারের অধীনে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন কিভাবে সম্ভব ? একই সাথে  চলমান সংসদ ভেঙ্গে দিয়ে সেনাবাহিনী মোতায়েন করে নির্বাচন অনুষ্ঠানের দাবিও জানিয়েছেন নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না। 

গতকাল বৃহস্পতিবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের  ভিআইপি লাউঞ্জে নাগরিক ঐক্য আয়োজিত ‘নির্বাচনী সংলাপ ও গণতন্ত্র’ প্রসঙ্গে সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। সাংবাদিক সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন নাগরিক ঐক্যের উপদেষ্টা সাবেক সংসদ সদস্য এস এম আকরাম।

মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, এই সরকারের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব নয়।  তিনি বলেন, যে সরকারের শাসনব্যবস্থায় বিচার বিভাগের অবস্থা প্রশ্নবিদ্ধ, প্রধান বিচারপতি নিরাপদ নয়, সেই সরকার ক্ষমতায় থাকাকালীন অবস্থায় সুষ্ঠু নির্বাচন কীভাবে সম্ভব? তাই আগামীতে দেশে সুষ্ঠু নির্বাচন করতে চাইলে নির্বাচনের আগে সংসদ ভেঙে দিয়ে সেনাবাহিনী মোতায়েন করতে হবে।

তিনি বলেন, নাগরিক ঐক্য মনে করে দেশের বর্তমান এই অবস্থার মূলে আছে ২০১৪ সালে নির্বাচনের নামে প্রহসনের মাধ্যমে অর্জিত অবৈধ ক্ষমতাকে টিকিয়ে রাখার মরিয়া চেষ্টা। সে কারণে আমরা বিশ্বাস করি আগামী সংসদ নির্বাচনটি যদি অবাধ, নিরপেক্ষ এবং অংশগ্রহণমূলক না হয়, তবে সেটা আমাদের প্রায় ভেঙে পড়া রাষ্ট্র ব্যবস্থাকে একেবারেই ধসিয়ে দিবে। তিনি আরো বলেন, বর্তমান সরকারের আমলে বিচার ব্যবস্থা প্রশ্নবিদ্ধ। তাই এই সরকারের অধীনে কোন সময়ই সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন আশা করা যায় না। 

মোট ছয় পৃষ্ঠার লিখিত বক্তব্যে মান্না ক্ষমতাসীন সরকারকে একটি ভয়ংকর দানবীয় সরকার উল্লেখ করে বলেন, দেশের সবকটি প্রতিষ্ঠানকে ধ্বংস করেছে এই সরকার। এখন সর্বোচ্চ আদালত তথা বিচার বিভাগকে ধ্বংসের পাঁয়তারা করছে। সাম্প্রতিক সময়ে বিচার বিভাগ নিয়ে দেশে যা হয়েছে তাকে স্পষ্টভাবে বলা যায় সম্পূর্ণ বিচার ব্যবস্থাকে ধবংসেরই নামান্তর। 

তিনি বলেন, এই সরকারের অধীনে নির্বাচন অনুষ্ঠান করে এবং সেই নির্বাচনকে অবাধ সুষ্ঠু ও নিপরেক্ষ আশা করা মুর্খতার শামিল। বিগত নির্বাচনকে উদ্ধৃতি দিয়ে তিনি বলেন, বিনা ভোটে ১৫৪ জন বির্নাচিত হওয়ার ইতিহাস পৃথিবীতে আর দ্বিতীয়টি নেই। তিনি প্রশ্ন রেখে বলেন, যেভানে ভোটাররা ভোট দিতে পারলো না সেখানে নির্বাচন হলো কিভাবে ?

তিনি নির্বাচন কমিশনের চলমান সংলাপ প্রসঙ্গে বলেন, দেশের মানুষের এবং রাজনৈতিক দলগুলোর ইচ্ছা আকাক্সক্ষাকে অগ্রাধিকার দিয়ে একটি সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য নির্বাচনকালীন সরকার ব্যবস্থা কি হতে পারে তার একটি গ্রহণযোগ্য পথ নির্বাচন কমিশনকেই বের করতে হবে। সংবিধানে ১১৯ ধারা উল্লেখ করে তিনি নির্বাচন কমিশনের ক্ষমতা ও কাজের ধারাবাহিকতা নিয়েও আলোচনা করেন। তিনি প্রতিটি ধারা উপধারা উল্লেখ করে নির্বাচন কমিশনের ক্ষমতা প্রয়োগ করে তাদের এখতিয়ার মোতাবেক দেশে একটি অবাধ নির্বাচন আয়োজনেরও পরামর্শ দেন। রাজনৈতিক দল এবং জনগণের মতামতকে অগ্রাধিকার দিয়ে ইভিএম পদ্ধতি বাতিল করার তাগিদ দেন মাহমুদুর রহমান মান্না।  

এস এম আকরাম বলেন, আমরা এই মুহূর্তে এমন একটা সরকার দ্বারা শাসিত হচ্ছি, যেটা নির্বাচিত হয়েছিল নির্বাচনের আগেই।

সাংবাদিক সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন নাগরিক ঐক্যের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট  ফজলুল হক সরকার, শেখ দেলোয়ার হোসেন, জাহিদুর রহমান, শহীদ উল্লাহ কায়সার প্রমুখ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ